kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

তীরে এফোঁড়-ওফোঁড় বিড়ালের পা, চিকিৎসার অর্থ জোগাড়ে অনলাইন তহবিল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ মে, ২০১৯ ১৭:৪৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তীরে এফোঁড়-ওফোঁড় বিড়ালের পা, চিকিৎসার অর্থ জোগাড়ে  অনলাইন তহবিল

প্রতিবেশীর ছোড়া তীর এফোঁড়-ওফোঁড় করে দিয়েছে বিড়ালটির একটি পা। প্রিয় প্রাণি বুড্ডিকে সারিয়ে তুলতে প্রয়োজন ছয় হাজার ডলার। সেই সামর্থ্য পরিবারটির নেই। শেষ পর্যন্ত তহবিল গঠন করে সুস্থ করে তোলা হচ্ছে বুড্ডিকে।

ঘটনাটি ঘটেছে অস্ট্রেলিয়ার পার্থ সিটিতে। পরিবারটির স্কুলপড়ুয়া ছেলে দিনরাত পরিশ্রম করছে তহবিল গঠনে।

বিড়ালটির পালক পরিবারের গৃহকর্ত্রী রেনি ফোলার আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম ডেইলি মেইলকে বলেন, রবিবার বাড়িতে পৌঁছালে তাঁর মেয়ে জেইসি আহত অবস্থায় প্রথম দেখতে পায় তাঁদের প্রিয় বিড়াল বুড্ডিকে।

ফোলার বলেন, 'বুড্ডির তীরবেঁধা পা দেখে আমার মেয়ে জেইসি চিৎকার শুরু করে। এ সময় অজ্ঞান হয়ে যায় সে। রাত সাড়ে ৯টার দিকে সিনেমা দেখে বাড়ি ফেরে আমার ছেলে। তারও একই অবস্থা হয়। আমি তাদেরকে এই বলে সান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করি, বুড্ডি ভালো হয়ে যাবে।'  

ফোলার আরও বলেন, বুড্ডি প্রতিদিন বাড়ির বাইরে যায়। ফিরে আসে সন্ধ্যায়। কিন্তু রবিবার সন্ধ্যায় এক মর্মান্তিক দৃশ্যের অবতারণা হয়। একটি তীর বুড্ডির পা এফোঁড়-ওফোঁড় করে দেয়। এই মারাত্মক অবস্থা সত্ত্বেও প্রাণিটি কোনওমতে দরজার সামনে আসে। আমরা তাকে উদ্ধার করে পশু হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে সফলভাবে তীরটি বের করতে সক্ষম হন চিকিৎসকরা।

গৃহকর্ত্রী বলেন, 'বুড্ডির চিকিৎসা খরচ ছয় হাজার ডলার ছাড়িয়ে যাবে। এই খরচ মেটানোর সামর্থ্য নেই পরিবারটির। তাই রেনি ফোলারের ছেলে অ্যালেক্স ফোলার অনলাইনে ফান্ড খুলেছে। সে খুব সাহসী। ফান্ডের জন্য দিনরাত পরিশ্রম করছে সে। আশা করা হচ্ছে, এই ফান্ডে অন্যরা সহযোগিতা করবেন। এখন পর্যন্ত ফান্ডে ৯৪৫ ডলার জমা হয়েছে। লক্ষ্য পাঁচ হাজার ডলার।'  

বিড়ালটির আক্রমণকারীকে 'নিষ্ঠুর' বলে উল্লেখ করেছেন রেনি ফোলার। তিনি বলেন, 'বুড্ডির পায়ে তীর ছুড়েছে আমাদেরই এক প্রতিবেশী।'

এ ঘটনায় ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার পুলিশের একজন মুখপাত্র বলেন, 'ঘটনার তদন্ত চলছে।'

২০০২ সালের ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ান অ্যানিম্যাল  ওয়েলফেয়ার অ্যাক্ট অনুযায়ী, পশুকে আক্রমণে কেউ দোষী সাব্যস্ত হলে তার সাড়ে পাঁচ হাজার ডলার থেকে সাড়ে ২৭ হাজার ডলার জরিমানা হতে পারে। সাথে ছয় মাসের জেল।

সূত্র : ডেইলি মেইল 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা