kalerkantho

শনিবার। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৫ ডিসেম্বর ২০২০। ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২

আসমা আজমেরীর বিশ্বভ্রমণের গল্প শুনল সহস্রাধিক শিক্ষার্থী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ মার্চ, ২০২০ ২০:৩২ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



আসমা আজমেরীর বিশ্বভ্রমণের গল্প শুনল সহস্রাধিক শিক্ষার্থী

কুমিল্লার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের শতাধিক দেশ ভ্রমণের অভিজ্ঞতা শুনালেন দেশের অন্যতম নারী বিশ্বপর্যটক কাজী আসমা আজমেরী। কুমিল্লায় চার দিনের সফরে গিয়ে এ নারী পর্যটক তার বিশ্বভ্রমণের আদ্যোপ্রান্ত তুলে ধরে হাজারো শিক্ষার্থীদের বিশ্বভ্রমণের প্রতি উদ্বুদ্ধ করেন। ভিসা কেন্দ্রিক জটিলতা ও বিভিন্ন প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে কিভাবে জ্ঞানার্জনের অন্যতম মাধ্যম বিশ্বভ্রমণ করা যায় সে বিষয়ে গঠনমূলক দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। সীমিত খরচে বেশি দেশ কিভাবে ঘুরা যায় সে তথ্য উঠে এসেছে আসমা আজমেরীর ভ্রমণ গল্পে।

গত চারদিনে কুমিল্লার শাহীন স্কুল, কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড সরকারি মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, পুলিশ লাইন হাই স্কুল এবং ভিক্টোরিয়া কলেজ সমাজকর্ম বিভাগ, ভিক্টোরিয়া কলেজ সাংবাদিক সমিতি, ক্যাম্পাস বার্তা, কুভিক থিয়েটার, যুব সংগঠন দুর্বার, কুমিল্লা সরকারি মহিলা কলেজ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথেও ভ্রমণ অভিজ্ঞতার গল্প শোনান। 

কুমিল্লা ট্যুরিস্ট ক্লাবের আমন্ত্রণে ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা দর্পণের সার্বিক সহযোগিতায় চার দিনে এক হাজারের বেশি শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে দেশভ্রমণের খুঁটিনাটি ও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো শেয়ার করেন। 

কুমিল্লা ট্যুরিস্ট ক্লাবের সভাপতি ও দর্পণ এর নির্বাহী পরিচালক মো: মাহবুব মোর্শেদের আমন্ত্রণে গত ১৩ মার্চ তিনি কুমিল্লা যান। ওইদিন বিকেলে তিনি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা দর্পণের অপরাজিতা সম্মেলন কক্ষে স্থানীয় সাংবাদিক, সূশীল সমাজ ও পেশাজীবিদের সাথে তার ভ্রমণ অভিজ্ঞতা নিয়ে মতবিনিময় করেন। 

কুমিল্লা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি জহিরুল হক দুলালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন দর্পণ এর নির্বাহী পরিচালক মো: মাহবুব মোর্শেদ। 

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সমতটের কাগজের সম্পাদক ও প্রকাশক জামাল উদ্দিন দামাল, অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি নাগমা মোর্শেদ, দৈনিক ইনকিলাবের কুমিল্লা প্রতিনিধি সাদিক মামুন, ডিবিসি নিউজের কুমিল্লা প্রতিনিধি নাসির উদ্দিন, সময় টিভির বাহার রায়হান, দীপ্ত টিভির শাকিল মোল্লা, আরটিভির গোলাম কিবরিয়া, রোটারিয়ান আনোয়ার হোসেন, নারী উদ্যোক্তা নাসিমা আক্তার, এশিয়ান টিভির কুমিল্লা প্রতিনিধি দেলোয়ার হোসাইন আকাঈদ, অ্যাডভোকেট জাফর আলী প্রমুখ।

পরদিন ১৪ মার্চ সকাল ৯টায় শাহীন স্কুলের শিক্ষার্থীদের সাথে তার ভ্রমণ অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। এতে স্কুলের পায় ১৬০ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশ নেয়। এ সময় স্কুলের পরিচালক মো: হুমায়ুন রশীদ উপস্থিত ছিলেন। এরপর তিনি দুপুর ১২টায় কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড মডেল কলেজের শিক্ষার্থীদের সাথে তার ভ্রমণ অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। এতে স্কুলের ১৪০জন ছাত্র-ছাত্রী অংশ নেয়। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ ড. এমদাদুল হক উপস্থিত ছিলেন।
ওইদিন বিকাল ৩টায় চৌদ্দগ্রামের চিওড়ায় ভ্রমণ বিষয়ক যুব সংগঠন দুর্বার বাংলার সদস্যদের সাথে তিনি মত বিনিময় করেন। এসময় দুর্বার বাংলার সভাপতি মো: এমরান হোসাইন উপস্থিত ছিলেন। এতে প্রায় ১১০ জন তরুণ-তরুণী অংশ নেয়। 

১৫ মার্চ সকাল ৯টায় কাজী আসমা আজমেরী পুলিশ লাইন হাই স্কুলের শিক্ষার্থীদের সাথে ভ্রমণ অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন। এতে স্কুলের প্রায় ১৭৫ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এ সময় বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো: আমিনুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

এরপর দুপুর ১২ টায় তিনি ভিক্টোরিয়া কলেজের সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী, কুভিক সাংবাদিক সমিতি, ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে প্রকাশিত ক্যাম্পাস বার্তার সদস্যদের সাথে মিলিত হন। এসময় কলেজের অধ্যক্ষ মো: রুহুল আমিন ভূইয়া এবং সমাজ কর্ম বিভাগের বিভাগীয় প্রধান নূর মোহাম্মদ হারছী উপস্থিত ছিলেন। এসময় কলেজের ২৫০ শিক্ষার্র্থী অংশ নেন।

পরদিন ১৬ মার্চ সকাল ১১ টায় তিনি কুমিল্লা সরকারী মহিলা কলেজের শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময় করেন। এতে কলেজের প্রায় ২৪৫ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এসময় কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর জামাল নাসের এবং উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক হাসানাত আনোয়ার উদ্দিন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

এরপর দুপুর ১ টায় তিনি ভিক্টোরিয়া কলেজের কুভিক থিয়েটার সদস্যদের সাথে মিলিত হন। এ সময় ভিক্টোরিয়া কলেজ থিয়েটারের প্রধান উপদেষ্টা বাংলা বিভাগের প্রধান মো: মশিউর রহমান ভূইয়া এবং রসায়ন বিভাগের শিক্ষক উপদেষ্টা নিলুফার সুলতানা উপস্থিত ছিলেন। এতে কলেজের প্রায় ৯০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়।  

এরপর বিকাল ৩.৩০ মিনিটে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে মতবিনিময় করেন বিশ্ব পর্যটক কাজী আসমা আজমেরী। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কলা ও মানবিক বিভাগের ডীন ড. এম এম শরীফুল ইসলাম, অর্থনীতি বিভাগের চেয়ারম্যান ড. এম. জাকির সাদউল্লাহ্ খান, সহকারী রেজিষ্ট্রার (একাডেমিক) মোশারফ হোসেন। করোনা ভাইরাসজনিত কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচী স্থগিত করা হয়। 

পর্যটক আসমা আজমেরি বলেন, ভ্রমণের সুবাদে বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থায় কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। আমি শিশুদেরকে নিয়ে কাজ করতে পছন্দ করি। আমি দেশ ভ্রমণের জন্য বছরের একটি অংশকে নির্দিষ্ট করে নেই। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, দেশ ভ্রমণ করতে হলে প্রথমেই প্রয়োজন দৃঢ় মনোবল।

আসমা আজমেরী বলেন, হার না মানার মানসিকতা থাকতে হবে। বিভিন্ন সংস্কার থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। ভ্রমণের ক্ষেত্রে যে বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে সেটি হলো পূর্বপরিকল্পনা। শপিং এবং মালামাল বহনের ক্ষেত্রে সচেতন হতে হবে।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দেশ ভ্রমণের অভিজ্ঞতা তুলে ধরার কর্মসূচিগুলোতে পর্যটক কাজী আসমা আজমেরির সাথে অন্যান্যদের মধ্যে ছিলেন কুমিল্লা ট্যুরিস্ট ক্লাবের সভাপতি মাহবুব মোর্শেদ এবং সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন দামাল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা