kalerkantho

রবিবার । ২০ অক্টোবর ২০১৯। ৪ কাতির্ক ১৪২৬। ২০ সফর ১৪৪১                

যে শব্দটি অফিসার জোরালোভাবে বলতে পারেননি...

ইফতেখায়রুল ইসলাম   

১৯ মার্চ, ২০১৯ ২০:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যে শব্দটি অফিসার জোরালোভাবে বলতে পারেননি...

বাংলাদেশ পুলিশকে ৪০ বছর দিয়েছেন কনস্টেবল মোহাম্মদ মোখলেসুর রহমান! আজ বিদায় নিয়ে চলে গেলেন!

পদমর্যাদায় আমার অধীনে চাকরি করলেও শেষদিনে তাঁর কাছ থেকে শেখার ছিল অনেকটাই..

যাওয়ার প্রাক্কালে মনে হলো একটু জিজ্ঞেস করেই ফেলি, বললাম- চাকরি করে সন্তুষ্টি কেমন? 
বললেন অনেক ভাল স্যার। মানুষ ও পরিবারের জন্য অনেকটাই করা যায়। আমার ছেলেকেও পুলিশের চাকরিতেই উৎসাহিত করেছি। ছেলে নিজেও এখন পুলিশে চাকরি করছে স্যার

আমাদের ব্যস্ততম পেশায় এত এত অফিসারদের মাঝে আসলে খুব খেয়াল করে কনস্টেবলদের দিকে তাকিয়ে দেখা হয়না, কথা বলার সুযোগটুকুও কম। মাঠে কাজ করা অফিসারদের সাথেই যোগাযোগটুকু থাকে। তবুও চেষ্টা থাকে কোমলতা, কঠোরতায় তাদের আপন করে নেয়ার, সবসময় সফল হওয়াটা হয়ে উঠেনা যদিও..

আজ প্রথম তিনি আমার সামনে রাখা বসার চেয়ারগুলোর একটিতে বসলেন! ভালবাসা বড়ই সংক্রামক ; তা প্রায়ই মন থেকে চোখকে ছুঁয়ে যায় এবং পানির আধার নামায়.. মোখলেস সাহেব বারবার চোখ ঠিক করছিলেন! আজ কেন যেন তাকে আমার পুলিশ মনে হচ্ছিল না, শুধু বাবা মনে হচ্ছিল! তাঁর পুরো চেহারাতেই কেমন বাবা, বাবা ছাপ!

বাবাকে বারবার জড়িয়ে ধরে যেমন সন্তান তৃপ্ত হতে পারেনা, ঠিক তেমনি পিতৃহীন কোনো এক সিনিয়র অফিসারও তৃপ্ত হতে পারছিলেন না। তাই কৌশলে বারবার জড়িয়ে ধরে সুখ খোঁজার চেষ্টাটুকু করছিলেন।

মুখ থেকে বারবার বের হয়েছে একটি লাইন “আমার জন্য দোয়া করবেন!” যে শব্দটি অফিসার জোরালোভাবে বলতে পারেননি এবং মোখলেস সাহেবও শুনতে পাননি সেই শব্দটি ছিল "বাবা"

না বলা কথা বুঝেই কিনা জানিনা, তিনি বললেন 
“স্যার আপনাকে আমি অনেক ভালবাসি!” এই বলেই তিনি চলে গেলেন।

পেশাগত জীবনে চলার পথে এই নিঃস্বার্থ ভালবাসাটুকুর শক্তি অসীম, একে উপেক্ষা করার শক্তি মহান রাব্বুল আলামিন আমায় দেননি!

পিতারা বোধ করি এভাবেই প্রস্থান নেন...

লেখক: অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, ঢাকা মেটোপলিটান পুলিশ

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা