kalerkantho

সোমবার । ২৯ আষাঢ় ১৪২৭। ১৩ জুলাই ২০২০। ২১ জিলকদ ১৪৪১

আন্তর্জাতিক তথ্য সুরক্ষা দিবস আজ

ব্যক্তিগত তথ্য অরক্ষিত ডিজিটাল মাধ্যমে

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজের তথ্য শেয়ার করে ৩৬.৭০% মানুষ

মাসুদ রুমী   

২৮ জানুয়ারি, ২০২০ ১৮:৫১ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



ব্যক্তিগত তথ্য অরক্ষিত ডিজিটাল মাধ্যমে

গ্রাহকদের সংবেদনশীল তথ্য বেহাত করার অভিযোগ উঠেছিল দেশের অন্যতম রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম পাঠাওয়ের বিরুদ্ধে। গ্রাহকের স্মার্টফোনে থাকা তথ্য অনুমতি ছাড়াই ব্যবহারের অভিযোগে ক্ষুব্ধ গ্রাহকরা পাঠাও বর্জনের ডাক দিয়েছিলেন। শুধু রাইড শেয়ারিং অ্যাপই নয়, গ্রাহকের তথ্য অনুমতি ছাড়াই অবাধে ব্যবহৃত হচ্ছে ডিজিটাল মাধ্যমে। এমন কর্মকাণ্ডকে সম্পূর্ণ অবৈধ বলছেন তথ্য-প্রযুক্তি এবং সাইবার বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা বলছেন, এভাবে তথ্য বেহাত হলে একজন মানুষের ব্যক্তিগত জীবন উন্মুক্ত হয়ে যেতে পারে। এর ফলে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে পারেন গ্রাহক। এ ছাড়া বিপুলসংখ্যক গ্রাহকের তথ্য বেহাত হলে তা জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে উঠতে পারে। এমন বাস্তবতায় আজ মঙ্গলবার বিশ্বজুড়ে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক তথ্য সুরক্ষা দিবস (ডাটা প্রাইভেসি ডে)।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, স্মার্টফোনের কল্যাণে দেশে এখন ইন্টারনেট ব্যবহারকারী প্রায় ১০ কোটি। ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম রেজিস্ট্রেশনের নামে নেওয়া হচ্ছে তথ্য। মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করলেও নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ব্যবহারকারীর কাছ থেকে নিয়ে নিচ্ছে নানা তথ্য। দেশে ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষায় শক্তিশালী আইনের অনুপস্থিতিতে দেশি-বিদেশি অনেক কম্পানি তাদের ব্যবহারকারী ও ক্রেতাদের ব্যক্তিগত আচরণ পর্যবেক্ষণ করার সুযোগ পাচ্ছে। ভোক্তাদের এসব তথ্য কোনো কোনো কম্পানি বিক্রিও করে দিচ্ছে।

সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস ফাউন্ডেশনের নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে, ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষার বিষয়ে জানেন ৭৮.৫০ শতাংশ মানুষ। অপরিচিতদের থেকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পেলে গ্রহণ করেন ২৪.১০ শতাংশ মানুষ। মোবাইল অ্যাপগুলো কোন তথ্য নিচ্ছে এবং তার সুরক্ষার বিষয়ে নিশ্চিত নন ৫৯.৫০ শতাংশ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের শারীরিক সুস্থতা-অসুস্থতা, বিভিন্ন রেস্তোরাঁয় খাওয়াদাওয়া ও ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দ সম্পর্কিত তথ্য পাবলিকলি শেয়ার করেন (এটি মূলত অনুচিত) ৩৬.৭০ শতাংশ, কোনো পোস্ট শেয়ার দেওয়ার আগে সেটির সত্যতা যাচাই করেন ৮৭.৩০ শতাংশ, অনলাইনে প্রাইভেসি সেটিংসের বিষয়ে ধারণা ভালো ৪৪.৩ শতাংশ, মোটামুটি ৫০.৬ শতাংশ, বাকিদের কোনো ধারণাই নেই। এ ছাড়া বিভিন্ন কম্পানি গ্রাহকের ব্যক্তিগত যেসব তথ্য নিচ্ছে সেগুলোর নিরাপত্তার বিষয়ে জবাবদিহি চান ৮১ শতাংশ এবং ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষার বিষয়ে বাংলাদেশে পূর্ণাঙ্গ আইন বা নীতিমালা করার পক্ষে শতভাগ মানুষ।

বাংলাদেশ সংবিধানের ৪৩ (খ) নম্বর অনুচ্ছেদে প্রাইভেসি রাইটস বা ব্যক্তির তথ্য সুরক্ষা ও গোপনীয়তা মৌলিক মানবাধিকার হিসেবে স্বীকৃত। একই সঙ্গে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অনুমতি ছাড়া কারো ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশকে অপরাধ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। অথচ বাংলাদেশের কোনো আইনে নাগরিকের তথ্য সুরক্ষার বিষয়ে সুস্পষ্ট এবং পূর্ণাঙ্গ কোনো দিকনির্দেশনাই নেই।

সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস ফাউন্ডেশনের সভাপতি কাজী মুস্তাফিজ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে যেসব ডিজিটাল সেবা দেওয়া হচ্ছে তাতে নানা তথ্য নেওয়া হচ্ছে। কিন্তু তথ্যটা ব্যবহারের ক্ষেত্রে ব্যক্তির অনুমতি নিতে হবে। ভোক্তাদের বোঝা প্রয়োজন, তাঁদের তথ্যের সঠিক মূল্য আসলে কতটা এবং কিভাবে এই তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে, ব্যবহার করা হচ্ছে এবং তা শেয়ার করা হচ্ছে। এ ছাড়া তাঁদের ব্যক্তিগত তথ্যের ভালোভাবে ব্যবস্থাপনা করা জানতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের সংবিধানে ডাটা প্রাইভেসির অধিকারের কথা বলা হলেও এ নিয়ে কোনো সুনির্দিষ্ট আইন হয়নি। তথ্য কে কোথায় কিভাবে ব্যবহার করতে পারবে, অনুমতি নিতে হবে কিভাবে, কিভাবে সংরক্ষণ করতে হবে—তা নিয়ে একটি আলাদা আইন করার কথা আমরা বলে আসছি। সারা পৃথিবীতে এই আইন আছে এবং এগুলো সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম মানতে বাধ্য।’

জানা যায়, ১৯৮১ সালে ইউরোপের বৃহৎ সংগঠন ‘কাউন্সিল অব ইউরোপে’ কনভেনশন ১০৮ স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে বিশ্বে প্রথম ডাটা প্রাইভেসি ডে বা তথ্য সুরক্ষা দিবস উদ্‌যাপন শুরু হয়। প্রতিবছর ২৮ জানুয়ারি বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন সংগঠন ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষার গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতনতা তৈরিতে সহযোগিতা করে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, ‘ব্যক্তিগত তথ্যের নিয়ন্ত্রণ করুন’। যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটির পরিচালনায় ন্যাশনাল সাইবার সিকিউরিটি অ্যালায়েন্সের নেতৃত্বে বাংলাদেশে সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করবে সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস ফাউন্ডেশন।

ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তায় সরকারের উদ্যোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, “ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা’ বলতে যা বোঝায় সেই পর্যন্তই আমরা অন্তর্ভুক্ত করেছি। এখানে ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তার বিষয়ে বিস্তারিত নেই। এই আইনের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিষয়টি আসেনি। আমাদের হয় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন করতে হবে অথবা প্রাইভেসি ও ডাটা সিকিউরিটি নিয়ে আলাদা আইন করতে হবে। এটা করা এখন অনিবার্য হয়ে উঠেছে।”

এই তথ্য-প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ বলেন, ‘বিশ্বের অনেক দেশ এই বিষয়ে আইন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে আইনের আওতায় এনেছে। এ কারণে সিঙ্গাপুরের বাইরে গুগল কোনো তথ্য নিতে পারে না। তাই তাদের সিঙ্গাপুরে সার্ভার বসাতে হয়েছে। আমাদেরও সেই পথে হাঁটতে হবে।’  

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা