kalerkantho

তাদের বিচ্ছেদের খোরপোশের অঙ্ক শুনলে চমকে যাবেন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৮:২৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তাদের বিচ্ছেদের খোরপোশের অঙ্ক শুনলে চমকে যাবেন

মনোমালিন্য হলে কিংবা বনিবনা না হওয়ার জেরে একসঙ্গে না থাকার সিদ্ধান্ত নেন অনেক দম্পতি। অনেক ক্ষেত্রে দিতে হয় মোটা অঙ্কের খোরপোশও।

তবে কোনো দম্পতির ক্ষেত্রে খোরপোশের পরিমাণ এতটাই বেশি যে, চমকে যেতে হয় সেসব জেনে। বৃহস্পতিবার টুইট করে ২৫ বছরের সঙ্গী ম্যাকেঞ্জির সঙ্গে বিচ্ছেদের কথা জানান পৃথিবীর ধনীতম ব্যক্তি এবং অ্যামাজনের মালিক জেফ বেজোস।

নিজের সদ্য সাবেক হওয়া স্ত্রীকে আনুমানিক ৬০ থেকে ৭০ বিলিয়ন ডলার দিতে হবে জেফকে। খোরপোশ হিসেবে এই পরিমাণ টাকা দেয়ার নজির নেই পৃথিবীর ইতিহাসে।

নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়া না হলে তখনই সমান ভাগে ভাগ করা হয় সম্পত্তি, এমনটাই আইন যুক্তরাষ্ট্রে। এর আগে রাশিয়ার ধনকুবের ব্যবসায়ী দিমিত্রি রাইবোলোভলেভ ও তার স্ত্রীর বিবাহবিচ্ছেদই ছিল সবচেয়ে মূল্যবান। ২০১৪ সালে বিচ্ছেদের পর তিনি স্ত্রীকে প্রায় তিন দশমিক দুই লাখ কোটি টাকা খোরপোশ হিসেবে দিয়েছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ধনকুবের অ্যালেক ওয়াইল্ডেনস্টেইন জন্মসূত্রে ফরাসি। ১৯৯৯ সালে জোকেলিন ওয়াইল্ডেনস্টেইনের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর তিনি প্রায় তিন দশমিক আট বিলিয়ন ডলার খোরপোশ দিয়েছিলেন।

রুপার্ট মারডক জন্মসূত্রে অস্ট্রেলীয়। স্ত্রী অ্যানা মারডক ম্যানের সঙ্গে ১৯৯৯ সালে বিচ্ছেদ হয়ে যায় তার। ৩১ বছরের বিবাহিত সম্পর্কের পর খোরপোশ দিতে হয়েছিল দুই দশমিক ছয় বিলিয়ন ডলার।

ব্রিটেনের ব্যবসায়ী বার্নি একলেস্টোনের সঙ্গে তাঁর স্ত্রী স্লাভিকার বিচ্ছেদ হয়েছিল ২০০৯ সালে। বার্নি স্লাভিকাকে খোরপোশ দিয়েছিলেন প্রায় ১.২ বিলিয়ন ডলার, ৮৮৪৮ কোটি টাকা।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা