kalerkantho

সোমবার । ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১১ রবিউস সানি ১৪৪১     

কবিরাজের এক ফুঁ-তে ৫০ হাজার মানুষের সব রোগবালাই দূর হবে!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ নভেম্বর, ২০১৯ ১৬:১৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কবিরাজের এক ফুঁ-তে ৫০ হাজার মানুষের সব রোগবালাই দূর হবে!

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের বৈরী আবহাওয়াকে উপেক্ষা করেই শনিবার সকালে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ তেল ও পানির বোতল নিয়ে হাজির হয় কিশোরগঞ্জের বিস্তীর্ণ মাঠে।

পাকুন্দিয়া উপজেলার সুখিয়া ইউনিয়নের চর পলাশ গ্রামের বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠে আসবেন কথিত ‘কাঠুরিয়া কবিরাজ’।  তার জন্য মঞ্চও তৈরি করা হয়। তিনি পানি ও তেলে ফুক দিবেন। তার ঝাড়ফুকের পানি খেলে এবং তেল মালিশ করলে সব রোগবালাই থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে ও মনোবাসনা পূরণ হবে। এমন প্রচারণা ও বিশ্বাস থেকেই জনতার ভিড়।

সকাল আটটা বাজার আগেই ৫০ সহস্রাধিক নারী-পুরুষের উপস্থিতিতে কানায় কানায় ভরে ওঠে ফসলের পতিত ওই বিশাল মাঠ। অপেক্ষার পালা কাঠুরিয়া কবিরাজের।

ভক্তরা বারবার কাঠুরিয়া কবিরাজের আগমন বার্তা জানিয়ে মাইকে ঘোষণা দিচ্ছিলেন। মঞ্চে এসে উঠলেন পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেণু ও সুখিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল হামিদ টিটু। বেলা ১১টার মধ্যেই কাঠুরিয়া কবিরাজ এসে হাজির হলেন।

মাইকের মাইক্রোফোন হাতে নিয় তিনি দাবি করেন, আমি মাইকে ফুক দেব, আর মাইকে আমার ফুকের আওয়াজ যে পর্যন্ত যাবে সে পর্যন্ত তেল-পানির বোতলে ফুক কাজ করবে। বক্তব্য শেষ হতে না হতেই কাঠুরিয়া কবিরাজ মাইকে ফুক দিলেন। আর চারপাশে অবস্থান নেয়া হাজার হাজার নর-নারী তেল-পানির বোতল উঁচিয়ে ধরলেন। রোগবালাই মুসিবত দূর এবং মনোবাসনা পূরণের আনন্দ নিয়ে বাড়ি ফিরলেন নর-নারীরা।

পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেণু সংবাদমাধ্যমকে জানান, কিছু ভক্তের অনুরোধে এখানে কাঠুরিয়া কবিরাজের আগমন ঘটে। বিপুলসংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে পরিস্থিতি শান্ত রাখতে তিনি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে সঙ্গে নিয়ে এগিয়ে আসেন।

পাকুন্দিয়া থানার ওসি মো. মফিজুর রহমান জানান, তিনি এ খবর পেয়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রেখে দ্রুত শেষ করার নির্দেশ দেন। সেখানে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান উপস্থিত থেকে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে দ্রুততম সময়ে এ আয়োজন শেষ করেন।

শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানের সাবেক ইমাম কিশোরগঞ্জ শহরের বড়বাজার জামে মসজিদের খতিব ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের গবেষক মুফতি মাওলানা এ কে এম সাইফুল্লাহ জানান, এভাবে মাইকে ফুক দেয়া মোটেই গ্রহণযোগ্য নয়। এ ধরনের আয়োজন প্রতারণার শামিল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা