kalerkantho

শনিবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৭ নভেম্বর ২০২১। ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

পানির ফিল্টারের যত্ন নেবেন যেভাবে

অনলাইন ডেস্ক   

১১ অক্টোবর, ২০২১ ১০:৫০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পানির ফিল্টারের যত্ন নেবেন যেভাবে

নিয়মিত পানির ফিল্টারের যত্ন নেওয়া উচিত। নইলে পানিতে ময়লা মেশার পাশাপাশি যন্ত্রটি বিকল হতে পারে। কিভাবে ফিল্টারের যত্ন নেবেন জানিয়েছেন ড্রিংক ইট ওয়াটার পিউরিফায়ারের ব্র্যান্ড ম্যানেজার মাহাদী হাসান। লিখেছেন আতিফ আতাউর।

ঢাকাসহ বড় বড় শহর, এমনকি গ্রামাঞ্চলেও এখন নিরাপদ পানি পেতে ফিল্টার ব্যবহার করেন অনেকেই। বাজারে পানি বিশুদ্ধ করতে ফুড গ্রেড প্লাস্টিক ও কাচের তৈরি নরমাল ওয়াটার ফিল্টার এবং ইলেকট্রনিক ওয়াটার ফিল্টার কিনতে পাওয়া যায়। এসব ফিল্টারের কোনো কোনোটি পানির ময়লাই শুধু দূর করে না, বরং পানিতে থাকা ক্ষতিকর বিভিন্ন জীবাণু ও গন্ধও দূর করতে সক্ষম। এ ছাড়া ফিল্টারগুলো পানিতে মিশে থাকা ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া, বিষাক্ত কেমিক্যাল, ভারী ধাতু, মরিচা, সিসাসহ অন্যান্য দূষিত পদার্থ সম্পূর্ণরূপে দূরীভূত করতে পারে। কিন্তু যে যন্ত্রটি আমাদের বিশুদ্ধ পানির নিশ্চয়তা দেয় তার নিয়মিত যত্ন করা দরকার।

 চাইলেই অনেক ফিল্টারে স্বাভাবিক, ঠাণ্ডা ও গরম তিন ধরনের পানি পাওয়া যায়। এসব কারণে এখন ঘরে ঘরে পানির ফিল্টারের ব্যবহার দেখা যায়। যে যন্ত্রটি আমাদের প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় বিশুদ্ধ পানির নিশ্চয়তা দেয় তার নিয়মিত যত্নআত্তি করা উচিত। নইলে কার্যক্ষমতা হারাতে পারে ফিল্টার।

ফিল্টারের পানি প্রতিদিন বদলে ফেলাই ভালো। এ জন্য যার যতটুকু প্রয়োজন ততটুকু পানি বিশুদ্ধ করাই ভালো। এতে বাড়তি পানির অপচয় হবে না। অনেকেই ফিল্টারে পানি কয়েক দিন জমিয়ে রাখেন। এটা করা যাবে না। এতে ফিল্টারের পানিতে দুর্গন্ধ তৈরি হতে পারে। ফিল্টারে পানি বেশি দিন জমে থাকলে শেওলা জন্মাতে পারে।

ফিল্টারগুলোতে সাধারণত কয়েকটি পার্ট বা অংশ থাকে। একেক অংশের একেক কাজ। এ জন্য প্রতিটি অংশের আলাদা যত্ন নিন। ফিল্টারের সিরামিক সাধারণত বেশি ময়লা হয়। এ জন্য সপ্তাহে এক দিন সিরামিক পরিষ্কার করুন। বাজার করার সময় যে নেট ব্যাগগুলো পাওয়া যায়, সেগুলো দিয়েই সিরামিক পরিষ্কার করতে পারেন। এখন সিরামিক কেনার সময় এক ধরনের শিরীষ কাগজ প্যাকেটের মধ্যেই দেওয়া থাকে। এতে সিরামিক ময়লা হলে শিরীষ কাগজ দিয়ে ঘষে পরিষ্কার করা যায়। এটা দিয়েও পরিষ্কার করতে পারেন।

নেট দিয়ে ফিল্টার পরিষ্কারের সময় লিকুইড ডিশওয়াশার ব্যবহার করুন। সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার করবেন না। এতে পানিতে সাবান বা ডিটারজেন্টের গন্ধ চলে আসতে পারে। তবে ফিল্টারের বাইরের অংশ পরিষ্কারের ক্ষেত্রে সাবান কিংবা ডিটারজেন্ট ব্যবহার করতে পারেন। নিয়মিত পরিষ্কারের পাশাপাশি পানির ফিল্টারের সিরামিক প্রতি দুই-তিন মাস অন্তর বদলে ফেলুন। এতে ফিল্টার থেকে বিশুদ্ধ পানির নিশ্চয়তা বেড়ে যায়। ফিল্টারের নিচের অংশে পানি বিশুদ্ধকরণের জন্য আলাদা কার্টিজ থাকে। পানির ময়লার ওপর কার্টিজ বদলে ফেলার বিষয়টি নির্ভর করলেও সাধারণ হিসেবে ছয় মাস অন্তর একবার কার্টিজ বদলে নেওয়া ভালো। এ ছাড়া ফিল্টারের ছাঁকনি প্রতি সপ্তাহে একবার পরিষ্কার করুন। এটিও প্রতি ছয় মাস অন্তর বদলে নিতে পারেন।

পানির ফিল্টারে গরম পানি ঢালা থেকে বিরত থাকুন। অনেকেই অতিরিক্ত সাবধানতা অবলম্বন করতে গিয়ে পানি গরম করে ফিল্টারে ব্যবহার করেন। এটার কোনো প্রয়োজন নেই। সেই সাথে ফিল্টার কেনার পর প্যাকেটের মধ্যে দেওয়া ম্যানুয়ালে থাকা নিয়মাবলিতে একবার চোখ বুলিয়ে নিন। বিদ্যুত্চালিত ফিল্টার এমন জায়গায় রাখুন যেন শিশুদের নাগালের বাইরে থাকে।

 

 

 



সাতদিনের সেরা