kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

দ্বৈত সম্পর্কের সন্তান, গর্বই বোধ করছেন মা!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ১৬:১৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দ্বৈত সম্পর্কের সন্তান, গর্বই বোধ করছেন মা!

টিন্ডার নামে ডেটিং সাইটে পরিচয়। তার পর দুই ব্যক্তির সাথেই মিলন। আর মিলনের পর অন্ত:সত্ত্বা কিন্তু দুইজনের কাউকেই বলেনি যে, তারা বাবা হতে পারেন। তবে সন্তানকে যথোপযুক্ত করতে সবকিছু করতে চান মা। 

৩৬ বছর বয়সে তিনি প্রেমে পড়তে, বিয়ে করতে এবং একটি পরিবার শুরু করতে মরিয়া হয়ে পড়েন। তাই স্বপ্নের মানুষকে খুঁজে পেতে টিন্ডার নামের একটি ডেটিং সাইটের সহায়তা নেন।  

জ্যাফ নামে একজনকে তিনি খুঁজে পান। কয়েক সপ্তাহ কথা বলার পর সিদ্ধান্ত নেন ডেট করার। তারা ডেট করা শুরু করেন। কিন্তু কয়েকদিন পরেই তাকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। কয়েকদিন পর আবারও টিন্ডারে খুঁজতে থাকেন মনের মতো ভালোবাসার মানুষ পেতে। কয়েকদিনের মধ্যেই ড্যারিয়েল নামে আরো একজনকে খুঁজে পান। সিদ্ধান্ত নেন স্থানীয় একটি ক্যাফেতে দেখা করতে। তাদের সম্পর্ক ভালোই যাচ্ছিল। মেয়টি চিন্তা করলো ড্যারিয়েল একজন ভালো বাবা হতে পারবেন।  

কিন্তু কয়েকদিন পর আবার জ্যাফ ফিরে আসে। তার সাথে যোগাযোগ করতে না পারার জন্য ক্ষমা চান জ্যাফ এবং ব্যক্তিগত কাজে ব্যস্ত ছিলেন বলে ব্যাখ্যা দেন।  

জ্যাফ ফিরে আসার পর পড়লেন এক অনিশ্চিয়তার মধ্যে। দুইজনের মধ্যে কে হবে তার জীবন সাথী তা বাচাই করতে পারছিলেন না। গত কয়েক সপ্তাহে অনেকবার তাদের সাথে ডেট করেছেন। পরে তিনি সিদ্ধান্ত নেন তাদেরকে জিজ্ঞাসা করতে হবে সম্পর্ক থেকে তারা কী চায় এবং বাচ্চা জন্ম দেওয়ার ব্যাপারেও তারা কী বলেন। তিনি তাদের কাছে এই বিষয়ে জানতে চান। কিন্তু জ্যাফ ও ড্যারিয়েলের কাছে এইটি ভালো খবর ছিল না। তারা উভয়ই জানাল তারা বাচ্চা চান না। 

এই ধরনের খবর শুনে বিষণ্ন হয়ে পড়েন এবং তাদের সাথে সম্পর্ক শেষ করেন তিনি। পরে টিন্ডার অ্যাপটি পরিহার করেন এবং সিদ্ধান্ত নেন স্বপ্নের মানুষ খুঁজা থেকে বিরতি নিবেন। 

কিন্তু এক মাস পরই ঘটে আসল ঘটনা। ডাক্তারের কাছে গেলে ডাক্তার জানান তিনি মা হতে চলছেন। জ্যাফ অথবা ড্যারিয়েল এ বাচ্চার বাবা হতে পারেন। 

তিনি সিদ্ধান্ত নিলেনে এই বাচ্চা সম্পর্কে জানাবেন না তাদের। স্পার্ম ডোনারের মাধ্যমে বাচ্চা গ্রহণ করেছেন বলে তার বন্ধু ও পরিবারেকে জানান। আট মাস পর জন্মগ্রহণ করে তার ছেলে জশুওয়া। 

জশুওয়া জন্মগ্রহণ করার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি জানান, ‘আমি আনন্দিত ছিলাম এবং অনুভব করলাম আমি পৃথিবীর সবচেয়ে ভাগ্যবান ব্যক্তি। সে নিষ্কলঙ্ক এবং আমার ছেলে। আমি তাকে যথোপযুক্ত করতে সবকিছুই করব।’

মন্তব্য