kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

এ বছরের সেরা সাত পুরাতাত্ত্বিক আবিষ্কার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ ডিসেম্বর, ২০১৫ ১৪:১২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এ বছরের সেরা সাত পুরাতাত্ত্বিক আবিষ্কার

২০১৫ সালটি পুরাতাত্ত্বিক আবিষ্কারের জন্যে দারুণ একটি বছর। আবার এ বছরটি পুরাতাত্ত্বি ইতিহাসের সবচেয়ে খারাপ সময়। কারণ জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস বহু পুরাকীর্তি নির্দ্বিধায় ধ্বংস করেছে। তবে এ বছর বড় ধরনের ৭টি আবিষ্কারে নতুন ইতিহাস বেরিয়ে এসেছে। এগুলো দেখে নিন। ন্যাশনাল জিওগ্রাফি তুলে ধরেছে এসব তথ্য।

১. তুতেনখামেনের পিরামিডে গোপন কুঠুরি : ব্লকবাস্টার সিনেমায় এমনটা দেখানো হয়। কিন্তু তাই সত্যি হয়ে গেলো। হাজার বছর ধরে সিল করে রাখা হয়েছে এই গোপন কুঠুরি। ইজিপটোলোজিস্ট নিকোলাস রিভস লেজার স্ক্যানের মাধ্যমে এমনই গোপন কুঠুরির সন্ধান পান। সেখানে রয়েছে খালি স্থান। ধারণা করা হচ্ছে, সেখানে সমাধিস্থ করা হয়েছে রানি নেফারতিতিকে। আগামী বছর এই পিরামিডের নতুন আরো কিছু আবিষ্কারের সম্ভাবনা রয়েছে। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক সোসাইটির আর্কিওলজি ফেলো ফ্রেডরিক হিবার্ট এই চেম্বারের দেয়ালে ড্রিল দিয়ে ছোট আকারে ফুটো করে ফাইবার অপটিকস ক্যামেরার মাধ্যমে ভেতরটা দেখার চেষ্টা করবেন।

২. হন্ডুরাসে হারিয়ে যাওয়া সভ্যতার সন্ধান : গবেষকরা হন্ডুরাসের প্রিস্টিন ফরেস্ট এলাকায় তল্লাশি চালান। তারা এরিয়েল রিমোট সেন্সিং প্রযুক্তির মাধ্যমে বিলুপ্ত এক সভ্যতা খুঁজে পেয়েছে। এ নিয়ে আগে থেকেই ধারণা ছিল। কিন্তু তার প্রমাণ মেলেনি। পূর্ব মসকুইটা অঞ্চলে হাজারো বছর আগে এ সভ্যতার উত্থান ঘটে। ইতিমধ্যে হন্ডুরাসের প্রেসিডেন্ট এই অঞ্চলে চোর ও অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের ঠেকাতে বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছেন।

৩. হোমো নালেডির এক অদ্ভুত শাখা : এ গোত্রের মানুষের মতো প্রাণীর অস্তিত্ব যৌক্তিক নয়। কারণ এত বিশালদেহীর মস্তিষ্কে এত ছোট মগজ কেন থাকবে? এরা এপদের মতো প্রাণী। অস্ট্রোলোপিথেনসিস-এ পাওয়া ফসিলের থেকেও প্রাচীন এরা। কিন্তু তাদের আছে আধুনিকতার ছোঁয়া। বহু আগে এরা গুহায় বাস করতো। তবে বিবর্তনের মাধ্যমে হোমো নালেডি কিভাবে মানুষের সঙ্গে জুড়ে গেছে তার গবেষণা শেষ হতে চলেছে।

৪. জেমসটাউনের হারিয়ে যাওয়া নেতাদের দেহ : ২০১০ সালে ভার্জিনিয়াল জেমসটাউনে পাওয়া কয়েকটি দেহ নিয়ে গবেষণা করছিলেন আর্কিওলজিস্টরা। উত্তর আমেরিকার এ স্থানেই প্রথমবারের মতো চার্চ স্থাপন করা হয়েছিল। যে দেহগুলো পাওয়া গেছে তাদের মৃত্যুকাল নির্ণয় করা যায়নি। তবে অন্যান্য বৈশিষ্ট্য দেখে মনে হয়েছে, এগুলো জেমসটাউনের প্রথম চ্যানলেইন স্যার ফার্দিনান্দো ওয়েনম্যান, দুর্গের সার্জেন্ট মেজর পিটার উইনে এবং কলোনির প্রথমত গভর্নিং কাউন্সিল গ্যাব্রিয়েল আর্চারের দেহ হতে পারে। ৪০০ বছরের পুরনো চার্চের ভেতরে এই দেহগুলো পাওয়া বড় ঘটনা।

৫. হোপওয়েল মাউন্ডস-এর সেরেমনিয়েল ববক্যাট বিউরিয়াল : হোপওয়েল যুগের সমাধিস্থল নিয়ে যুগ যুগ ধরে খননকার্য চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। এখানে একটি বিড়ালের দাঁত পাওয়া গেছে। পুরাতত্ত্বের ইতিহাসে এর আগে কোনো প্রাচীন বিড়ালের দাঁত পাওয়া গেলো।

৬. গ্রিসে বীরের সমাধি : একটি গ্রিক সমাধিস্থল খুঁজে পাওয়া গেছে। এক বীরকে সেখানে সমাহিত করা হয়। তার কবরটি লুটপাট করা হয়নি। এটাকে যুগের উল্লেখযোগ্য আবিষ্কার বলে মনে হচ্ছে না।

৭. সান কেন স্প্যানিশ গ্যালিওনের গুপ্তধন : একে সর্বকালের সেরা আবিষ্কার বলে মনে করা যেতে পারে। এটা ১৮ শো শতকের এক স্প্যানিশ গ্যালিওন। এতে বিলিয়ন ডলারের বহুমূল্যের ধাতু ও রত্ন বোঝাই করা আছে।

 

মন্তব্য