kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৯ জুলাই ২০২১। ১৮ জিলহজ ১৪৪২

কয়েক বছরের মধ্যে যেসব পেশা সঙ্কুচিত হবে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ নভেম্বর, ২০১৯ ২১:২৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কয়েক বছরের মধ্যে যেসব পেশা সঙ্কুচিত হবে

গত কয়েক বছর ধরে চাকরির বাজার দ্রুত পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। প্রযুক্তির ব্যাপক উন্নতির ফলে অনেক পেশা ছেড়ে যেতে বাধ্য হচ্ছেন কর্মীরা। বর্তমানে আমরা এমন এক সমাজে বসবাস করছি, যেখানে রোবট আর কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার কল্যাণে অনেকগুলো পেশা হুমকির মুখে পড়ে যাচ্ছে।

তবে আগামি ১০ বছরে নাটকীয়ভাবে আরো অনেক পেশায় পরিবর্তন আসবে। লেবার স্ট্যাটেসটিকসের এক পরিসংখ্যান অনুসারে ২০ শতাংশ চাকরি সঙ্কুচিত হয়ে যাবে। সবচেয়ে বেশি সঙ্কুচিত হবে যে সাত পেশা, তা এখানে তুলে ধরা হলো।

৭. টেলিফোন অপারেটর। গবেষণায় উঠে এসেছে, ২০১৮ সালের মধ্যে ২৮ দশমিক চার শতাংশ টেলিফোন অপারেটরের চাকরি থাকবে না। স্মার্টফোনের কারণে পেশা হারাতে হচ্ছে টেলিফোন অপারেটরদের। বর্তমানে স্মার্টফোনের কল্যানে বিভিন্ন জায়গায় আর টেলিফোন অপারেটরদের সহায়তা নিতে হচ্ছে না। ১০ বছরের মধ্যে সেই সংখ্যা আরো বাড়বে। ফলে চাকরি নিয়ে শঙ্কা তো বর্তমানেই শুরু হয়ে গেছে, সেটা আরো প্রকট আকার ধারণ করবে।

৬. গাড়ির যন্ত্রাংশ লাগানো বা নষ্ট হলে মেরামতকারীদের চাকরিও সঙ্কুচিত হবে। উন্নত প্রযুক্তি সমৃদ্ধ গাড়ি বা স্মার্ট কারের কারণে কমে যাবে ২৮ দশমিক ছয় শতাংশ চাকরি। যেসব কাজ করতে অনেক লোকবলের প্রয়োজন হয়, ধীরে ধীরে সেখানে একেবারেই কম লোকবলে কাজ সেরে ফেলা সম্ভব হবে।

৫. ঘড়ি মেরামতকারীদের কাজ বর্তমানেই কমে গেছে। আগামি ১০ বছরে সেই হার আরো কমে যাবে। আর সারাবিশ্বেই ঘড়ি বিক্রি কমে গেছে। মোবাইলে সবাই সময় দেখে নিতে পারার কারণে আর আলাদাভাবে ঘড়িও কিনছেন না অনেকে।

৪. কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিকদের চাকরি সঙ্কুচিত হবে ৩৩ দশমিক চার শতাংশ। এখন মুখে বলেই তা টেক্সট আকারে পাঠানো যায়। সে কারণে আর কী-বোর্ড চেপে লেখার প্রয়োজন অনেক ক্ষেত্রেই পড়ছে না। এক দশক পর সেটা আরো প্রকট আকার ধারণ করবে। ফলে চাকরির ঝুঁকিতে পড়বে মুদ্রাক্ষরিকরা। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ৫৩ হাজারের বেশি মুদ্রাক্ষরিক চলতি বছরে চাকরি হারিয়েছেন।

৩. গাড়ি পার্কিংয়ের দায়িত্ব পালনকারীদের চাকরি কমে যাবে ৩৬ শতাংশ। সেই জায়গাটা দখলে নেবে প্রযুক্তি।

২. থেরাপিদাতাদেরও চাকরি সঙ্কুচিত হবে। প্রযুক্তির কল্যাণে ৫৭ শতাংশ সঙ্কুচিত হবে এই পেশা।

১. ট্রেনের লাইনে কোনো ধরনের সমস্যা হলেই তা ঠিক করেন কিছু লোকজন। যাদেরকে ইংরেজিতে বলে লোকোমোটিভ ফাইরার। তবে ১০ বছরে এই পেশায় লোকবল একেবারেই হ্রাস পাবে।



সাতদিনের সেরা