kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, চিপস, রুটি আর সস খেয়ে অন্ধ হয়ে গেছে কিশোর

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৯:২৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, চিপস, রুটি আর সস খেয়ে অন্ধ হয়ে গেছে কিশোর

চিপস, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, সাদা রুটি আর সস খেয়ে বছরের পর বছর কাটিয়ে দেওয়ার জেরে ভিটামিনের ঘাটতিতে ১৭ বছর বয়সে অন্ধ হয়ে গেছে এক কিশোর। বিস্টলের সেই কিশোরের বয়স এখন ১৯ বছর। জানা গেছে, ফল কিংবা শাক-সবজি কখনোই খায়নি সে।

জন্মের পর মায়ের বুকের দুধের পাশাপাশি সে খেতে শুরু করে সাদা রুটি, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, চিপস আর সস। এর বাইরে দীর্ঘ সময় পরপর কেবল স্যান্ডউইচ খেয়েছে হাতেগোনা কয়েকবার। অনেকবারই সে কারণে অসুস্থ্যও হয়ে পড়েছে সে। 

একপর্যায়ে কলেজে পড়া অবস্থায় অন্ধ হয়ে গেলে তার শিক্ষা জীবনের সমাপ্তি ঘটে। জানা গেছে, আগে থেকেই ভিটামিন বি১২, ভিটামিন ডি এবং শরীরে অন্যান্য উপাদানের ঘাটতিতে ভুগছিল ছেলেটি।

অবশ্য তিন বছর বয়স থেকেই সে রোগা হয়ে যেতে থাকে। ১৪ বছর বয়সে এসে তার পরিস্থিতি বেগতিক দেখে পুষ্টিবিদের স্মরণাপন্ন হয় তার মা-বাবা। যদিও তার উচ্চতা এবং স্বাস্থ্য মোটামুটি ভালো ছিল। তবে তার শরীরটা অনেক দুর্বল থাকে সবসময়। এমনকি দৃষ্টিশক্তি কমতে শুরু করে। দুই বছর আগে সে একেবারে অন্ধ হয়ে যায়।

ওই কিশোরের বক্তব্য, আমি একেবারে একা হয়ে পড়েছি। ছোটবেলায় বাড়ির বাইরে যেতাম এবং বন্ধুদের সঙ্গে ফুটবল খেলতাম। এখন আমি একটা লড়াই করছি। এখন আমি কাউকে কিছু বললে সবাই না শোনার ভান করে। অবশ্য একদিন আমি সেরে উঠবো।

এদিকে ছেলেকে দেখাশোনা করার জন্য চাকরি পর্যন্ত ছেড়ে দিয়েছে তার মা। তিনি জানান, ছেলের দৃষ্টিশক্তি খুব দ্রুত নষ্ট হয়ে গেছে। বর্তমানে সে অন্ধ হয়ে গেছে। ছেলেটা আমার একেবারে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। স্কুলের গণ্ডি পেরিয়ে আইটি বিষয়ে প্রশিক্ষণ নেওয়ার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু অন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে সেই পথ থমকে গেছে। এখন সে কানেও ভালোভাবে শুনতে পায় না। 

তিনি আরো বলেন, আমার ছেলেটা সবসময় স্বপ্ন দেখতো, একদিন সে চাকরি করবে। কিন্তু তার করার মতো কোনো কাজ তো দেখছি না। ওর জন্য আমিও নিজের চাকরি ছেড়ে দিলাম। এখন সারাক্ষণ ওর দেখাশোনা করতে হয়।

সূত্র : ডেইলি মেইল

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা