kalerkantho

বুধবার । ১৬ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৬ সফর ১৪৪১       

বিশ্বের সবকটি মহাদেশ আমি ঘুরেছি, এমনকি অ্যান্টার্কটিকাও: দৃষ্টিহীন পর্যটক

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৮:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিশ্বের সবকটি মহাদেশ আমি ঘুরেছি, এমনকি অ্যান্টার্কটিকাও: দৃষ্টিহীন পর্যটক

যুক্তরাজ্যের বাসিন্দা অন্ধ ও বধির টনি জাইলসের নেশা সারাবিশ্ব ভ্রমণ করা। এরই মধ্যে তিনি একশ ৩০টির বেশি দেশ ঘুরে বেড়িয়েছেন। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা তার ভ্রমণে কোনো ধরনের বাধা তৈরি করতে পারেনি। তিনি বলেন, বিশ্বের সবকটি মহাদেশ আমি ঘুরেছি, এমনকি অ্যান্টার্কটিকাও। আমার লক্ষ্য হলো বিশ্বের সবকটা দেশ ভ্রমণ করা। 

টনি জাইলস বলেন, কেউ কেউ হয়তো বলবেন আমি ভ্রমণের চূড়ান্ত ধাপের উদাহরণ। তাদেরকে আমি দেখাতে চাই যে, আপনি বিকল্প পন্থায়ও বিশ্বকে দেখতে পারেন। ইথিওপিয়া সফরের সময় বিবিসি'র ট্র্যাভেল শো'কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন ৪১ বছর এই ইংলিশ ভ্রমণকারী।

জাইলস গত ২০ বছর ধরে নতুন নতুন জায়গা ঘুরে বেড়িয়েছেন। সেরকমই একটি সফরের সময় তিনি এক গ্রিক নারীর সঙ্গে পরিচিত হন। ওই নারীও অন্ধ। গত বছর ওই  বান্ধবীর সঙ্গে রাশিয়া গিয়েছিলেন তিনি। বিশ্বের বৃহত্তম দেশটির এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে ট্রেন দিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছেন তারা। তবে অধিকাংশ ভ্রমণে জাইলস একাই ঘুরে বেড়িয়েছেন। তিনি বলেন, আমি মানুষের কথা শুনি, পাহাড়ে উঠি, সবকিছু আমি আমার স্পর্শ এবং পায়ের মাধ্যমে অনুভব করি। ওভাবেই আমি একটি দেশ দেখি।

জাইলস খুবই কম খরচের মধ্যে ঘোরাঘুরি সারেন। যে কোনো জায়গায় তিনি গণপরিবহন ব্যবহার করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। থাকার ক্ষেত্রেও একদমই সাদামাটা আবাসস্থল পছন্দ করেন তিনি। জাইলস বলেন, একদম সাদামাটা পরিবেশে থাকতে পছন্দ করি আমি - এর ফলে আমার সব ইন্দ্রিয় জাগ্রত থাকে।

জাইলস অনেক দর্শনীয় জায়গায় গিয়েছেন এবং অনেক জায়গার ছবিও তুলেছেন। সেসব ছবি জাইলস নিজে হয়তো উপভোগ করতে পারেন না, তবে তার ওয়েবসাইটগুলোতে দর্শকরা সেসব ছবি দেখে বিশ্বের নানা জায়গা সম্পর্কে জানতে পারেন। অনেকসময় মানুষ তার ভ্রমণের নেশা দেখে হতবাক হয়ে যায়। তারা জিজ্ঞেস করেন, ‘একজন অন্ধ ব্যক্তি কেন পৃথিবী ঘুরে দেখতে চাইবে?’ এই প্রশ্নের উত্তরটা জাইলসের কাছে খুবই সহজ। তিনি বলেন, কেন নয়?

সূত্র: বিবিসি বাংলা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা