kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

বাসায় ডেকে গোপনে বন্ধুদের যৌনমিলনের ভিডিও ধারণ, লাইসেন্স খোয়ালেন ডাক্তার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ জুন, ২০১৯ ১৭:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাসায় ডেকে গোপনে বন্ধুদের যৌনমিলনের ভিডিও ধারণ, লাইসেন্স খোয়ালেন ডাক্তার

লন্ডনের একজন চিকিৎসক তার বন্ধুর নগ্ন অবস্থায় গোসল, এক নারীর যৌন মিলন এবং নিজের তত্ত্বাবধানে থাকা রোগীর আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করেছেন। সে কারণে ওই চিকিৎসকের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে।

সোমবার লন্ডনের একটি আদালতে শুনানির সময় ওই চিকিৎসক উপস্থিত ছিলেন না। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ক্যারোলিন সিলভার বলেন, নিজের বিকৃত যৌন চাহিদা মেটানোর জন্য আপত্তিকর ওই ভিডিওগুলো ধারণ করেছেন ওই চিকিৎসক।

শুনানির সময় বিচারক নির্দেশ দেন, তাৎক্ষণিকভাবে যেন ওই চিকিৎসকের লাইসেন্স বাতিল করা হয়। এছাড়া ছয় হাজার ডলার ভুক্তভোগীদের দেয়ার নির্দেশও দেন তিনি। পরবর্তী শুনানিতে অভিযুক্ত চিকিৎসককে উপস্থিত থাকারও নির্দেশ দেন তিনি।

ক্যারোলিন সিলভার বলেন, এসব ব্যক্তিদের নিজস্ব গোপনীয়তা লঙ্ঘন করেছেন অভিযুক্ত। কারণ, ভুক্তভোগীদের কেউই ভিডিওগুলো ধারণের ব্যাপারে জানতেন না এবং তাকে ভিডিও ধারণের অনুমতিও দেননি।

তবে ভুক্তভোগীদের পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে। আইনজীবী ক্যারোলিন সিলভার আরো বলেন, ওই চিকিৎসকের জঘন্য আচরণের কারণে চিকিৎসা পেশার সঙ্গে সম্পৃক্ত সবার মান ক্ষুণ্ন হয়েছে।

জানা গেছে লন্ডনের একটি মেডিকেল স্কুল থেকে পড়াশোনা শেষে ২০১৬ সালে লন্ডনের ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি হসপিটালে ২০১৬ সালের অক্টোবরে চিকিৎসক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন তিনি।

অভিযোগে বলা হয়েছে, হাং নামের ওই চিকিৎসক তার কয়েকজন বন্ধুকে বাসায় দাওয়াত দেন। তাদেরকে যে বাথরুম ব্যবহার করতে দিয়েছিলেন, সেখানে ভিডিও ডিভাইস লাগিয়ে রেখেছিলেন তিনি। ওই বাথরুমেই একজন নগ্ন হয়ে গোসল করেন। আরেকজন সেখানেই তার সঙ্গীর সঙ্গে মিলিত হন। সেই ঘটনার ভিডিও অডিওসহ ধারণ করেন হাং।

তবে বিষয়টি নজরে আসে হাংয়ের স্ত্রীর। তিনি হাংকে জিজ্ঞেস করেন, কেন টয়লেটে মোবাইল রেখেছেন তিনি? কিন্তু হাং দাবি করেন, কেবল চার্জ করার জন্য সেখানে মোবাইল রেখেছেন।

এমনকি নিজেদের বাসায় দুই নারীর পোশাক পরিবর্তন এবং একজন সেই ঘরে তার সঙ্গীর সঙ্গে মিলিত হওয়ার দৃশ্য ধারণ করেন হাং। ২০১৮ সালেই একটি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হন হাং। তার পর উচ্চ আদালতে বিচার চলছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা