kalerkantho

শনিবার । ২৩ নভেম্বর ২০১৯। ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

হাসপাতালে গাছের মগডালে রোগী, নামাতে নাজেহাল পুলিশ-দমকল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ নভেম্বর, ২০১৯ ১৭:২৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হাসপাতালে গাছের মগডালে রোগী, নামাতে নাজেহাল পুলিশ-দমকল

গাছের মগডাল থেকে রোগী নামাতে গিয়ে আজ শুক্রবার সারা দুপুর নাকাল হলো দমকল বাহিনীর সদস্যরা। শুক্রবার দুপুর ১টা নাগাদ ভারতের নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য আসা এক রোগীর আত্মীয় প্রথম দেখেন, এক ব্যক্তি বটগাছের মগডালে উঠে আছেন।

প্রথমে তিনি বিষয়টি গুরুত্ব না দিলেও, খানিকক্ষণের মধ্যে তিনি দেখেন বিপজ্জনকভাবে ওই ব্যক্তি এক ডাল থেকে অন্য ডালে যাচ্ছেন। বিষয়টি তিনি অন্যদের জানান। তারা ওই ব্যক্তিকে নেমে আসতে বলেন। কিন্তু কোনো কথায় কর্ণপাত করেননি ওই ব্যক্তি। খবর পেয়ে ততক্ষণে ঘটনাস্থলে আসেন হাসপাতালের কর্মীরা।

অধ্যক্ষের অফিসের পাশেই ওই বটগাছ। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পুলিশকে বিষয়টি জানান। হাসপাতালে দায়িত্বরত পুলিশকর্মীরা এসে প্রথমে ওই যুবককে নেমে আসা অনুরোধ করেন। কিন্তু কোনো অনুরোধেই সাড়া না দিয়ে গাছের ডালে বসে থাকেন ওই যুবক। এর পর খবর দেওয়া হয় এন্টালি থানায় এবং লালবাজার কন্ট্রোল রুমে।

পরে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছান, সঙ্গে যান দমকল কর্মীরা। তারা দমকলের মই নিয়ে গাছে ওঠেন, কিন্তু ওই যুবকের নাগাল পেতে রীতি মতো বেগ পেতে হয়।

বার বার গাছের এক ডাল থেকে অন্য ডালে সরে গিয়ে দমকল এবং বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর জওয়ানদের হাত এড়াতে থাকেন ওই ব্যক্তি। শেষ পর্যন্ত বেলা ২টা ২০ মিনিট নাগাদ তার নাগাল পান দমকল বাহিনীর কর্মীরা। ওই ব্যক্তিকে নীচে নামিয়ে আনা হয়।

তবে এখনো ওই যুবকের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। প্রাথমিকভাবে পুলিশের ধারণা, ওই ব্যক্তি মানসিকভাবে অসুস্থ। তাকে নীচে নামাতে পেরে হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন পুলিশ ও দমকল বাহিনীর কর্মীরা। পুলিশের একজন কর্মকর্তা বলেন, ঝিরঝিরে বৃষ্টির মধ্যে গাছের এক ডাল থেকে অন্য ডালে সরতে গিয়ে পড়ে যেতে পারতেন ওই যুবক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা