kalerkantho

বুধবার । ১৭ জুলাই ২০১৯। ২ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৩ জিলকদ ১৪৪০

পুরি বেচে কোটিপতি, বছরে আয় ৬০ লাখ টাকা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ জুন, ২০১৯ ২১:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পুরি বেচে কোটিপতি, বছরে আয় ৬০ লাখ টাকা

পুরি বিক্রি করে বছরে ৬০ থেকে ৭০ লাখ টাকা আয়। সম্প্রতি পুরি বিক্রির একটি দোকান ভারতের বাণিজ্যিক আয়কর দপ্তরের নজরে পড়ে। এই গরম গরম সুস্বাদু পুরির সুখ্যাতি রয়েছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ে। দিনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত উপচে পড়া ক্রেতাদের ভিড়েই চেনা যায় এই দোকান।

কিন্তু এখন ছোট্ট একটা প্রশ্ন, পুরি বিক্রির দোকানের দিকে কেন নজর গেল আয়কর দপ্তরের? জানা গেছে, লাখ লাখ টাকা আয় করা সত্ত্বেও দোকানের মালিক মুকেশ কুমার কোনো কর জমা দেন না।

সম্প্রতি তল্লাশি অভিযান চলে ওই দোকানে। অভিযান চালায় আলিগড়ের বাণিজ্যিক আয়কর দপ্তরের স্পেশাল ইনভেস্টিগেটিং ব্রাঞ্চ। তখনই প্রকাশ্যে আসে যে ঘিঞ্জি গলিতে ছোট্ট ওই কচুরির দোকানের মালিক আসলে কোটিপতি। অভিযোগ উঠেছে, তার কোনো জিএসটি রেজিস্ট্রেশন পর্যন্ত নেই।

দোকানের নাম ‘মুকেশ কচুরি’। আলিগড়ের সীমা সিনেমাহলের কাছে বিখ্যাত ওই দোকান। স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে তার পুরির জনপ্রিয়তা তুঙ্গে। সকাল থেকে দোকানে গরম গরম পুরি আর সিঙাড়া বিক্রি শুরু হয়। স্থানীয় কিছু দোকানদারের মতে, রাত হয়ে গেলেও ক্রেতাদের লাইন শেষ হয় না।

মুকেশ বলেন, আমার দোকানের বয়স ১২ বছর। কেউ আমাকে কোনোদিন বলেননি এইরকম কোনো আইন আছে। আমরা সাধারণ মানুষ, পুরি আর সিঙাড়া বিক্রি করে সংসার চালাই।

কমার্শিয়াল ট্যাক্স বিভাগের ডেপুটি কমিশনার রবীন্দ্র পাল জানিয়েছেন, বেশ কিছুদিন ধরে দোকানটির ওপর নজর রাখা হয়েছিল। তারপর ২১ জুন সার্চ ওয়ারেন্ট বের করে তল্লাশি অভিযান চালানো হয়। সে সময়ই তার আয়ের কথা জানান মুকেশ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা