kalerkantho

সোমবার । ১৫ আগস্ট ২০২২ । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৬ মহররম ১৪৪৪

রান্নাঘরে ঈদ প্রস্তুতি যেমন

অনলাইন ডেস্ক   

২৭ জুন, ২০২২ ১২:১২ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



রান্নাঘরে ঈদ প্রস্তুতি যেমন

ঈদের দিন রান্নাঘরে অনেকটা সময় কাটাতে হয় গৃহিণীদের। সকালে সেমাই থেকে শুরু করে দুপুরে মাংস ব্যবস্থাপনা, রান্নার পর রাতের অতিথি আপ্যায়ন—হ্যাপাটা কম নয়। আগেই গুছিয়ে রাখলে ঈদের দিনটায় কাজ সহজ হবে। রন্ধনশিল্পী নাদিয়া নাতাশার সঙ্গে কথা বলে লিখেছেন ফাতেমা ইয়াসমীন

 

ঈদ আয়োজনের অনেকটা ধকল সহ্য করে বাড়ির রান্নাঘর।

বিজ্ঞাপন

কোরবানির ঈদে এই ধকলটা আরো বেশি। কোরবানির মাংসের হাড়, তেলের স্তূপ তো রয়েছেই। আরও আছে অন্যান্য রান্নার প্রস্তুতি-সরঞ্জাম।

ঈদে ঘরবাড়ি সাজানো-গোছানো ও পরিষ্কারের পাশাপাশি যদি রান্নাঘরটিও আগে থেকে সাজিয়ে-গুছিয়ে ফেলা যায়, তাহলে ঈদের দিন কিছুটা স্বস্তি পাওয়া যায় কাজে। সবার আগে খেয়াল রাখতে হবে রান্নাঘরের পরিচ্ছন্নতার দিকে। রান্নাঘর নিয়মিত পরিষ্কার করা না হলে এক ধরনের তেল চিটচিটে ভাব চলে আসে। আর দিন দিন এটি বাড়তে থাকলে জীবাণুও ছড়াতে পারে। তাই রান্নার পরপরই চুলা ও এর চারপাশ পরিষ্কার করে ফেলতে হবে। কাটিং বোর্ড, ছুরি এগুলো রান্নাঘরের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় উপাদান। কাজ শেষে এগুলো পরিষ্কার করে একটি নির্দিষ্ট স্থানে রাখার অভ্যাস করতে হবে। ভালোভাবে পরিষ্কার করে গুছিয়ে রাখতে হবে রান্নাঘরের তাক ও সেখানে রাখা জিনিস।

রান্নাঘরে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় আর সর্বোচ্চ ব্যবহূত জিনিসটি হলো ফ্রিজ। কোরবানি আসার আগেই ফ্রিজ গুছিয়ে ফেলা উচিত। ফ্রিজে থাকা যেসব জিনিসের মেয়াদ কমে এসেছে সেগুলো দ্রুত ব্যবহার করে ফেলতে হবে। ফ্রিজে মাংস রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পলিথিন ও বাটি আগে থেকেই ব্যবস্থা করে রাখতে পারলে ভালো।  

রান্নাঘর পরিষ্কারের পালা তো শেষ। এবার অন্যান্য কাজ গুছিয়ে ফেলার পালা। প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র গুছিয়ে হাতের কাছে রাখলে ঈদের দিন রান্নাটা খুব সহজ আর আনন্দময় হবে।

kalerkantho

kalerkantho

ঈদের আগেই রান্নাঘর গুছিয়ে দরকারি মসলা, পেঁয়াজ, রসুন,আলাদা করে সাজিয়ে রাখলে কাজে সুবিধা হবে

 

মসলা গুছিয়ে রাখুন

ঈদের রান্না মানেই হরেক রকম মসলা। তাই মসলাগুলো আগেই প্রস্তুত করে রাখুন। আদা-রসুন পেস্ট করে আগেই ডিপ ফ্রিজে বক্স করে রেখে দিতে পারেন। অন্য মসলাগুলো হাতের কাছেই সাজিয়ে রাখুন। মাংসের মসলা, বিরিয়ানির মসলা, চটপটির মসলা আলাদাভাবে বক্সে ভরে হাতের নাগালেই রাখুন।

সকালের কিছু নাশতা আগে তৈরি করে রাখা

অনেকেই আগের রাতে কিছু ডেজার্ট আইটেম তৈরি করে রাখেন, এটি বেশ কার্যকর অভ্যাস। কারণ তাহলে ঈদের দিন সকালে নাশতার জন্য সময় বেঁচে যায়। আর দুপুরের জন্য রান্নার সময় শরীরও তত ক্লান্ত হয় না।

কাটাকাটির সরঞ্জাম রাখুন হাতের নাগালেই

ছুরি, কাঁচি, দা, বঁটি—এগুলো এই ঈদের প্রধান সরঞ্জাম বলা চলে। আগে থেকেই এগুলো ধুয়েমুছে নির্দিষ্ট জায়গায় রেখে দিতে হবে। ব্যবহার করে অনেকেই এগুলো পরিষ্কার না করে রেখে দেন, এতে জং ধরে নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। যত দ্রুত সম্ভব স্টিল ও লোহার জিনিসপত্র ব্যবহার করে দ্রুত পরিষ্কার করে ফেলবেন। ঈদে যে হাঁড়ি, পাতিল, কাপ, প্লেট ব্যবহার হবে, সেগুলোও আগে থেকেই ধুয়েমুছে পরিষ্কার করে রাখুন।

ওভেন, রাইস কুকারের বাড়তি যত্ন

ঈদের আগেই ফ্রিজ, ওভেন, রাইস কুকার, ব্লেন্ডার ও ফুড প্রসেসর—এই যন্ত্রপাতিগুলো পরিষ্কার করে রাখুন। যদি সার্ভিসিংয়ের প্রয়োজন মনে করেন, তাহলে আগে থেকে তা করিয়ে নিন। এগুলো ছাড়া তো আর এখন চলে না। কাজ দ্রুত ও সহজ করতে এগুলোর জুড়ি নেই।

কিছু রান্না আগেই প্রস্তুত করে রাখা

ঈদের দিন কী রান্না হবে, আগেই তার একটা পরিকল্পনা করুন। যদি বিরিয়ানি রান্নার ইচ্ছে থাকে তহালে ঈদের আগে থেকেই মসলাপাতি তৈরি করে রাখতে পারেন। কাবাব বানাতে চাইলে তার মশলাও তৈরি করে রাখুন। কিছু খাবার আছে ফ্রোজেন করে রাখা যায়। সে রকম কিছু আইটেম তৈরি করে রেখে দিতে পারেন। ঈদের দিন চটজলদি বের করে রান্না করতে সুবিধা হবে।


এই রকম আরো খবর


সাতদিনের সেরা