kalerkantho

শনিবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৭ নভেম্বর ২০২১। ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

ওজন কমাতে সহায়ক দুধ?

অনলাইন ডেস্ক   

৬ নভেম্বর, ২০২১ ১৫:৩১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ওজন কমাতে সহায়ক দুধ?

ওজন কমানোর জন্য মানুষ ডায়েট চার্ট তৈরি করে। তাতে কি খাবে আর খাবে না তার তালিকা তৈরি করে। এ তালিকায় বেশিরভাগ সময়ই স্থান পায় দুধ। দুধ যে আদর্শ খাবার সে বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু দুধে যে ফ্যাটও রয়েছে তাও ওজন বাড়াতে পারে। তাহলে ওজন কমাতে চাইলে কি খাবার তালিকা থেকে দুধ বাদ দেওয়া উচিত তাই এখন প্রশ্নের বিষয়। চলুন জেনে নেওয়া যাক।

মানুষ কেন ভাবে দুধ ওজন কমাতে সহায়ক?

দুধে স্যাচুরেটেড ফ্যাট ও ক্যালোরি রয়েছে। আর দুইটি ওজন কমাতে সহায়ক। ২৫০ মিলিলিটার দুধে ৫ গ্রাম ফ্যাট ও ১৫২ ক্যালোরি রয়েছে। তবে যারা লো ক্যালোরি ডায়েট করে তারা দুধ ও দুগ্ধজাতীয় যেকোন খাবার এড়িয়ে চলে।

দুধ কি ওজন বাড়ায়?

এ প্রশ্নের সহজ উত্তর হলো না। দুধ কখনো ওজন তো বাড়ায় না বরং ওজন কমাতে সাহায্য করে। দুধ স্বাস্থ্যকর একটি খাবার এবং উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন প্রোটিনের উৎস। এতে জিংক, ম্যাগনেসিয়াম,ক্যালসিয়াম,ভিটামিন বি-১২, ভিটামিন ডি রয়েছে। এই উপাদানগুলো হাড় শক্ত রাখতে সাহায্য করে, রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং মেটাবলিজম বৃদ্ধি করে।

২৫০ মিলিলিটার দুধে ৮ গ্রাম প্রোটিন এবং ১২৫ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম রয়েছে। এজন্য ডায়েটের সময় সীমিত পরিমাণে দুধ খেলে কোন সমস্যা হওয়ার কথা না।

গবেষণা:

২০০৪ সালের গবেষণা অনুসারে, যারা দুগ্ধ জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলেন তাদের তুলনায় যারা লো ক্যালোরির ডায়েট অনুসরণ করে প্রতিদিন যারা তিন ধরণের দুগ্ধজাতীয় খাবার খায় তাদের দ্রুত ওজন কমে। আরো কয়েকটি গবেষণায় উঠে এসেছে যে, যারা ডায়েটে দুগ্ধজাতীয় খাবার রাখে তারা ওজন নিয়ন্ত্রণেও রাখতে পারে দীর্ঘদিন।

সেই সাথে ক্যালসিয়াম বেশি গ্রহণ করলে মেটাবলিজম বৃদ্ধি পায়, ওবেসিটি ও টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমে এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগের আশঙ্কাও কমে ।

মোটকথা আপনি যদি ওজন কমাতে চান তবে আপনার খাদ্য তালিকা থেকে দুধ বা দুগ্ধজাতীয় খাবার বাদ দেওয়ার কোন প্রয়োজন নেই। একটি ব্যালেন্সড ডায়েটের জন্য দুধ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেই সাথে প্রতিদিন ২৫০ মিলিলিটার দুধ আপনাকে কর্মক্ষম রাখবে। আপনি ওয়ার্কআউটের পরে যদি প্রোটিন শেক খান তাহলে তার সাথে দুধ যোগ করে নিতে পারেন। তবে আপনি যদি ল্যাকটোজ সহ্য না করতে পারেন তাহলে আপনাকে দুধ বর্জন করতে হবে। সেক্ষেত্রে আপনি সয়া দুধ বা বাদাম দুধ খেতে পারেন।

সূত্র: দ্যা টাইমস অব ইন্ডিয়া



সাতদিনের সেরা