kalerkantho

বুধবার । ২৪ আষাঢ় ১৪২৭। ৮ জুলাই ২০২০। ১৬ জিলকদ  ১৪৪১

সামান্য কটা আইসিইউ দিয়ে করোনা মোকাবেলা সম্ভব?

জাকিয়া সৃজনী শিউলী   

৫ জুন, ২০২০ ২১:৩৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সামান্য কটা আইসিইউ দিয়ে করোনা মোকাবেলা সম্ভব?

২৬ শে মার্চ প্রথম ধাপে যখন কয়েক দিনের জন্য লকডাউন করা হলো তখন আমার মতো অনেকেই ভাবতেই পারেননি যে বাংলাদেশ নভেল করোনাভাইরাস কতটা ভয়াবহ রূপ নিয়ে এগুচ্ছে!

ভেবেছিলাম সপ্তাহখানেক ঘরে থাকবো ব্যস্ সব ঠিকঠাক হয়ে যাবে, সবকিছু আবার আগের মতোই চলবে। দিন যতো এগিয়েছে ভাইরাস এর ভয়াবহতা সম্পর্কে মানুষের ধারণা আস্তে আস্তে স্পষ্ট হতে শুরু করেছে।

এর ভয়াবহতা এবং আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসা ব্যবস্থা নিয়ে যতটা রোগীর পরিবার বুঝতে পেরেছেন বা পারছেন এর বাইরে অন্যকারো এ বাস্তবতা অনুমান করা সহজ নয়। আমিও পারিনি, যদি ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া আমার খুব কাছের এক মানুষের ব্যাপারে চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে যুক্ত না হতাম।

আমার ভাতৃতুল্য করোনা আক্রান্ত ওই ব্যক্তির বসবাস কক্সবাজারে। আজ খুব ভোরে টেলিফোনের মাধ্যমে জানতে পারলাম যে, তাঁর শারীরিক অবস্থা খারাপ থেকে আরো খারাপের দিকে যাচ্ছে। আমাকে বলা হলো যে, কোনো হাসপাতালের আইসিইউতে একটি বেডের  ব্যবস্থা করে দিতে।

ভেবেছিলাম এ আর এমন কি? কত কত বন্ধু-বান্ধব আত্মীয়-স্বজন বিভিন্ন হাসপাতালে, কেউ বড় ডাক্তার, কেউ প্রশাসনে বড় পদে রয়েছেন, একটা ব্যবস্থা নিশ্চয়ই হবে।

আমার যোগাযোগকৃত কোনো হাসপাতালের বা ব্যক্তির নাম বলতে চাচ্ছি না, শুধু এতোটুকুই বলছি, ভোর  থেকে দুপুর পর্যন্ত শতশত ফোন দিয়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম এমনকি ঢাকার আশপাশ এলাকার কোনো জেলাতেও আইসিইউ-এর একটি বেডের ব্যবস্থা করতে পারিনি, এমনকি ব্যবস্থা করতে পারিনি করোনায় আক্রান্ত রোগীদের জন্য বিশেষ পেইং বেডের।

ভাবছি রোগীর আর্থিক তেমন কোন সমস্যা নেই তারপরেও চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, তাহলে দেশের সাধারণ মানুষের কী হবে? বিপদ এলে কোথায় যাবে?

এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা চিকিৎসার জন্য অন্তত হাসপাতালের আইসিইউ অথবা বিশেষ বেডের স্থান করতে পেরেছেন তাঁরা আক্রান্ত সকল রোগীদের মধ্যে ভাগ্যবান! কথাটা শুনতে খারাপ লাগলেও এটাই বাস্তব সত্য কথা।

দেশের জনসংখ্যার অনুপাতে কতজন ডাক্তার কিংবা হাসপাতালের বেড এবং সেই সঙ্গে আইসিইউ-এর বেড রাখা প্রয়োজন তার হিসেব নিশ্চয়ই আছে। আমি বলছিনা এখনই তা উন্নত বিশ্বের মতো হতে হবে, তা না হোক অন্তত উন্নয়নশীল দেশের মতো তো হওয়া চাই।

আমি এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ নই,তবুও ফোনে ফোনে বিভিন্ন হাসপাতালের  ব্যক্তিদের সাথে আইসিইউতে একট বেডের জন্য যখন অনুরোধ করছিলাম তখন হাসপাতালের দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের কাছে আইসিইউর বেডের সংখ্যা শুনে আঁতকে উঠেছিলাম (সংখ্যা নাইবা বললাম)।

১৬ কোটি মানুষের দেশে এই সামান্য কটা আইসিইউ-এর বেড! আমাদের এনিয়ে নিশ্চয়ই ভাবতে হবে। ভাবতে হবে ১৬ কোটি মানুষের দেশে আইসিইউতে কয়টি বেডের প্রয়োজন?

লেখক : যুব মহিলা লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক


*** মতামত লেখকের নিজস্ব, কর্তৃপক্ষের নয়

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা