kalerkantho

শনিবার । ২১ চৈত্র ১৪২৬। ৪ এপ্রিল ২০২০। ৯ শাবান ১৪৪১

পোষা কুকুরে কামড়ে খেয়েছিল মুখ, নতুন চেহারা পেয়েও ...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১১:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পোষা কুকুরে কামড়ে খেয়েছিল মুখ, নতুন চেহারা পেয়েও ...

পৃথিবীতে সর্বপ্রথম মুখ পরিবর্তন করা নারী ফ্রান্সের ইসাবেলা ডিনোইরে। ২০০৫ সালে নিজের মুখ হারিয়ে সার্জারির মাধ্যমে নতুন মুখ পান তিনি। জানা গেছে, ভয়াবহ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে বেঁচে ফিরে নতুন মুখ নিয়ে দীর্ঘ সময় বেঁচে থেকেছেন তিনি।

২৭ মে ২০০৫ সালের ঘটনা। ঘুমের ওষুধ খেয়ে নিজের ঘরে জ্ঞান হারিয়ে পড়েছিলেন তিনি। জ্ঞান ফেরার পর সিগারেট ধরাতে যান। কিন্তু কোনোভাবেই মুখে সিগারেটটি রাখতে পারছিলেন না। পরে খেয়াল করে দেখেন, রক্তে ভেসে যাচ্ছে তার শরীর। তা দেখে আবারো জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

এরপর তার বাড়ির সহায়িকা এসে চিৎকার করে ওঠেন। জানা গেছে, অত্যধিক পরিমাণে ঘুমের ওষুধ খেয়ে অচেতন হয়ে পড়েন ইসাবেলা। ওই সময় তার পোষা কুকুর এসে মুখ ও নাকের কিছু অংশ ছিঁড়ে খেয়েছে। পরে ইসাবেলা স্বীকার করেছেন, আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে বেশি পরিমাণে ঘুমের ওষুধ খেয়েছিলেন।

এরপর ২৭ নভেম্বর ২০০৫ সালে সার্জারির মাধ্যমে নতুন মুখাবয়ব পান তিনি। এজন্য অবশ্য একজনের কাছ থেকে সেই অঙ্গ নিতে হয়েছে তাকে। তিনিই প্রথম নারী, যার মুখাবয়ব পরিবর্তন করা হয় সার্জারির মাধ্যমে। এ ঘটনার জেরে বিশ্বজুড়ে তিনি পরিচিতি পান।

নতুন মুখ নিয়ে বেজায় খুশি ইসাবেলা। তবে শুরুতে কথা বলতে এবং পানিসহ অন্যান্য তরল জাতীয় খাবার খেতে একটু সমস্যা হচ্ছিল। ধীরে ধীরে সেই জটিলতা অনেকটাই কেটে যায় তার। এজন্য অবশ্য ডাক্তারদের পরামর্শে ওষুধ সেবন করতে হয়েছে।

২০১২ সালে এসে মুখ একেবারে স্বাভাবিকভাবে নড়াচড়া করা ও কথা বলতে পারেন ইসাবেলা। তবে ডাক্তাররা বরাবরই বলছিলেন, বড় ধরনের কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে। কিন্তু সেভাবে কিছুই বুঝতে পারছিলেন না তিনি। 

একপর্যায়ে ক্যান্সার ধরা পড়ে ইসাবেলার। আসলে অত্যধিক মাত্রার ওষুধ সেবন এবং অস্ত্রোপচারের জেরে এ ধরনের বিপাকে পড়েন তিনি। জানা গেছে ২০১৬ সালে তিনি মারা গেছেন। তার পরের চার মাসেও গণমাধ্যমে বিষয়টি উঠে আসেনি। 

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, মারা যাওয়ার অনেক আগেই তার মুখাবয়ব অচল হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু নানা রকম চাপে বিষয়টি প্রচারের আলোয় আসেনি।  নতুন যে অবয়ব নিয়ে ইসাবেলা নতুনভাবে বাঁচতে চেয়েছিলেন, সেটাই কাল হয়ে দাঁড়ায় তার জীবনে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা