kalerkantho

রবিবার । ২৬ মে ২০১৯। ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২০ রমজান ১৪৪০

'ভাইয়া পানি দেন আমার শরীরে পানি দেন'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ এপ্রিল, ২০১৯ ১৩:৫৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'ভাইয়া পানি দেন আমার শরীরে পানি দেন'

আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা ফেনীর সেই মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির বড় ভাই নোমান তার আদরের ছোটবোনকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেছেন। নোমান তার ফেসবুকে লিখেছেন, অ্যাম্বুলেন্সে থাকাকালীন বোন শুধু পানি পানি বলে হাহাকার করছিল। ভাইয়া পানি দেন আমার শরীরে পানি দেন, আমাকে পানি খাওয়ান, আমার শরীর যে জ্বলে যাচ্ছে, তৃষ্ণায় যে বুক ফেটে যাচ্ছে ...

নোমানের সেই স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো-

আসসালামু আলাইকুম, একজন ভাইয়ের জন্য এর চেয়ে কষ্টের কি হতে পারে যে ভাইয়ের কোলে আদরের ছোট বোনটার অগ্নিদগ্ধ ক্ষতবিক্ষত শরীর থাকে?

একজন ভাইয়ের জন্য এর চেয়ে কষ্টের কি হতে পারে যে ভাই তাঁর প্রিয় ছোট বোনটাকে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়তে লড়তে একসময় নিস্তব্ধ হয়ে যাওয়া দেখে?

একজন ভাইয়ের কাঁধে তারই আদরের ছোট বোনের লাশের চাইতে ভারী পৃথিবীতে আর কি থাকতে পারে?

আমি কি করে ভুলবো ৮০ ভাগ পুড়ে যাওয়া প্রিয় বোনটার কষ্টের প্রতিটি মুহূর্ত। আদরের ছোট বোনের শরীরের পোড়া গন্ধের চেয়ে কষ্টের কি হতে পারে?

মাদ্রাসা গেট থেকে বিদায় দেওয়ার কিছু সময় পর যখন ফোনে আগুন লাগার কথা শুনতে পাই নিজের কানকে বিশ্বাস হচ্ছিল না। মাদ্রাসা থেকে শুরু করে সোনাগাজী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সেখান থেকে ফেনী তারপর ঢাকা। অ্যাম্বুলেন্সে থাকাকালীন বোন শুধু পানি পানি বলে হাহাকার করছিল। ভাইয়া পানি দেন আমার শরীরে পানি দেন, আমাকে পানি খাওয়ান, আমার শরীর যে জ্বলে যাচ্ছে, তৃষ্ণায় যে বুক ফেটে যাচ্ছে ...

পুরোটা সময় থর থর করে কাঁপছিলাম, বুকটা ফেঁটে চৌচির হয়ে যাচ্ছিল। চোখের পানিগুলো ঝরণা ধারায় ঝরছিল। এই মূহুর্তটাতে শুধু এটুকুই চাইছিলাম, আল্লাহ আমার বোনটাকে বাঁচিয়ে দাও, আমার প্রাণের বিনিময়ে হলেও বাঁচিয়ে দাও।

আমি এমন এক হতভাগা ভাই যার অতি আদরের ছোট্ট বোনটি মৃত্যুর পূর্ব মুহূর্তে আকুতি জানিয়ে একফোটা পানি চেয়েছিল অথচ আমি ডাক্তারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাত্র একফোঁটা পানি দিতে পারিনি।

বোন আমার আইসিইউতে থাকাকালীন  বলেছিল অসহ্য যন্ত্রণা আর কান্নাভরা কণ্ঠে ভাঙ্গা ভাঙ্গা গলায় বলেছিল ভাইয়া আম্মু জিজ্ঞেস করলে বলবি আমি ভালো আছি, না হলে আম্মু কষ্ট পাবে।

এখন সন্ধ্যার পর ফোন দিয়ে কে বলবে, ভাইয়া তাড়াতাড়ি বাসায় আয় না হলে আম্মুরে দিয়ে ফোন করাচ্ছি।

অর্ধেক কাপ চা খাওয়ার পর কাপটা কেড়েঁ নিয়ে কে বলবে, ভাইয়া চা বেশি খেলে ক্ষতি করবে এই বলে নিজেই খেয়ে নিবে।

আপনাদেরতো বোন আছে, আমারতো বোন নাই, আমি মনকে কি দিয়ে শান্তনা দিব বলতে পারেন?

আমার আদরের ছোট বোনটাকে যারা নৃশংসভাবে খুন করেছে, খুনের সাথে যারা জড়িত তাদের সকলের শাস্তি চাই, সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।

আমার বোনটাকে যেন আল্লাহ জান্নাতবাসী করে।

মন্তব্য