kalerkantho

রবিবার । ২১ জুলাই ২০১৯। ৬ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৭ জিলকদ ১৪৪০

১০ খাবারে রাতে ঘুম আসবে অনায়াসে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ জুন, ২০১৯ ২২:৩১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



১০ খাবারে রাতে ঘুম আসবে অনায়াসে

দিন দিন মানুষের কর্মব্যস্ততা বাড়ছে। একইসঙ্গে বাড়ছে ঘুমের বিভ্রাট। অনেকে ঘুমের ওষুধ খেয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু এতে হিতে বিপরীত হয়। ওষুধ নির্ভর হয়ে পড়ে ঘুম। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে নানা শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়।

এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হয় প্রাকৃতিক পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারলে। প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে প্রথমেই আসে খাবারের প্রসঙ্গ। নিচে কয়েকটি খাবারের নাম দেওয়া হলো যা খেলে দ্রুত ঘুম চলে আসবে রাতে।

১। মিষ্টি আলু
মিষ্টি আলুতে বেশি মাত্রায় পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম আর ক্যালসিয়াম থাকে। এই তিন উপাদানই শরীরকে আরাম করতে সাহায্য করে। তাই রাতে যাদের সহজে ঘুম আসে না তারা মিষ্টি আলু সিদ্ধ করে লবণ দিয়ে খেতে পারেন। দেখবেন  তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়ছেন।

২। পেস্তা বাদাম 
পেস্তা বাদামে প্রোটিন থাকে। এ ছাড়া এতে ভিটামিন বি৬ এবং ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে যা ঘুমিয়ে পড়তে সাহায্য করে। তবে মনে রাখতে হবে এতে প্রচুর ক্যালোরি রয়েছে, তাই অতিরিক্ত পেস্তা বাদাম না খাওয়াই ভালো। 

৩। ফুটি বা খরমুজ 
অনেক সময় শরীরে পানির ঘাটতি হলে ঘুমাতে অসুবিধা হয়। কিন্তু ফুটি বা এই জাতীয় ফলের মধ্যে পানির পরিমাণ বেশি থাকে। তাই শরীরে পানির ঘাটতি পূরণ করে। কেবল ফুটি নয়, আপেল, নাশপাতি, কমলা- যে কোনও একটি খেতে পারেন।

৪। পিনাট বাটার 
পিনাট বাটার বা আমন্ড বাটার দুটোই খুব ভালো ঘুম পাড়ানোর জন্য। তবে ছোট এক চামচের বেশি খাবেন না।

৫। ক্যামোমাইল টি 
এই হার্বাল চা নার্ভ শান্ত করে। একই সঙ্গে শরীরকে হাইড্রেট করে পেটও ঠিক রাখে। যাদের ঘুম আসে না তারা শোবার আগে এক কাপ ক্যামোমাইল টি খেয়ে শুতে যান।

৬। ওটমিল 
ওটস সকালের নাস্তার জন্য আদর্শ হলেও এটি খাওয়ার পর ঘুম আসে। ওটস খাওয়ার পর রক্তে চিনির মাত্রা বেড়ে যায় এবং ঘুম পায়। এ ছাড়া ওটসের মধ্যে মেলাটোনিন থাকে যা শরীরকে আরাম দেয়।

৭। আমন্ড 
ঘুমের জন্য এক মুঠো আমন্ড বাদাম যথেষ্ট। এতে ট্রিপটোফান এবং ম্যাগনেসিয়াম থাকে যা নার্ভ শান্ত করে। একই সঙ্গে হার্টবিটও স্থিতিশীল রাখে।

৮। চেরি 
ভালো ঘুমোতে চাইলে মেলাটোনিনের মাত্রা বাড়াতে হবে। আর চেরি ফলে পাওয়া যাবে প্রাকৃতিক মেলাটোনিন। রাতে শোবার আগে নিয়মিত চেরি ফল খেলে ভালো ঘুম তো হবেই, একইসঙ্গে যাদের শরীরে উচ্চ পরিমাণ ইউরিক অ্যাসিড আছে তাও নিয়ন্ত্রণে আসবে।

৯। ডার্ক চকোলেট 
ডার্ক চকোলেট সেরোটিনিন থাকে যা শরীর ও মন শান্ত করে। এ ছাড়া ডার্ক চকোলেটের একাধিক উপকারিতা আছে।

১০। কলা 
কলায় রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম এবং পটাসিয়াম যা পেশি ও নার্ভকে শান্ত করে। এ ছাড়া এতে রয়েছে ভিটামিন বি৬। একই সঙ্গে এই ফল ট্রিপটোফানকে সেরোটোনিনে রূপান্তরিত করে। যা শরীরকে আরও শান্ত করে। 

সূত্র : বাংলা লাইভ 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা