kalerkantho

রবিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০২০। ৫ মাঘ ১৪২৬। ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

পুলিশ যেভাবে সৎ পরামর্শক হিসেবে আসলেন ডাকাতের জীবনে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ জুন, ২০১৯ ১৩:১৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পুলিশ যেভাবে সৎ পরামর্শক হিসেবে আসলেন ডাকাতের জীবনে

ডাকাতির দায়ে কারাগারে বন্দি জীবন কাটিয়েছেন   রামিল পিতাম্বর। এর আগে অস্ত্র হাতে ধরা পড়েন তিনি। অবাক ব্যাপার হলো, যে পুলিশ কর্মকর্তা  তাকে গ্রেপ্তার করেন, তিনিই এখন পিতাম্বরের পথপ্রদর্শক।

বাবা মারা যান ২০১৩ সালে। পিতাম্বরের বয়স তখন ১৭ বছর। তীব্র শোকে কাতর হয়ে পড়েন। সেই শোক আর কাটে না। একসময় হাতে তুলে নেন অস্ত্র। চেষ্টা চালান একটি রেস্টুরেন্টে ডাকাতির। সেখানে ধরা পড়েন পুলিশের হাতে। ডাকাতির দায়ে দোষী সাব্যস্ত হন। জেল হয় ১১ বছরের।

পিতাম্বরকে গ্রেপ্তার করেন ডেপুটি পুলিশ চিফ ব্রায়ান নাগেন্ট। অল্প বয়সী ছেলেটিকে ধরার পরও পিতাম্বরের মা ওই পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে  যোগাযোগ রেখেছিলেন। পুলিশকে তিনি বিশ্বাস করাতে চেয়েছিলেন তাঁর ছেলে অন্য অপরাধীদের মতো নয়।

কারাগারে সন্তোষজনক আচরণের কারণে আগেই  কারাগার থেকে ছাড়া পান পিতাম্বর। তিনি জানতেন, আগের ভুল আর করবেন না। কিন্তু এটিও জানতেন, সফল হতে গেলে একজন সৎ পরামর্শদাতা দরকার তাঁর জীবনে। পুলিশ কর্মকর্তা নাগেন্টই সেই পরামর্শদাতা হিসেবে আবির্ভূত হন।

জেল থেকে ছাড়া পেয়ে পিতাম্বর একটি গুডউইল শপে কাজ শুরু করেন। পুলিশ কর্মকর্তা নাগেন্ট সেখানে পণ্যও কিনে দিলেন। কিন্তু পিতাম্বর পরামর্শক হিসেবে তাঁকে প্রত্যাশা করছিলেন। যদিও তার আগে থেকেই নাগেন্ট পরামর্শক তাঁর। 

নাগেন্ট বলেন, 'তিনি (নাগেন্ট) আমাকে সঠিক পথ দেখিয়েছেন। তাঁকে কোনো পরামর্শ দ্বিতীয়বার দিতে হয়নি। তাঁর সৎ উপদেশ অনুযায়ী আমি এখন  সবকিছু করতে পারি।'

সূত্র : গুড নিউজ নেটওয়ার্ক 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা