kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ জানুয়ারি ২০২০। ৭ মাঘ ১৪২৬। ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

সত্যিকারের নায়ক, আগুনে ঝাঁপিয়ে ১১ জনকে বাঁচালেন তিনি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৬:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সত্যিকারের নায়ক, আগুনে ঝাঁপিয়ে ১১ জনকে বাঁচালেন তিনি

ভারতের দিল্লির আনাজ মাণ্ডির ঘিঞ্জি এলাকায় বহুতল ভবনে রবিবার ভোরে হঠাৎ করেই আগুন লেগে যায়। ঘুমের মধ্যেই দগ্ধ হয়ে মারা যান ৪৩ জন। গুরুতর জখম হন ৫০ জনেরও বেশি মানুষ। হতাহতের সংখ্যা আরো যে বাড়েনি, সেজন্য নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবিদার দমকল বাহিনীর সদস্যরা। 

আগুনের লেলিহান শিখা উপেক্ষা করে তাতে ঝাঁপ দিয়েছিলেন বেশ কয়েকজন দমকলকর্মী। সোজা ঢুকে পড়েছিলেন দাউ দাউ করে জ্বলতে থাকা কারখানার ভেতরে। তেমনই একজন দমকলকর্মীর সাহস ও প্রচেষ্টার জেরে প্রাণ বেঁচেছে ১১ জনের। ওইসব পরিবারের লোকদের কাছে সেই কর্মী এখন সাক্ষাৎ দেবতা।

দিল্লির দমকলকর্মী রাজেশ শুক্লা। কর্তব্য ও মানবিকতাকে সর্বাগ্রে রেখে তিনি বাঁচিয়েছেন ১১ জনকে। উদ্ধারকাজে নিজেও দগ্ধ হয়েছেন। পায়ে আঘাত লেগে তিনি বর্তমানে এলএনজেপি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। হাসপাতালে তাকে দেখতে যান দিল্লির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন। 

তিনি এক টুইটে জানিয়েছেন, দমকল বাহিনীর কর্মী রাজেশ শুক্লা প্রকৃত নায়ক। আগুনের স্থলে প্রথম দমকল কর্মী হিসেবে তিনি প্রবেশ করেন। তিনি ১১ জনকে বাঁচিয়েছেন। হাড়ে আঘাত লাগা সত্ত্বেও শেষ পর্যন্ত তিনি নিজের কাজ করে গেছেন। সাহসী এই নায়ককে কুর্নিশ।

রবিবার ভোর ৫টা নাগাদ আগুন লাগে দিল্লির আনাজ মাণ্ডির রাণী ঝাসি রোডে এক বহুতল ভবনে। ভোরবেলায় আগুন লাগায় শ্রমিকরা কেউই সেভাবে টের পাননি। বহুতল ভবনে আটকে পড়েন বহু শ্রমিক। ঘটনাস্থলে পৌঁছায় দমকলের ২৭টি ইঞ্জিন। প্রায় দেড়শ দমকলকর্মী উদ্ধার করেন ৬৩ জনকে। ঘিঞ্জি গলিতে বহুতলটি হওয়ায় উদ্ধারকাজে অসুবিধার সম্মুখীন হয় দমকল।

কী কারণে আগুন লেগেছে সে ঘটনার তদন্তে নেমেছে দমকল বাহিনী। শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ঘিঞ্জি গলিতে বাড়ির মধ্যেই তিনটি কারখানা বৈধ কাগজ রয়েছে কিনা তদন্ত চালানো হচ্ছে। 

এ ঘটনায় মালিকের ভাইকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় সমবেদনা জানান প্রধানমন্ত্রী। আজ টুইট করে বলেন, অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা। টুইট করেছেন মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়ালও।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা