kalerkantho

বুধবার । ২৪ জুলাই ২০১৯। ৯ শ্রাবণ ১৪২৬। ২০ জিলকদ ১৪৪০

১৪ বছর বয়স থেকেই যে মানুষটি দাদার আমলের পোশাক পরেন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৭ জুন, ২০১৯ ১৭:৫৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



১৪ বছর বয়স থেকেই যে মানুষটি দাদার আমলের পোশাক পরেন

আধুনিক যুগের তারুণরা সবাই বর্ণিল রঙে রাঙাতে চান নিজেকে। আর তাদের কথা মাথায় রেখেই ফ্যাশন ডিজাইনাররা নানা ধরনের পোশাকের ডিজাইন করে থাকেন। আর সবাই চান এই ধরনের আধুনিক পোশাক-আশাক পরতে। চান নিজেকে আধুনিক পোশাকে সাজিয়ে সবার সামনে তুলে ধরতে। কিন্তু জ্যাক পিনেস্ট নামক ২৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তি চান নিজেকে রাঙিয়ে তুলেতে সেই পুরনো বা ঐতিহাসিক সব পোশাক-আশাকে। তিনি চান ১৮০০ সালের শুরুতে বা তার আগে যে পোশাকগুলো চলছিল ফ্যাশন হিসেবে সেই সব পোশাকগুলো পরতে। 

যুক্তরাজ্যের ব্রাইটনের বাসিন্দা জ্যাক পুরনো দিনের পোশাক পরতে দুই জোড়া জিন্সের পোশাক পুড়িয়ে দিয়েছিলেন ১৪ বছর বয়সেই। পরে তিনি রিজেন্সি যুগের পোশাক পরেছিলেন। বর্তমানে তাকে প্রায়ই দেখা যায়, পুরনো আমলের মাথায় পরার টুপি কিনতে। সেই সঙ্গে তিনি প্রায়ই পুরনো আমলের সব পোশাক-আশাক কিনেন।

এই বিষয়ে জ্যাক জানান, একুশ শতকে আরামদায়ক জীবন-যাপন করার একমাত্র উপায় হল এটি। মানুষের জন্য এই কাজটি করা অনেক কঠিন কাজ। আমরা উজ্জ্বলতা প্রদর্শন করতে পারি না। আমি যা করি তাই করতে ভালোবাসি। এই কাজটি আমি করি কেবলই নিজেকে উপভোগ করতে। 

জ্যাক পিনেস্ট আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে জানান, আমি ১৪ বছর বয়সেই এই ধরনের সিদ্ধান্ত নেই। আমার জিন্সগুলো পুড়িয়ে দেই। আর ওইটাই ছিল আমার টার্নিং পয়েন্ট। নন-স্কুল ড্রেসের যুগে আমি তিনটি পোশাক পরিধান করতাম। কিন্তু সিক্সে ওঠার পর থেকেই ঐতিহাসিক পোশাক পরিধান করতে শুরু করি।

জ্যাক জানান, ঐতিহাসিক পোশাকের প্রতি ভালোবাস শুরু হয় যখন তার বাবা-মা তাকে একা বাসায় রেখে চলে যান এবং ফিরে আসেন জ্যাকের দাদার সব পুরনো পোশাক-আশাক নিয়ে। পরে তিনি এই পোশাক-আশাক পরে দেখেন তাকে বেশ ভালোই মানিয়েছে। এরপর থেকে তিনি ওই পোশাক পরিধান করা শুরু করেন।

পোশাক পরিধানে মানুষের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে তিনি জানান, এই ধরনের পোশাক পরিধানের পর থেকেই সাধারণ মানুষের প্রতিক্রিয়া ছিল সম্পূর্ণ পজেটিভ ও ভালোবাসা পূর্ণ।

সূত্র: মেট্রো

মন্তব্য