kalerkantho

রবিবার । ১ কার্তিক ১৪২৮। ১৭ অক্টোবর ২০২১। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

আশুলিয়ার গার্মেন্টে বিয়ে করায় চাকরিচ্যুত করা হলো দম্পতিকে

অনলাইন ডেস্ক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৭:০৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আশুলিয়ার গার্মেন্টে বিয়ে করায় চাকরিচ্যুত করা হলো দম্পতিকে

বিয়ে করে চাকরি হারালেন নবদম্পতি। পরিবারের সম্মতি নিয়ে বিয়ে করলেও চাকরি হারাতে হলো প্রাপ্তবয়স্ক পোশাকশ্রমিক নবদম্পতি মোমিনুল ইসলাম শামীম ও লিমা আক্তারকে। ঢাকার অদূরে আশুলিয়ার নরসিংহপুর নিট এশিয়া লিমিটেড নামে পোশাক কারখানায় কাজ করতেন ওই নবদম্পতি।

শামীম কারখানার সুপারভাইজার হিসেবে প্রায় আট বছর যাবৎ কাজ করতেন। আর তার স্ত্রী লিমা চার মাস যাবৎ। তাদের দুজনেরই বাড়ি রংপুর জেলায়। মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে কালের কণ্ঠের সঙ্গে কথা হয় ওই নবদম্পতির।

এ সময় তারা জানান, গত ১৭ সেপ্টেম্বর নিট এশিয়া কারখানাটির পাশেই তাদের বাসস্থানে বিয়ে সম্পন্ন হয়। পরদিন ১৮ সেপ্টেম্বর সকালে কারখানায় গেলে কাজ চলাকালীন অবস্থায় তাদের ডেকে নিয়ে চাকরি ছেড়ে দিতে বলা হয়। এ অবস্থায় তারা চাকরি ছাড়তে অস্বীকার করেন।

শামীম বলেন, আমরা দুজন বিয়ে করেছি। এটা কি আমাদের অপরাধ? বিয়ের পরদিন নিয়ম মাফিক দুজন কারখানায় যাওয়ার একটু পরই আমাদের অ্যাডমিন (প্রশাসন বিভাগ) কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়। তারপর সেখানে নানাভাবে আমাদের অপমান করা হয়। শেষমেশ চাকরি ছাড়তে দুজনকেই রিজাইন লেটারে স্বাক্ষর দিতে বলা হয়। আমরা কেউ স্বাক্ষর দিইনি। তবে আমাদের পরিচয়পত্রগুলো (আইডি কার্ড) রেখে দেওয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, দীর্ঘ আট বছর যাবৎ আমি এ কারখানায় কাজ করছি। কখনো কারখানা কর্তৃপক্ষ আমার কাজের সমস্যা ধরতে পারেনি। হঠাৎ শুক্রবারে বিয়ে করার পর আমাকে ও লিমাকে ডেকে নিয়ে চাকরি ছাড়তে বলা হয়। আমার ও লিমার যত পাওনাদি পাই, তার কিছুই দেওয়া হয়নি।

লিমা আক্তার বলেন, চার মাস যাবৎ কারখানায় সহকারী অপারেটর হিসেবে কাজ করি। কখনো শুনিনি যে বিয়ে করলে আর চাকরি করা যায় না! আমরা এক অফিসেরই দুজন বিয়ে করেছি, এটাতে তো অফিস আরো খুশি থাকার কথা। উল্টো আমাদের দুজনকেই বের করে দেওয়া হলো কারখানা থেকে। শামীম ও লিমার এটি দ্বিতীয় বিয়ে বলে জানা গেছে।

এসব বিষয়ে নিট এশিয়া কারখানার প্রশাসন বিভাগের কর্মকর্তা মো. সাজ্জাদ বলেন, শামীম আগেও একটি বিয়ে করেছিলেন। তার কারণে কারখানার কর্মপরিবেশ নষ্ট হয়েছে। মূলত তিনি একজন সুপারভাইজার। তিনি তার দায়িত্বে থাকা শ্রমিককে কী করে বিয়ে করেন? এ কারণে তাকে ও তার বর্তমান স্ত্রী লিমাকে চাকরি ছাড়তে বলা হয়েছে। কিন্তু তারা তা না করে উল্টো রাগ করে কারখানা থেকে বের হয়ে গেছেন। এখন চাকরি না ছাড়লে তো আর পাওনাদি পাবেন না তারা।

এ বিষয়ে জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি ফরিদুল ইসলাম বলেন, একজন ব্যক্তি কাকে বিয়ে করবেন, কখন বিয়ে করবেন সেটা কি কম্পানি থেকে জেনে নিয়ে বিয়ে করতে হবে? এই অধিকার তো বাবা-মাও রাখেন না। আর আশুলিয়া নরসিংহপুরে অবস্থিত নিট এশিয়া লিমিটেডের শ্রমিক কারখানার অনুমতি ছাড়া বিয়ে করার অপরাধে স্বামী-স্ত্রী দুজনকেই চাকরিচ্যুত করল কারখানার মালিক পক্ষ। এটা অন্যায়।



সাতদিনের সেরা