kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

কুকুরকে বাঘ সাজিয়ে পাঠালো ক্ষেতে! এরপর ...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৮:১২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুকুরকে বাঘ সাজিয়ে পাঠালো ক্ষেতে! এরপর ...

ফসল বাঁচাতে কুকুরকে বাঘ সাজিয়ে চাষের ক্ষেতে দাঁড়াতে দেখেছেন কখনও! শুনতে অবাক লাগলেও এমন ঘটনাই ঘটেছে ভারতের কর্ণাটকের তীর্থহালি তালুকের নালুরু গ্রামে।

ভারতের গণমাধ্যমের খবরে জানা যায়, বহুদিন ধরে বাঁদরের উৎপাতে অতীষ্ট ছিলেন নালুরু গ্রামের বাসিন্দা শ্রীকান্ত গৌড়া। তাই বাঁদরের হাত থেকে ক্ষেতের ফসল বাঁচাতে নকল বাঘের ব্যবস্থা করেন তিনি। নিজের পোষ্য কুকুরের গায়ে বাঘের মতো হবহু হলুদ কালো ডোরাকাটা দাগ করে দেন তিনি। যাতে কুকুরকে দেখে বাঘ ভেবে ভয় পায় বাঁদরের দল এবং তার চাষের জমির ধারে কাছেও না ঘেঁষে তারা। আর, তাতে কাজও হয়েছে। 

গণমাধ্যমকে শ্রীকান্ত জানান, চার বছর আগে তিনি উত্তর কর্ণাটকের ভাটকলের এক কৃষকের কথা শুনেছিলেন, যিনি তার জমিতে ফসল রক্ষার জন্য বাঘের মতো দেখতে একটি খেলনা ব্যবহার করেছিলেন। এই শুনে শ্রীকান্ত গৌড়া-ও ক্ষেতের মাঝখানে বাঘের মতো দেখতে একটি পুতুল রেখেছিলেন এবং তাতে কাজও হয়েছিল। বাঘের মতো খেলনা দেখে ভয় পেয়ে বাঁদররা আর তাঁর ক্ষেতে প্রবেশ করত না। এই কৌশল তিনি অন্য ক্ষেতেও ব্যবহার করেছিলেন, সেখানেও আর বাঁদররা যেত না। কিন্তু, তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে এই কৌশলটি বেশিদিন কাজ করবে না, স্থায়ী কিছু ভাবতে হবে। তাই, এবার নিজের পোষ্য কুকুরকেই বাঘ সাজিয়ে দিলেন। চুল রঙ করার জিনিস অর্থাত্‍ হেয়ার ডাই দিয়ে পোষ্য কুকুরের গায়ে ডোরাকাটা দাগ এঁকে দেন শ্রীকান্ত। এই কৌশল ভালোই কাজ দেয়। বাঘরুপী কুকুরটি খেতের চার দিকে ঘুরে বেড়ায় এবং ভয়ে বাঁদররা আর ফসলের কাছে আসে না। কুকুরের গায়ের রঙ ফিকে হলেই ফের কাজে লেগে পড়েন শ্রীকান্ত। বহুদিন ধরে এভাবেই নিজের ক্ষেতের ফসল বাঁচিয়ে আসছে শ্রীকান্ত।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা