kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

সকল প্রাণীদের জন্যে অশনিসংকেত...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ জুন, ২০১৯ ১৩:০২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সকল প্রাণীদের জন্যে অশনিসংকেত...

বন উজাড় হচ্ছে সুমাত্রায়

বিশদভাবে পরিচালিত নতুন এক গবেষণায় বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, গত ২৫০ বছরের মধ্যে প্রকৃতি থেকে ৬০০ প্রজাতির উদ্ভিদ পুরোপুরি হারিয়ে গেছে। বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া এসব উদ্ভিদের সংখ্যা ধারণাপ্রসূত নয়, বরং গুনে গুনে বের করা হয়েছে। আর এ সংখ্যা হারিয়ে যাওয়ার পাখি, স্তন্যপায়ী এবং উভচর প্রাণীদের সংখ্যার দ্বিগুন। বিজ্ঞানীদের মতে, প্রাকৃতিকভাবে কোনো উদ্ভিদের প্রজাতি হারিয়ে যাওয়ার হার স্বাভাবিকের চেয়ে ৫০০ গুন বেশি। 

গত মে মাসে জাতিসংঘের এক সমীক্ষায় বলা হয়, দশ লাখ প্রাণী এবং উদ্ভিদ প্রজাতি বিলুপ্তির ঝুঁকিতে রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, বিলুপ্ত হয়েছে এমন নথিপত্রভুক্ত উদ্ভিদের বিষয়ে তাদের বিশ্লেষণ হলো- ভবিষ্যতে গাছ বা প্রাণী হারিয়ে যাওয়ার প্রতিরোধ করা সম্ভব হতে পারে। 

সুইডেনের স্টকহম ইউনিভার্সিটির বিশেষজ্ঞ ড. এইলিস হাম্পরেইস বলেন, অনেক মানুষই সম্প্রতি হারিয়ে যাওয়া কোনো প্রাণী বা উদ্ভিদের নাম হয়তো বলতে পারেন। কিন্তু যেগুলো অনেক আগে বিলুপ্ত হয়েছে সেগুলোর নাম সবার জানা হয়ে ওঠে না। যে উদ্ভিদগুলো ইতোমধ্যে হারিয়ে গেছে সেগুলোকে নিয়ে প্রথমবারের মতো এই গবেষণা চালানো হয়েছে। 

এসব হারিয়ে যাওয়া উদ্ভিদের মধ্যে রয়েছে চিলি স্যান্ডালউড। এর থেকে এসেনশিয়াল ওয়েল বের করা হতো। এই উদ্ভিদ কিছুটা সময় মাটির নিচেও কাটিয়েছে। আরো আছে গোলাপী ফুলের সেন্ট হেলেনা ওলিভ গাছ। 

গবেষণায় যা মিলেছে 
লন্ডনের কিউয়ের রয়াল বোটানিক গার্ডেন্স এবং স্টকহম বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় দেখা গেছে, গত ২৫০ বছরের মধ্যে ৫৭১ প্রজাতির উদ্ভিদের অস্তিত্ব হারিয়ে গেছে। এ সংখ্যা পাখি, স্তন্যপায়ী এবং উভচর প্রাণীদের সম্মিলিত সংখ্যার দ্বিগুন। গাছদের চলমার বিলুপ্তির একটা চিত্র এই গবেষণায় মিলেছে। এর মধ্যে ইতিবাচক দিকও রয়েছে। এমন গুটিকয়েক উদ্ভিদ রয়েছে যেগুলো হারিয়ে যাওয়ার পরও আবারো ফিরে এসেছে। 

উদ্ভিদের বিলুপ্তি কেন চিন্তার বিষয়? 
এই গ্রহের সকল প্রাণই উদ্ভিদের ওপর নির্ভরশীল। এই নিশ্চল প্রাণ সব প্রাণীকে অক্সিজেন দেয়। আরো দেয় খাবার। কাজেই এদের বিলুপ্তির অর্থ অন্য প্রাণীদের বিলুপ্তির সম্ভাবনা দেখা দেয়া। এমনকি কীটপতঙ্গের ডিম পাড়ার জন্যেও উদ্ভিদ দরকার।  

একই কথা বলছেন রয়াল বোটানিকের সহকারী গবেষক এবং কনজারভেশন বিজ্ঞানী ড. ইমিয়ার নিক লোঘাধা। তিনি জানান, বিভিন্ন প্রজাতির লাখ লাখ প্রাণ টিকে রয়েছে উদ্ভিদের ওপর নির্ভর করে। এর মধ্যে অবশ্যই মানুষও আছে। কাজেই কোন গাছটি হারাতে বসেছে এবং কোনটিকে আবারো ফিরিয়ে আনা সম্ভব ইত্যাদি নিয়ে কাজ করা দরকার। 

কী শিক্ষা পেতে পারি 
উদ্ভিদের বিলুপ্তি ঠেকাতে বেশ কিছু পরামর্শ দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। যেমন- 

১. গোটা বিশ্বের সব প্রজাতির উদ্ভিদের তালিকা করা। 
২. তৃণভোজী প্রাণীদের সংরক্ষণ করা। কারণ এরা উদ্ভিদকে টিকিয়ে রাখতে ক্রিয়াশীল থাকে। 
৩. গুরুত্বপূর্ণ গবেষণার জন্যে বিজ্ঞানীদের উৎসাহ দেয়া। 
৪. আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মকে স্থানীয় উদ্ভিদ চেনানো। 

সূত্র: বিবিসি 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা