kalerkantho

রবিবার। ১৬ জুন ২০১৯। ২ আষাঢ় ১৪২৬। ১২ শাওয়াল ১৪৪০

উদ্ভিদ না থাকলে মানুষও হারিয়ে যাবে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ জুন, ২০১৯ ১৭:৩৪ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



উদ্ভিদ না থাকলে মানুষও হারিয়ে যাবে

বিভিন্ন গবেষণা প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত আড়াই শ  বছরে পৃথিবী থেকে হারিয়ে গেছে প্রায় ছয় শ প্রজাতির উদ্ভিদ। কেবল উদ্ভিদ নয়, এর সঙ্গে হারিয়ে গেছে অনেক পাখি, স্তন্যপায়ী এবং উভচর প্রাণীও।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, স্বাভাবিক প্রত্যাশার চেয়ে ৫০০  গুণ দ্রুত ঘটেছে এসব উদ্ভিদের বিলুপ্তি।

গত মাসে, জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এক মিলিয়ন প্রজাতির প্রাণী ও উদ্ভিদ বর্তমানে  হুমকির সম্মুখীন। গবেষকরা বলেন, বিশ্বে উদ্ভিদ বিলুপ্ত হওয়ার ঘটনা আমাদের এই শিক্ষা দিয়েছে যে আমাদের জীবনে উদ্ভিদের গুরুত্ব কতটুকু। 

স্টকহোম ইউনিভার্সিটির গবেষক ড. আলিস হ্যামফ্রেস বলেন, চোখের সামনেই সম্প্রতি বিলুপ্ত হয়েছে এমন প্রাণী বা পাখির নাম দিতে পারবে যে কেউ। কিন্তু সম্প্রতি বিলুপ্ত হয়েছে এমন উদ্ভিদের নাম বলতে পারা খুব কঠিন। 

তিনি বলেন, প্রথমবারের মতো এ ধরনের গবেষণা পরিচালনা করে আমরা দেখেছি কোন কোন উদ্ভিদ ইতিমধ্যে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। এ ছাড়া কোন কোন জায়গা থেকে কোন কোন উদ্ভিদ বিলুপ্ত হয়েছে এবং কত সময়ের ভেতর তা সম্পন্ন হয়েছে বা হচ্ছে- গবেষণায় তার একটি সমীক্ষা রয়েছে। 

সিলি স্যান্ডালউড হারিয়ে উদ্ভিদগুলোর মধ্যে একটি। এই গাছটি বিলুপ্ত হয়েছে এর থেকে পাওয়া এসেনশিয়াল তেলের জন্য। একইভাবে হারিয়ে গেছে গোলাপি ফুল দেওয়া সেন্ট হেলেনা অলিভ ট্রি। 
সবচেয়ে বড় ক্ষতি হয়েছে দ্বীপপুঞ্জ এবং ক্রান্তীয় অঞ্চলে। অথচ অত্যন্ত মূল্যবান কাঠের গাছ এবং উদ্ভিদ ও জীব বৈচিত্র্যের দিক দিয়ে জায়গা দুটি সমৃদ্ধ ছিল।

রয়্যাল বোটানিক গার্ডেন কিউ এবং স্টকহোম ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, গত আড়াই শ  বছরে ৫৭১ প্রজাতির উদ্ভিদ হারিয়ে গেছে। এর সঙ্গে বিলুপ্ত হয়েছে প্রায় ২১৭ প্রজাতির পাখি, স্তন্যপায়ী  এবং উভচর প্রাণী। 

তবে, ইতিবাচক হলো কিছু উদ্ভিদ বিলুপ্ত বলে ধারণা করা হলেও তা পুনরায় খুঁজে পাওয়া যায়, যেমন চিলিয়ান ক্রোকাস। 

কেন উদ্ভিদ বিলুপ্ত হয়?
পৃথিবীর সমস্ত প্রাণীই উদ্ভিদের ওপর নির্ভরশীল। কেননা, প্রাণীর বেঁচে থাকার দুই প্রধান উপাদান অক্সিজেন পাওয়া যায় উদ্ভিদ থেকে। 

ফলে উদ্ভিদ বিলুপ্ত হলে এর ওপর নির্ভরশীল প্রাণী বা জীবও বিলুপ্তির মুখে পড়ে। যেমন যেসব পোকামাকড় নির্দিষ্ট গাছ থেকে খাবার পায় এবং নির্দিষ্ট গাছে ডিম পাড়ে, ওই গাছ বিলুপ্ত হলে এর ওপর নির্ভরশীল পোকামাকড়ও হারিয়ে যায়। ফলে উদ্ভিদ বিলুপ্ত হলে এর ওপর নির্ভরশীল প্রাণী বা জীবেরও বিলুপ্তি ঘটে। 

রয়েল বোটানিক গার্ডেন, কিউ'এর সহ-গবেষক ও বিজ্ঞানী ড. ইমিয়ার নিক লুঘধা বলেন, 'পৃথিবীর লক্ষ লক্ষ প্রজাতির জীব উদ্ভিদের ওপর নির্ভর করে। এর মধ্যে রয়েছে মানুষও। সুতরাং, আমাদের জানতে হবে কোন কোন উদ্ভিদ আমরা হারাচ্ছি, কোথা থেকে হারাচ্ছি এবং কীভাবে আমরা তা ফিরিয়ে আনতে পারি। 

উদ্ভিদ বিলুপ্তি রোধে আমাদের করণীয় : 
সারা বিশ্বে আপনার চারপাশে থাকা সব উদ্ভিদের একটি তালিকা তৈরি। 
এসব প্রজাতির বংশ রক্ষার জন্য নমুনা সংরক্ষণ। 
উদ্ভিদ গবেষকদের সহযোগিতা। 
শিশুদের চারপাশের উদ্ভিদ দেখানো এবং তাদেরকে  উদ্ভিদ চিনতে সহযোগিতা।

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির গবেষক ড. রব সালগেরো গোমেজ বলেন, কোথায়, কেন এবং কীভাবে কোনও  উদ্ভিদ প্রজাতি ক্ষতির মুখোমুখি হচ্ছে- তা জানা যে কোনও মানুষের দায়িত্বের ভেতর পড়ে। এটি কেবল পরিবেশবিদদের বিষয় নয়। কেননা, গোটা মানবজাতির বেঁচে থাকাই উদ্ভিদের ওপর নির্ভরশীল।

ড. রব সালগেরো বলেন, 'খাবার, আশ্রয়, নির্মাণ সামগ্রী-এর সবই আমরা পাই উদ্ভিদের কাছ থেকে। ‌এ ছাড়া পরোক্ষভাবে পরিবেশগত ভারসাম্য রক্ষা,  কার্বন নিরূপণ, অক্সিজেন সৃষ্টি এমনকি মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্যও নির্ভর করতে হয় উদ্ভিদের ওপর। তাই, উদ্ভিদের প্রতি দায় আমাদের সবার। 

সূত্র : বিবিসি  

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা