kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

তীব্র রোদে চোখ ভালো রাখতে যা করণীয়

অনলাইন ডেস্ক   

২৫ জুলাই, ২০২২ ১১:৪৭ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



তীব্র রোদে চোখ ভালো রাখতে যা করণীয়

গরমের এই সময়ে তাজা ফলমূল খাওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন ফলের রস, ডাবের পানি পান করতে হবে। ঘুমাতে হবে পর্যাপ্ত। চোখ ভালো রাখতে মোবাইল ও কম্পিউটারের স্ক্রিনটাইম কমাতে হবে। মডেল : ফারিহা

তীব্র রোদ আর গরমে চোখে ক্লান্তি নেমে আসে। তাকিয়ে থাকা কষ্ট হয়। বেশি ঘুম পায়। বিঘ্ন ঘটে কাজে।

বিজ্ঞাপন

কিভাবে চোখের ক্লান্তি দূর করবেন জানালেন রেড বিউটি পার্লারের স্বত্বাধিকারী ও রূপ বিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন। লিখেছেন আতিফ আতাউর

বাইরে প্রচণ্ড রোদের তাপ। তার ওপর গরমে হাঁসফাঁস অবস্থা। তীব্র রোদের মধ্যে তাকিয়ে থাকাও কষ্টকর এক ব্যাপার। সানগ্লাস বা ছাতা ব্যবহারে হয়তো একটু প্রশান্তি মিলছে, কিন্তু পরক্ষণেই চোখে চেপে বসছে ক্লান্তি।  কাজে মনোযোগ ব্যাহত হচ্ছে। চোখের ক্লান্তি বেশি হলে ঘুম ঘুম ভাব পেয়ে বসে। তাই দরকার চোখের প্রশান্তি।

আবার শুধু যে তীব্র গরমেই চোখে ক্লান্তি পেয়ে বসে তা-ই নয়। দীর্ঘ সময় কম্পিউটারের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে কাজ করা, স্মার্টফোনে মুখ গুঁজে বসে থাকা, কাজের চাপ, পানিশূন্যতা, মানসিক চাপ, কম ঘুমের কারণেও চোখে ক্লান্তি পেয়ে বসে। চোখের ক্লান্তির ছাপ পড়ে চেহারাজুড়ে। এ জন্য চোখের সুরক্ষা ও ক্লান্তি দূর করতে নিয়মিত কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে।

রোদ এড়িয়ে চলুন

রোদে তাকালে আমাদের সবারই চোখ কুঁচকে আসে। রোদের আলট্রা ভায়োলেট রশ্মির প্রভাব পড়ে চোখে। তীব্র রোদে চোখ দ্রুত ক্লান্ত হয়ে পড়ে। এ ছাড়া রোদে ঘাম গড়িয়ে চোখের সংস্পর্শে এলে চোখ জ্বালাপোড়া করে। তাই এখন যতটা সম্ভব রোদ এড়িয়ে চলতে হবে। রোদে গেলে ভালো মানের রোদচশমা পরে বের হতে হবে। রোদে সব সময় ছাতা ব্যবহার করতে হবে। রোদ থেকে ফিরে চোখের পাতা খোলা রেখে কয়েকবার ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিতে হবে। এতে চোখ ও মুখ শীতল হবে। চোখের ক্লান্তি নিমেষে কমে আসবে।

নিয়মিত পর্যাপ্ত ঘুম

চোখের ক্লান্তি বেশি ধরা পড়ে ঘুম না হলে বা কম হলে। এ জন্য নিয়মিত সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুমাতে হবে। ঘুমের মধ্যে সারা দিনের ক্লান্তির ধকল কাটিয়ে ওঠে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ। এতে পুরো শরীরের বিশ্রামের কাজ হয়। তাই কোনোভাবেই ঘুম পরিহার করা যাবে না। রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমাতে হবে। খুব সকালে বিছানা ছাড়তে হবে। বেলা করে ঘুম থেকে উঠলেও চোখে ক্লান্তিভাব দেখা দেয়।

চা, কফি ও ধূমপান নয়

চা, কফি ও বিভিন্ন ধরনের মাদকে থাকা ক্যাফেইন আমাদের শরীরের কোষকে উত্তেজিত করে। এই উত্তেজনা থেকে শরীরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ক্লান্ত হয়ে যায়। অতিরিক্ত চা, কফি ও মাদক গ্রহণের কারণে ঘুম কম হয়। এর প্রভাব পড়ে চোখে। তাই যতটা সম্ভব চা-কফি কম পান করতে হবে। মাদক থেকে দূরে থাকতে হবে।

kalerkantho

কমাতে হবে স্ক্রিনটাইম

একনাগাড়ে কম্পিউটার, স্মার্টফোন ব্যবহার করা পরিহার করতে হবে। টানা দীর্ঘ সময় কম্পিউটার ও স্মার্টফোনের স্ক্রিনের দিকে তাকালে চোখে থাকা জলীয়বাষ্প দ্রুত শুকিয়ে যায়। চোখ খটখটে হয়ে পড়ে। তাই বিরতি দিয়ে এসব ইলেকট্রনিক যন্ত্র ব্যবহার করতে হবে। কাজের ফাঁকে মাঝেমধ্যে উঠে বিশ্রাম নিতে হবে। কয়েক কদম হেঁটে বেড়ালেও ভালো। সবুজ প্রকৃতি বা আকাশের দিকে ক্ষণিক তাকিয়ে চোখকে বিশ্রাম দিতে পারেন। এ ছাড়া চেষ্টা করুন দিনে দু-তিন ঘণ্টার বেশি মোবাইল ব্যবহার না করার।

বেশি বেশি পানি পান

গরম, রোদ ও পানিশূন্যতায় চোখে ক্লান্তি পেয়ে বসে। তাই শরীরে পানির অভাব হতে দেওয়া যাবে না। বেশি বেশি পানি পান করুন। পর্যাপ্ত পানি পান করলে চোখের জলীয়বাষ্প স্বাভাবিক থাকে। সহজে ক্লান্তি চাপে না। চোখে জ্বালাপোড়া, লালচে ভাব কাটে। পানি পানের পাশাপাশি মৌসুমি ফল, শাক-সবজি খাওয়ার চেষ্টা করুন। ফলের রস, শরবত ও ডিটক্স ওয়াটার বানিয়ে পান করতে পারেন। বাইরে যাওয়ার সময় বোতলে করে পানি সঙ্গে রাখুন।

kalerkantho

আলু, মসুর ডাল ও টক দইয়ের প্যাক

চোখের ক্লান্তি কমাতে একটি আলু, তিন চা চামচ মসুর ডাল পিষে নিন। এবার এই মিশ্রণের সঙ্গে টক দই মেশান। মিশ্রণটি কিছুক্ষণ ফ্রিজে রেখে চোখের চারপাশে লাগিয়ে ২০ মিনিট বসে বা শুয়ে থাকুন। এরপর ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিমেষে চোখের ক্লান্তি দূর করতে প্যাকটির জুড়ি নেই।



সাতদিনের সেরা