kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ঘরে এবং বাইরে সাইকেল চালানোয় যত উপকার

অনলাইন ডেস্ক   

৭ আগস্ট, ২০২২ ১৮:১২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঘরে এবং বাইরে সাইকেল চালানোয় যত উপকার

প্রতীকী ছবি

সাইকেল চালানো একটি দুর্দান্ত ব্যায়াম। সাইকেল চালিয়ে যেমন ব্যায়াম করা যায় তেমনি নিজেকে সতেজ ও চাঙ্গাও রাখা যায়। একবার সাইকেল চালানো নেশা হয়ে গেলে গান শুনতে শুনতে কিংবা পার্কে ঠান্ডা বাতাস খেতে খেতে এটি উপভোগ করা যায়। সাইকেল চালানো বেশ কার্যকরী একটি কার্ডিও ওয়ার্কআউট।

বিজ্ঞাপন

 

যারা সাইকেল চালাতে পারেন না তাদের হতাশ হওয়ার কিছু নেই। কারণ আপনাদের জন্য আছে 'ইনডোর সাইকেল'। ইনডোর কিংবা আউটডোর যেই সাইকেলই আপনি চালান না কেন, এটি একটি ভালো ব্যায়াম হিসেবে কাজে দেবে। যাদের দীর্ঘদিনের হার্টের সমস্যা রয়েছে তাদেরকে সাইকেল চালানোর পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে।  

সাইকেল চালানোর মূল উদ্দেশ্য ক্যালরি খরচ করা। শুধু ইনডোর বা আউটডোর সাইকেল চালানোর ওপর এটি নির্ভর করে না। আপনি কতটুকু ক্যালরি খরচ করবেন তা নির্ভর করে সাইকেলের গতি, বিরতির সময় এবং কতক্ষণ সময় ধরে সাইকেল চালাচ্ছেন তার ওপর। তবে বলা হয়ে থাকে ইনডোর সাইক্লিংয়ের চেয়ে আউটডোর সাইক্লিংয়ে বেশি ক্যালারি ক্ষয় হয়।  

ধরা যাক একজন মানুষ এর ওজন প্রায় ৫৬-৫৭ কেজি। তিনি ৩০ মিনিট ইনডোর সাইক্লিং করে প্রায় ২১০ থেকে ৩১৫ ক্যালরি খরচ করতে পারে। তবে তা অবশ্যই তার গতির তীব্রতার ওপর নির্ভর করে। আবার একই ব্যক্তি তাদের সাইকেল চালানোর গতির ওপর ভিত্তি করে ৩০ মিনিটে প্রায় ২৪০ থেকে ৪৯৫ ক্যালরি খরচ করতে পারে।

একইভাবে, ৮৩-৮৪ কেজি ওজনের একজন মানুষ ৩০ মিনিটের জন্য একটি ইনডোর সাইকেল চালালে তার গতির ওপর নির্ভর করে ৩১১ থেকে ৪৬৬ ক্যালরি খরচ করতে পারে। আবার তিনিই যদি আউটডোর সাইক্লিং করেন, তাহলে সেটার তীব্রতার ওপর ভিত্তি করে ৩০ মিনিটে প্রায় ৩৫৫ থেকে ৭৩৩ ক্যালরি পর্যন্ত খরচ করা সম্ভব।

ঘরের বাইরে সাইকেল চালানো কিছুটা রোমাঞ্চকর এবং মজার। এতে বাইরের সুন্দর দৃশ্য উপভোগ করা যায়। কিন্তু এসময় চাইলেও অনেক ক্ষেত্রে গতি বাড়ানো যায় না। অন্যদিকে ঘরে সাইকেল চালালে নিজের ইচ্ছা তো গতি এবং তীব্রতা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এসব বাইকে চাইলেই নিজেকে চ্যালেঞ্জ করা যায়। চাইলেই পায়ের গতি বাড়ানোর সময় চোখ বন্ধ করে গান উপভোগ করা যায় কিংবা নিজের বাড়ির ভিতর ঘুরে আসা যায়।

অনেকেই আবার দ্বিধায় থাকেন ইনডোর সাইকেলে আসলেই মেদ কমবে কিনা কিংবা টাকা খরচ করে এটি কেনা কতটা ফলপ্রসু হবে। এসব প্রশ্নের উত্তর খুজতে ২০১৮ সালে একটি গবেষণায় দেখা যায়, খাদ্যাভ্যাসে কোনো পরিবর্তন না করে ইনডোর সাইকেল চালিয়ে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমানো এবং শক্তি বাড়ানো সম্ভব। গবেষণায় অংশ নেওয়া ৪০ জন নারী অংশ নেন। ১২ সপ্তাহ ইনডোর সাইকেল চালানোর পর দেখা যায়, তাদের সামগ্রিক কোলেস্টরেলের মাত্রা, শরীরের ভর, চর্বি এবং বিএমআই কমে গেছে। সুতরাং ইনডোর সাইক্লিং আপনাকে ওজন কমাতে এবং ফিট থাকতে সাহায্য করবে।

অন্যদিকে দক্ষিণ কোরিয়ায় একটি গবেষক দল স্কুল পড়ুয়া ২৪ জন মেয়ের ওপর একটি গবেষণা চালায়। তাদের মধ্যে থেকে ১২ জনকে ঘরে এবং ১২ জনকে ঘরের বাইরে সাইকেল চালাতে দেওয়া হয়। ১৬ সপ্তাহ পরে দেখা যায়, ওজন কমানোর ক্ষেত্রে বাড়ির ভেতরে এবং বাইরের সাইক্লিংয়ের কোনো পার্থক্যই নেই!



সাতদিনের সেরা