kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২২ আগস্ট ২০১৯। ৭ ভাদ্র ১৪২৬। ২০ জিলহজ ১৪৪০

ঘরে জায়গা নেই, কলেজের ছাদে পরীক্ষা দিল শিক্ষার্থীরা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৭:৪১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঘরে জায়গা নেই, কলেজের ছাদে পরীক্ষা দিল শিক্ষার্থীরা

খোলা ছাদে ডেকোরেটরের কাছ থেকে ভাড়া করা চেয়ার-টেবিল। শেষ পৌষের দুপুরে রোদ্দুর গায়ে মেখে দু’ধারে ঝুঁকে সারি সারি মাথা। ঠিক যেন চড়ুইভাতির পাত পড়েছে! কিন্তু টেবিলে শালপাতার থালা নয়, পরীক্ষার খাতা।

শীতের রোদ হলেও মাঝদুপুরে তার তেজ কম নয়। পরীক্ষার্থীরা কেউ রুমালে মাথা ঢেকেছেন, কেউ মাথায় দিয়েছেন টুপি। কেউ ঘাড় গুঁজে লিখে চলেছেন, কেউ তাকাচ্ছেন এদিক-সেদিক।

বিকেল গড়াতেই আবার রোদের তেজ উবে ঝুপ করে নেমে আসা মরা-গোধূলির আলো। উত্তর থেকে মাঝে-মাঝে শিরশিরে হাওয়া।

গতকাল শুক্রবার দুপুর দেড়টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ভারতের নদিয়ার শান্তিপুর কলেজের দোতলার ছাদে এ ভাবেই হয়ে গেল স্নাতক প্রথম বর্ষের পরীক্ষা।

রানাঘাট কলেজের শিক্ষার্থীরা টানা আড়াই ঘণ্টা পরীক্ষা দিলেন নীল আকাশের নীচে।  গত ১৭ ডিসেম্বর থেকে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন কলেজগুলোতে চলছে প্রথম বর্ষের পরীক্ষা।

শুক্রবার ইংরেজি পরীক্ষার মাধ্যমে সেটা শেষ হলো এবং শেষ দিনেই এই কাণ্ড! এভাবে পরীক্ষা হয় নাকি? নিদেন পক্ষে মাথার উপরে একটু ছাদ জুটবে না? পরীক্ষার সময়ে দু’জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে যতটা দূরত্ব থাকা দরকার, সেটাও থাকবে না?

শান্তিপুর কলেজের অধ্যক্ষ চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের যুক্তি, আমাদের এত পরীক্ষার্থীকে বসানোর জায়গা নেই। তাই বাধ্য হয়ে কয়েক জনকে ছাদে বসানো হয়েছে।

কলেজ কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, এতদিন নানা বিভাগের আলাদা আলাদা পরীক্ষা থাকায় সমস্যা হয়নি। শেষ দিন আবশ্যক ইংরেজি থাকায় রানাঘাট কলেজের দুই হাজার তিন শতাধিক শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে আসে। তাতেই গোল বেধেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা