kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭। ১৩ আগস্ট ২০২০ । ২২ জিলহজ ১৪৪১

করোনা, ফ্লুসহ আরো কিছু সংক্রমণ শনাক্ত করবে এই যন্ত্র?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৮ জুন, ২০২০ ০৪:১৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



করোনা, ফ্লুসহ আরো কিছু সংক্রমণ শনাক্ত করবে এই যন্ত্র?

করোনার উপসর্গের সঙ্গে ইনফ্লুয়েঞ্জার অনেক মিল। তাছাড়া সর্দি-জ্বর বা নিউমোনিয়ার উপসর্গ দেখেও অনেক সময় বোঝা যায় না রোগী করোনায় আক্রান্ত কি না। ইনফ্লুয়েঞ্জার রোগী বা সাধারণ জ্বরে আক্রান্তদের পৃথক করতে গেলেও উপায় সেই একটাই কভিড টেস্টিং। সময় এবং খরচ দুটোই বেশি। তাই টেক্সাসের অস্টিন ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা তৈরি করেছেন এমন এক উন্নত সেন্সর যা করোনার থেকে বাকি রোগের পার্থক্য বুঝিয়ে দেবে। কভিড টেস্টিং তো করবেই, তাছাড়া অন্য কোনো সংক্রমণ রয়েছে কি না সেটাও ধরে দিতে পারবে। 

এই গবেষণার নেতৃত্বে থাকা ককরেল স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ইলেকট্রিকাল ও কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ডেজি অ্যাকিনওয়ান্ডে বলেন, করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা আসতে পারে বলে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তাছাড়া শীতের সময় জ্বর, নিউমোনিয়ার প্রকোপ বাড়ে অনেকটাই। এই সময় করোনার সংক্রমণ বাড়ার ঝুঁকিও রয়েছে। তাই এমন সেন্সর আমরা আনছি যা অনেক দ্রুত ও নির্ভুলভাবে সংক্রমণ পরীক্ষা করতে পারবে।

কিভাবে করোনার সংক্রমণ ধরবে এই সেন্সর?

গবেষক ডেজি বলেছেন, এই সেন্সর ছোট মাইক্রো ইউএসবির মতো। এতে দু’রকম টেস্ট একবারে করা যাবে। রোগীর থেকে নেওয়া নমুনা এই সেন্সরের চিপে ফেললে এর বিশেষ প্রোটোটাইপ অ্যান্টিবডি স্ক্রিনিং করতে পারবে। এই সেন্সরের দুটো ভাগ বা সেগমেন্ট রয়েছে। একটি শুধুমাত্র করোনার সংক্রমণ ধরবে, অন্যটি ফ্লু বা অন্যান্য সংক্রমণ চিহ্নিত করবে।

গবেষকরা বলছেন, রোগীর থেকে একবার নমুনা নিলেই একসঙ্গে অনেকগুলো টেস্ট কম সময় করা যাবে। শুধু ইনফ্লুয়েঞ্জা নয়, রোগীর শরীরে অন্য কোনো সংক্রমণ রয়েছে কি না অথবা করোনার সঙ্গেই অন্য কোনো ভাইরাল ইনফেকশন বা জটিল রোগ বাসা বেঁধেছে কি না সেটাও নির্ভুলভাবে চিহ্নিত করবে এই সেন্সর।

অস্টিন ইউনিভার্সিটির গবেষক দিমিত্রি কিরেভ বলেছেন, শুধু করোনার সংক্রমণ ধরার মতো সেন্সরের প্রোটোটাইপও রয়েছে, তবে এই ডুয়াল সেন্সর আরও বেশি উন্নত। যে কোনো সংক্রমণ ধরতে পারবে। করোনা রোগী তো বটেই তাদের সংস্পর্শে আসা রোগীদেরও পরীক্ষা করে বলা যাবে তাদের শরীরে ভাইরাস ছড়িয়েছে কি না অথবা সংক্রমণ ছড়াবার সম্ভাবনা আছে কি না। কনট্যাক্ট ট্রেসিংয়ের কাজেও ব্যবহার করা যাবে এই ডুয়াল সেন্সর। 

এই ডিভাইসের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের রিপোর্টও বেশ ভালো বলেই দাবি করেছেন অস্টিন ইউনিভার্সিটির গবেষকরা। ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশনের অনুমোদনও পেয়েছে এই ডিভাইস। সব ঠিক থাকলে খুব দ্রুত বিশ্বের বাজারে আনা হবে বলে জানিয়েছেন তারা।

সূত্র: দ্য ওয়াল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা