kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ফোনে অবিরাম স্ক্রল করা বন্ধ করতে যা করতে পারেন

অনলাইন ডেস্ক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১২:১০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফোনে অবিরাম স্ক্রল করা বন্ধ করতে যা করতে পারেন

অনেকটা সময় পার করছেন মোবাইলের পিছনে। এমন নয় আপনার দরকারে করছেন। আসলে আপনি নিজেও জানেন না কেন করছেন। চুপ করে বসে ফোনে অবিরাম স্ক্রল করেই যাচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন

হুট করে মনে হলো ৫-৬ ঘন্টা নিজের ফোনটা ধরেই আছেন। মূল্যবান সময়ও নষ্ট করলেন সাথে চোখ আর মাথারও বারোটা বাজালেন। কী করা যেতে পারে এটা থেকে মুক্তি পেতে সেটাই জেনে নেই।

উদ্দেশ্য সংজ্ঞায়িত করা

আপনি জীবনে কী চান বা করতে চান সেটা খুঁজে বের করা দরকার। এটা বেশ  চ্যালেঞ্জিং হতে পারে যখন আপনি এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। নিজের জন্য কেউ আসলে দুই ঘন্টাও ব্যায় করতে চায় না। বেশিরভাগ মানুষ বন্ধু, মোবাইল নিয়ে পড়ে থাকে তবে সে কী করতে চায় সেটা নিয়ে ভাবে না। তাই নিজেকে সংজ্ঞায়িত করা জরুরি। নিজেকে নিয়ে ভাবুন! চিন্তা করুন আপনি কে? জীবনে কী করতে চান। কোথাও পৌঁছাতে চাইলে আমাকে কী করতে হবে। সময় অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এগুলোর পিছনে যখন ছুটবেন তখন মোবাইল নিয়ে পড়ে থাকার সময় পাবেন না। কারণ ওই দিকেই আপনাকে মনযোগ দিতে হবে।  

ফোকাস বা একাগ্রতা অনুশীলন

আপনাকে একাগ্রতা বা মনযোগ বাড়ানোর অনুশীলন করতে হবে। যেমন কারো সাথে কথা বলছেন সেটা হতে পারে বাবা, মা বা স্ত্রী। তার কথা মনযোগ দিয়ে শুনুন। কোন কাজ করলে মনযোগ দিয়ে করার চেষ্টা করুন। দিনে কমপক্ষে দুই ঘন্টা মনযোগ বাড়ানোর অনুশীলণ করতে পারেন। দুই মাস পরেই নিজের পরিবর্তণ দেখতে পারবেন।   

আপনি যখন কনো কিছু নিয়ে বিভ্রান্তির পরিবর্তে একাগ্রতা অনুশীলন করতে পারবেন তখন নিজেকে চিনতে সক্ষম হবেন। আপনার উদ্দেশ্য এবং অগ্রাধিকার নির্ধারণ করতে পারেন এবং আপনার স্মার্টফোনের সাথে আপনার সম্পর্ক পরিবর্তন করতে পারেন। স্মার্টফোনকে দোষ দেওয়া যায় না আসলে। পুরো বিষয়টা  আপনার হাতেই।

নিজেকে বোঝান আমাকে কতটুকু সময় কোথায় দিতে হবে। আপনি যদি প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময় মোবাইলের পিছনে দেন তাহলে আপনার মস্তিষ্কও সেটা মেনে নিবে। আপনি একই কাজ বার বার করে যাবেন। আগে থেকে সেট করুন আপনার কাজগুলো। নিজের জন্য কতটুকু সময় রাখবেন ঠিক করে নিন। আস্তে আস্তে স্ক্রিন টাইম কমিয়ে আনুন। একবারেই ছেড়ে দিতে হবে এমন নয়।  

সূত্র : ফার্স্ট কম্পানি।

 



সাতদিনের সেরা