kalerkantho

মঙ্গলবার। ২০ আগস্ট ২০১৯। ৫ ভাদ্র ১৪২৬। ১৮ জিলহজ ১৪৪০

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ির সামনে অনশন; ২৪ ঘণ্টা পর ভালোবাসার জয়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ আগস্ট, ২০১৯ ১৫:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ির সামনে অনশন; ২৪ ঘণ্টা পর ভালোবাসার জয়

সাধারণত প্রেমের পরিণতি কিংবা স্বীকৃতি আসে বিয়েতে। তাই বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ির সামনে অনশনে বসেন এক তরুণী। টানা ২৪ ঘণ্টা দাঁড়িয়ে রইলেন ওই তরুণী। প্রেমিকার অনশনের জেরে শেষমেশ ‘না, না’ করতে করতেও বিয়েতে রাজি হলেন পাত্র। আর তারপরই স্থানীয়দের মধ্যস্থতায় স্থানীয় মন্দিরে মালাবদল করে বিয়ে হলো যুগলের। চার হাত এক হলো। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পূর্ব বর্ধমানের মেমারির পাল্লা রোডে।

দেশটির স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, পাত্রীর চুমকি মুদি। বাড়ি পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরে খোরদো পলাশিতে। পাল্লা রোডের মামুদপুরে আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসে আলাপ হয় এলাকার যুবক সুশান্ত দাসের সঙ্গে। আলাপ থেকে ধীরে ধীরে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। সাড়ে ৩ বছর সম্পর্কের পর প্রেমিক সুশান্তকে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন চুমকি। কিন্তু, বিয়েতে না করে বসেন প্রেমিক সুশান্ত। এরপরই প্রেমিক সুশান্তর বাড়ির দরজায় অনশনে বসেন চুমকি নামে ওই তরুনী। গোটা একদিন দাঁড়িয়ে থাকেন ওই যুবতী। এমনকি হাতের শিরা কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করে বলেও খবর পাওয়া যায়।

এই ঘটনা দেখার পর এগিয়ে আসেন স্থানীয় ক্লাবের সদস্যরা। দু’পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় বসেন। শেষে মেলে সমাধান সূত্র। বিয়েতে রাজি হয় পাত্র। 

এদিকে পাত্র সুশান্ত দাস জানান যে, তার বিয়ের ধুতি-পাঞ্জাবি কেনার সামর্থ নেই। একথা শুনে পাল্লা রোড পল্লীমঙ্গল সমিতির সদস্য ও এলাকার বাসিন্দারাই ধুতি-পাঞ্জাবি কিনে দেন। তাদের উপস্থিতিতেই বিয়ে করেন চুমকি ও সুশান্ত। স্থানীয় একটি মন্দিরে যুগলের বিয়ে দেওয়া হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা