kalerkantho

শুক্রবার । ২১ জুন ২০১৯। ৭ আষাঢ় ১৪২৬। ১৭ শাওয়াল ১৪৪০

টয়লেটে প্রসব, নিজে নাড়ি কেটে ছেলেকে ডাস্টবিনে ফেলে গেল মা!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ জুন, ২০১৯ ১৬:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টয়লেটে প্রসব, নিজে নাড়ি কেটে ছেলেকে ডাস্টবিনে ফেলে গেল মা!

সন্তান জন্মের পরদিনই তাকে ডাস্টবিনে ফেলে গেছেন এক মা। মোটরসাইকেল চালিয়ে এসে ডাস্টবিনে নবজাতককে ফেলে যাওয়ার সময় ওই নারীর ছয় বছরের আরেক সন্তান সঙ্গে ছিল। 

জানা গেছে, ২৯ বছর বয়সী ওই নারীর নাম ওয়ারাপর্ন। গত বুধবার থাইল্যান্ডের সামুট প্রাকান এলাকায় সন্তান জন্ম দেওয়ার পরদিনই তাকে ফেলে দেওয়ার জন্য মোটরসাইকেল নিয়ে বেরিয়ে পড়েন ওয়ারাপর্ন। ডাস্টবিনের পাশের ভবনের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে সেই দৃশ্য ধরা পড়েছে।

সন্তানকে ফেলে যাওয়ার সময় তাকে কেউ দেখে নিল কিনা সেটাও যাচাই করে নেন ওয়ারাপর্ন। ওই সময় স্থানীয় একজনকে ডাস্টবিনের পাশে দেখা যায়। তবে তিনি ধারণা করতেই পারেননি যে, ওই নারী তার সন্তানকে কালো ব্যাগে করে ফেলে যাচ্ছেন।

চার ঘণ্টা পর ময়লা নেওয়ার লোক সেখানে হাজির হলে বিষয়টি জানতে পারেন। সঙ্গে সঙ্গে তিনি পুলিশে খবর দেন। পুলিশ এসে ওই নবজাতককে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

পুলিশ বলছে, নবজাতককে একটি তোয়ালে দিয়ে জড়ানো ছিল। তাকে উদ্ধার করার সময় নাভির সঙ্গে নাড়ি লেগেই ছিল। অনেক রক্তক্ষরণ হয়েছে। কিছুটা অসুস্থ রয়েছে বাচ্চাটি।

পরে পুলিশ জানতে পারে, ওই নারীর আরো চারজন সন্তান রয়েছে। মূলত অভাবের কারণেই নবজাতককে ফেলে দিয়ে গেছেন তার মা।

ওয়ারাপর্ন জানিয়েছেন, আমার স্বামী ট্যাক্সি চালায়। সেও অনেক দূরে থেকে সামান্য টাকা আমাদের জন্য পাঠায়। সেটা আমাদের মতো বড় পরিবারের জন্য যথেষ্ট নয়।

তিনি আরো বলেন, আমি টয়লেটে সন্তানের জন্ম দিয়েছি। তারপর নিজেই নাড়ি কেটেছি। তারপর অভাবের কথা বিবেচনা করে ওকে ওইখানে রেখে গেছি।আমি তাকে মেরে ফেলতে চাইনি। ওখানে রেখে গেছি এ কারণে যে, অন্য কেউ যেন তাকে নিয়ে যায়।

মন্তব্য