kalerkantho

মঙ্গলবার। ২০ আগস্ট ২০১৯। ৫ ভাদ্র ১৪২৬। ১৮ জিলহজ ১৪৪০

যথারীতি সিটি কর্পোরেশন তাকে সহযোগিতা করছে না

লার্ভা ধ্বংসের ওষুধের পর মশা তাড়ানোর স্প্রে তৈরি করলেন সেই ব্যক্তি!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ আগস্ট, ২০১৯ ১৭:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লার্ভা ধ্বংসের ওষুধের পর মশা তাড়ানোর স্প্রে তৈরি করলেন সেই ব্যক্তি!

বামে লার্ভা ধ্বংসের ওষুধ এবং ডানে নতুন তৈরি মশা তাড়ানোর স্প্রে। ছবি : মাহবুব মিলনের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্ট

সারাদেশে যখন ডেঙ্গু মহামারীর রূপ নিয়েছে, তখন নিজস্ব প্রযুক্তিতে লার্ভা ধ্বংসের ওষুধ তৈরি করেছিলেন। তারপর সেটা নিয়ে তিনি সিটি কর্পোরেশনে যান; কিন্তু বাংলাদেশের সিটি কর্পোরেশন বলেই হয়তো ভয়াবহ অবস্থার মাঝেও তাকে ফিরিয়ে দেয়। এবার সেই ব্যক্তি তৈরি করেছেন মশা তাড়ানোর রিপেলেন্ট। বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবীর মিলন সোশ্যাল সাইটে জানিয়েছেন এই তথ্য। এর আগে তিনিই লার্ভা ধ্বংসের ওষুধ তৈরির কথা সবাইকে জানিয়েছিলেন। 

আরও পড়ুন : লার্ভা ধ্বংসে শতভাগ কার্যকরী ওষুধ বানিয়ে দ্বারে দ্বারে ধর্ণা! (ভিডিওসহ)

মাহবুব মিলন লিখেছেন, 'যিনি মশার লার্ভা ধ্বংস করার ঔষধ বানিয়েছিলেন, তিনি মশা না কামড়াবার এয়ার ফ্রেশনার রিপেলেন্ট বানিয়েছেন। ক্ষতিমুক্ত হার্বাল নির্যাস দিয়ে। নিজে পরীক্ষা করলাম, অফিসের কয়েকজনকে দিয়েছি। কাপড়ে কিংবা হাতে পায়ে স্প্রে করলে ৫/৬ ঘন্টা মশা ধারে কাছে আসে না। ঘরের পর্দায় কিংবা ঘরে ৩/৪ বার স্প্রে করলে এরকম ৫/৬ ঘন্টা মশা থাকলেও কামড়াবে না। সেই ভদ্রলোক কয়েকশত ঘরে (বস্তিতে) বিলি করেছেন। একই রেজাল্ট, মশা কামড়ায় না।'

আরও পড়ুন : লার্ভা ধ্বংসে শতভাগ কার্যকরী ওষুধ বানিয়ে দ্বারে দ্বারে ধর্ণা! (ভিডিওসহ)

'আমার মনে হয় ডেংগু রোগী আক্রান্ত হাসপাতাল ক্লিনিকেও এটা ভালো কাজ দেবে। একটি টিভি চ্যানেলে তাকে নিয়ে প্রোগ্রাম ঠিক করে পরে আবার বাতিল করেছে। তার হাতে এখন মাত্র ৫০/৬০ টি স্প্রে বোতল মজুদ আছে। ঈদে সব বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কাঁচামালের অভাবে উৎপাদন বন্ধ আছে।  বুঝতে পারছি না প্রচার এবং পরীক্ষার জন্য এই ৫০ টি এয়ার ফ্রেশনার রেপিলেন্ট কাকে দেব। তিনি আমার পরামর্শের জন্য অপেক্ষা করছেন। এটা কার্যকর করা গেলে একটা বিপ্লব ঘটে যেত। কিন্তু কোথাও কেউ নেই এদেশে।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা