kalerkantho

সোমবার । ২৬ আগস্ট ২০১৯। ১১ ভাদ্র ১৪২৬। ২৪ জিলহজ ১৪৪০

ফটোশপ কারসাজিতে বিভ্রান্ত অনলাইন মিডিয়া, অতঃপর...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৫:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফটোশপ কারসাজিতে বিভ্রান্ত অনলাইন মিডিয়া, অতঃপর...

অনলাইনে ছবিটি প্রকাশের পর সবার চোখ কপালে উঠেছিল! ছবিতে হীরকখচিত একটি বিমানকে দেখানো হয়। বিস্ময় জাগানিয়া ছবিটিতে সবার চোখ ঝলসে দিয়েছিল দুবাই-ভিত্তিক একটি ক্যারিয়ারের বোয়িং ৭৭৭এস বিমান। যেন উৎসবমুখর কোনো সাজে সেজেছে বোয়িংটি। 

কিন্তু অবশেষে গুমর ফাঁস হলো। আসলে এমন কোনো বিমান তৈরি হয়নি যাতে হীরক বসানো হয়েছে। পুরোটা ফটোশপের চৌকস কারসাজি ছাড়া আর কিছুই নয়। অথচ এতে বিভ্রান্ত হয়ে পড়েছে অনলাইন মিডিয়া। 

যে বিমানের ছবিটি দেখছেন, ওটা ইসলামাবাদে অপেক্ষমান এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি বিমান। ওটা ইতালির মিলান শহরমুখে উড়াল দেয়ার অপেক্ষায় বসে আছে। সেই ছবিটি তুলেছিলেন সারা শাকীল। তার মাথাতেই আসে বিমানটিকে ফটোশপে হীরকখচিত করার। 

এই নারী মূলত ডেন্টিস্ট। প্রায় সময়ই তিনি নিজের ইন্সটাগ্রাম অ্যাকাউন্টে এ ধরনের ছবি পোস্ট করেন। ফটোশপে দারুণ হাত তার। সবকিছুকে এমন দ্যুতিময় করে উপস্থাপন করতে ভালো লাগে তার। 

বোয়িংয়ের ছবিটি পোস্ট করার পর পরই তার ভাইরাল হয়ে যায়। শত সহস্র ভিউ হয়েছে। ছবিটি নজর কাড়ে এমিরেটস এয়াললাইন্সের। মানুষের মনে ভুল ধারণা সৃষ্টি হতে পারে। তাই তারা নিজেদের একটি পোস্টে বিমানটির নাম 'ব্লিং ৭৭৭' শিখে শিরোনাম দিয়েছে। সেখানে লিখেও দেয়া হয়েছে যে ফটোশপকারীর নাম। 

ছবিটি এতটাই নিখুঁত যে অনেকের মনেই প্রশ্ন জেগেছে, এটা কি সত্যি? যেমন 'মানাসাতলুরি' নামের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে লেখা হয়েছে, এটা কি সত্যি নাকি আমি স্বপ্ন দেখছি? দয়া করে কেউ বলেন এটা সত্যি, এটা কি সুন্দর। 

অন্যরা প্রশ্ন তুলেছেন, এতগুলো হীরার বাড়তি ওজন নিয়ে বিমানটি কি উড়াল দিতে পারবে? 

আরেকজন উত্তর দিয়েছেন, আসলে কৌশলগতভাবে এটা ওড়া সম্ভব নয়। এতে বাড়তি ওজন যোগ হয়েছে। তাছাড়া এর নিরাপত্তাতেও ত্রুটি দেখা দিতে পারে। 

পরে অবশ্য ফটোশপকারী ইন্সটাগ্রামে লিখেছেন, আমি এই বিমানে ভ্রমণ করে খুবই মজা পেয়েছি। তাই ভালোবাসা থেকে এতে হীরা বসিয়ে দিয়েছি। 
সূত্র: ডেইলি মেইল   

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা