kalerkantho

রবিবার । ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮। ১ আগস্ট ২০২১। ২১ জিলহজ ১৪৪২

ঠাকুরগাঁও যেতে লাগল দুই রাত-দেড়দিন, ঈদ হলো পথে

অনলাইন ডেস্ক   

২১ জুলাই, ২০২১ ১০:৫৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঠাকুরগাঁও যেতে লাগল দুই রাত-দেড়দিন, ঈদ হলো পথে

এবারের ঈদ যাত্রা ছিল অন্যরকম। বাসে ট্রেনে মানুষের উপচেপড়া ভিড়। একসঙ্গে প্রচুর বাস মহাসড়কে নেমে পড়ার ফলে প্রচুর যানজটের সৃষ্টি হয়। এই যানজটের আঁচ লাগে রাজধানীতেও। ঢাকা থেকে বের হওয়ার রাস্তাগুলো ছিলায় কাণায় কাণায় পূর্ণ। ফলে শেষ কর্ম দিবসেও অফিসগামীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়।  

এছাড়াও ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গগামী সড়কে যানজট এতোটাই ছিল যে অবর্ণনীয়। ২৫ ঘণ্টার আগে যেন রংপুরে পৌঁছানো অস্বাভাবিক। কারো কারো ৩৫ ঘণ্টা বা তারচেয়েও বেশি লেগেছে। 

সাংবাদিক কেরামত উল্লাহ ফেসবুকে ঢাকা থেকে রংপুরের পীরগঞ্জে রওনা দিয়েছিলেন। কিন্তু ১৯ ঘণ্টায় সর্বশেষ তিনি রাস্তায় থেকে জানিয়েছেন এক অবর্ণনীয় অভিজ্ঞতা। বিপ্লব নিজের ফেসবুকে লিখেছেন,  একদিন-একরাত রাস্তায়.. রংপুর যাওয়ার ২২০ কিলোমিটার মহাসড়ক থমকে আছে। গাজীপুরের চন্দ্রা থেকে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ পর্যন্ত। কেউ ২৪ ঘণ্টা কেউ ৩৬ ঘণ্টা বা তারও বেশি সময় ধরে রাস্তায় । নারী, শিশু, বয়স্করা অবর্ণনীয় দুর্ভোগে । বাথরুম করার সুযোগ নেই, খাবার নেই। রাস্তার পাশের কোনও দোকানে বিস্কুটও নেই। বাস-ট্রাকে থাকা শিশুরা খাবারের জন্য কাঁদছে। হাজারে মানুষ গাড়ি থেকে নেমে হাঁটছেন। তাদের মাথায় ব্যাগ, কোলো শিশু। 

কেরামত উল্লাহ বিপ্লব বলেন, যেন যুদ্ধলাগা কোনও দেশ থেকে অন্য কোথায় চলে যাচ্ছে লাখে মানুষ। গ্রাম, বাড়ি , স্ত্রী-স্বামী -সন্তান, প্রিয় বাবা মা বা সজনের জন্য ঘোর লাগা মানুষের ছুটছে। কোনও কোনও গাড়ির জ্বালানি ফুরিয়ে রাস্তায় পড়ে আছে। তার কারণেও জ্যাম কয়েক মাইল। এ কোন ইদযাত্রা। গতকাল ভোর সকাল ৬ টা থেকে ১৯ ঘন্টা এই ঘোরে আছি .. অসহ্য ক্লান্তি- কষ্ট নিয়ে। 

১৯ ঘণ্টা তিনি বগুড়া জেলায় আটকে ছিলেন।

তবে সবচেয়ে কঠিন অভিজ্ঞতা জানাচ্ছেন কণ্ঠশিল্পী নাহিদ হাসান। কালের কণ্ঠকে নাহিদ হাসান বলেন, আমরা একটা মাইক্রোবাস ভাড়া নিয়ে ঢাকা থেকে রওনা হয়েছি। এখনো গ্রামের বাড়ি ঠারগাঁওয়ে পৌঁছাতে পারিনি।' ঢাকার কল্যাণপুর থেকে মাইক্রোবাস নিয়ে পরশু সোমবার রাত ১১ টায় রওনা দেন নাহিদ। মঙ্গলবার বিকেলে তিনি ফেসবুকের মাধ্যমে জানান টাঙ্গাইলের এলেঙ্গায় রয়েছেন। আজ ঈদের দিন সকালে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন রংপুর পেরিয়ে তারাগঞ্জ থেকে। 

নাহিদ জানান পথে পথে এতো পরিমাণ ভোগান্তির মুখোমুখি তিনি। মানুষের এতো কষ্ট চোখে দেখেছি এটা আমার কাছে ছিল একদম নতুন। এমন অভিজ্ঞতা হয়নি। জ্যাম কোথায় ছিল প্রশ্নের জবাবে নাহিদ বলেন, 'কোথায় ছিল না? কল্যাণপুর থেকে শুরু করে গাবতলী, চন্দ্রা, টাঙ্গাইল মহাসড়ক, এলেঙ্গা, বঙ্গবদনহু সেতু পেরিয়ে শেরপুর, মহাস্থান, গোবিন্দগঞ্জ। মানে পুরোটা পথ জুড়ে ছিল জ্যাম। তারাগঞ্জে আমাদের চাকা পাঙ্কচার হয়েছে। এখন নেমে নাবিলে পরিবহণ উঠলাম।'

ফেসবুকে নাহিদ লিখেছেন, 'হাজার হাজার মানুষ যারা জ্যামে বসে থেকে প্রিয় পরিবারের মানুষদের সাথে নামাজ পরতে পারলাম না, কুরবানী করতে পারলাম না সেই সব মানুষদের পক্ষ হতে সবাইকে ঈদ মোবারক।'

নাহিদ সর্বশেষ জানিয়েছিলেন সকাল ১১ টায় দিনাজপুরের বীরগঞ্জ অতিক্রম করছিলাম। আর ঘণ্টাখানেকের মধ্যে পৌঁছে যাবেন বলে আশা করছেন।

গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে ঢাকা টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়। শনিবার বিকেলে স্বাভাবিক হয়ে এলেও রবিবার থেকে ফের অস্বাভাবিক হয়ে যায়। যার রেশ ঈদের দিন সকাল পর্যন্তও ছিল।



সাতদিনের সেরা