kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

নটরডেমের ভাইরাল ছবির মানুষ দুটি এখন কই?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ এপ্রিল, ২০১৯ ২১:০৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নটরডেমের ভাইরাল ছবির মানুষ দুটি এখন কই?

নটরডেম ক্যাথেড্রালে আগুন লাগার ঘণ্টাখানেক আগের একটি ছবি। ক্যাথেড্রালের সামনে এক লোক খেলছিলেন ছোট্ট একটি মেয়ের হাত ধরে। অগ্নিকাণ্ডের পর ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। তাঁদের খোঁজ পেতে আকুল বিশ্বের হাজার হাজার মানুষ। 

মিশিগান থেকে আসা পর্যটক ব্রুক উইন্ডসর ছবিটি তুলেছিলেন। এতে দেখা যায়, একজন পুরুষ পর্যটক শিশুটির দুই হাত ধরে শূন্যে তুলে নিজের চারদিকে ঘোরাচ্ছেন বিশ্ব ঐতিহ্যের নিদর্শন এই স্থাপনার পাশের খোলা জায়গায়। দুই টাওয়ার বিশিষ্ট স্থাপনার সামনে খেলছিলেন তাঁরা।

আগুন লাগার এক ঘণ্টা আগে ছবিটি তোলা হয়। আর এর কয়েক ঘণ্টা পর সোমবার রাতে তা টুইটারে পোস্ট করেন এর ফটোগ্রাফার। ততক্ষণে অনেক ক্ষতি হয়ে গেছে স্থাপনাটির। তিনি নিশ্চিত হতে চেয়েছেন আগুনের কুণ্ডলী থেকে পুরোপুরি নিরাপদে আছেন ক্রীড়ারত শিশুসহ ব্যক্তিটি।

২৩ বছর বয়সী ব্রুক টুইটারে লিখেছেন, 'আমি ছবিটি নিয়েছিলাম ক্যাথেড্রাল ছাড়ার সময়। এর ঘণ্টাখানেক পর আগুন লাগে।'

আবেগঘন পোস্টে তিনি লিখেছেন, 'আমি নিজে যেন বাবার কাছে ফিরে গিয়েছিলাম এবং তাঁকে জিজ্ঞেস করেছিলাম তিনি এটা চেয়েছিলেন কিনা। আমার ইচ্ছা, আমি যেন তাঁদের সন্ধান পাই। টুইটার, যদি তোমার কাছে কোনো জাদু থাকে, তবে সাহায্য কর আমায়।'

ছবিটি নেওয়া হয় স্থানীয় সময় বিকেল ৫টা ৫৭ মিনিটে। আর আগুন লাগে এর ঠিক ৫৩ মিনিট পর। 

ছবিটি সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে, উইন্ডসর বলেন, তিনি জানেন না ওই পর্যটক আর ছোট্ট মেয়েটির মধ্যে সম্পর্ক কী। তবে তাঁর ধারণা, তাঁদের মধ্যে বাবা-মেয়ের সম্পর্ক।

অন্য এক টুইটে উইন্ডসর লিখেছেন, 'আমি নিশ্চিত নই, তাঁরা বাবা-মেয়ে কিনা, আমি কেবল তাঁদের গতিপ্রকৃতি দেখে ধারণা করেছি। কিন্তু অন্য কিছুও হতে পারে। হতে পারে লোকটি মেয়েটির চাচা, ভাই, বন্ধু কিংবা অন্য কিছু। যতক্ষণ না আমি তাদের খুঁজে না পাই, ততক্ষণ পর্যন্ত নিশ্চিত হওয়া যাবে না।' 

টুইটে পোস্টটি প্রায় ৮০ হাজার শেয়ার হয়েছে।

গতকাল সোমবার (১৫ এপ্রিল) স্থানীয় সময় বিকেল  ৫টা ৫৭ মিনিটে আগুন লাগে ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্য নটরডেম ক্যাথেড্রালে। ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে অবস্থিত দ্বাদশ শতাব্দীর এই স্থাপনার অনেক ক্ষতি হয়েছে আগুনে। যদিও দমকল বাহিনী রক্ষা করতে পেরেছে দুটি ঘণ্টাঘর এবং গির্জার মূল কাঠামোটি। আজ মঙ্গলবার ভোররাত পর্যন্ত দেখা যায়, ঘন হলদেটে ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন গির্জা ও সংলগ্ন এলাকা।

এ ঘটনায় দেশটি জুড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি ইমামুয়েল ম্যাক্রোঁ দেশবাসীকে জানিয়েছেন, এটি পুনর্নির্মাণ করবে তাঁর সরকার। এই কাজের জন্য তহবিল সংগ্রহে ইতিমধ্যে নেমে পড়েছে ফ্রান্স।

ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন সারা বিশ্বের মানুষ, যাঁদের মধ্যে রয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এবং একাধিক রাষ্ট্রনেতা। 

সূত্র : ডেইলি মেইল 

মন্তব্য