kalerkantho

সোমবার । ৭ আষাঢ় ১৪২৮। ২১ জুন ২০২১। ৯ জিলকদ ১৪৪২

করোনা থেকে সেরে ওঠার পর কেমন হবে খাবার তালিকা?

অনলাইন ডেস্ক   

৯ মে, ২০২১ ১০:৫৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



করোনা থেকে সেরে ওঠার পর কেমন হবে খাবার তালিকা?

রোগমুক্ত হতে গেলে যেমন ওযুধ প্রয়োজন, তেমনই জরুরি যথাযথ ডায়েট। বিশেষ করে করোনা থেকে সেরে উঠলে অবশ্যই খাবারের বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। কারণ শরীরকে সুস্থ করতে পুষ্টিকর খাবারের বিকল্প নেই। করোনা থেকে সেরে ওঠা রোগীর খাদ্যতালিকায় কি কি খাবার থাকবে চলুন জেনে নেওয়া যাক।

প্রোটিন : আমাদের শরীরে কোষের গঠনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান প্রোটিন। আর শরীরে শক্তির জোগান দিতেও প্রোটিনের চাহিদা বেশি। তাই রোজ অবশ্যই প্রোটিন রাখতে হবে তালিকায়। ডিম, মাংস, মাছ, ডাল, পনির, সয়াবিন যার যেটা পছন্দ ঘুরিয়ে ফিরিয়ে খেতে পারেন। ছোলা ভিজিয়েও খেতে পারেন। এছাড়া কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি হলে ডাল, মাছ জাতীয় প্রোটিন রাখতে পারেন তালিকায়।

ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড : এটি রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ায়। ওমেগা থ্রি সমৃদ্ধ বিভিন্ন বীজ ও মাছ খেতে পারেন। এছাড়া চিয়া সিডস, সানফ্লাওয়ার সিডস রাখতে পারেন তালিকায়। টুনা, স্যামন মাছেও ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে প্রচুর পরিমাণে।

ভিটামিন : এসময় বিশেষ প্রয়োজন ভিটামিন সি-র। কারণ ভিটামিন সি অ্যান্টিবডি গঠন ও কোষের কার্যক্ষমতা বাড়াতে সহায়ক। কমলালেবু, পাতিলেবু, আমলকী, কাঁচা আম, কাঁচা মরিচ ভিটামিন সি-র ভালো উৎস। এক গ্লাস পানিতে একটি পাতিলেবুর রস মিশিয়ে খেয়ে নিতে পারেন। আমলকীতে ভিটামিন সি সবচেয়ে বেশি পরিমাণে পাওয়া যায়। অবশ্যই তা কাঁচা খাওয়ার চেষ্টা করবেন। উচ্চ তাপমাত্রায় ভিটামিন সি-র কার্যকারিতা অনেকটাই নষ্ট হয়ে যায়। ভিটামিন ই প্রয়োজন, কারণ এটি অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট হিসেবে কাজ করে। বাদাম, সবুজ শাকে ভিটামিন ই পাওয়া যায়। সংক্রমণ কমাতে সহায়ক ভিটামিন বি-ও এ সময়ে জরুরি। এর জন্য শস্যজাতীয় খাবার, দুধ ও মাংস রাখেন খাবার তালিকায়।

খনিজ : মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টস হিসেবে কাজ করে খনিজ। ম্যাগনেশিয়াম, সেলেনিয়াম, জিঙ্ক এ সময়ে খুব জরুরি। সেলেনিয়ামের জন্য চিকেন, দুধ ও ডিম এবং ম্যাগনেশিয়ামের জন্য ডাল খেতে পারেন।

প্রিবায়োটিক, প্রোবায়োটিক : শরীরের জন্য দুটি উপাদানই খুব জরুরি। রসুন, পেঁয়াজ, কলা, বার্লি, ওটস, আপেলে পাবেন প্রিবায়োটিক। আর প্রোবায়োটিকের জন্য ফারমেন্টেড দুধ এবং টক দই খেতে পারেন।

মশলা : অ্যান্টি-ব্যাকটিরিয়াল, অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদানের জন্য মশলাপাতিও সমান গুরুত্বপূর্ণ। কখনও তা সর্দিকাশি সারাতে কার্যকর। কখনও কোলেস্টেরল কমাতেও সাহায্য করে। তাই রোজকার খাবারে লবঙ্গ, দারুচিনি, আদা, গোলমরিচ, কাঁচা হলুদ রাখুন।

মোট কথা করোনা থেকে সেরে ওঠার পর সবচেয়ে দরকার সুষম আহার। কার্বসের জন্য ভাত, রুটি খান। ফ্যাট খেতে ইচ্ছা হলে আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট খান। রোজ ৮ থেকে ১০ গ্লাস পানি খাওয়ার চেষ্টা করুন। সেই সাথে তরল জাতীয় খাবার যেমন স্যুপ, ফলের রস খাওয়ার চেষ্টা করুন।

নিজের পচ্ছন্দমতো সব খাবার ঠিকঠাক রেখে ডায়েট রদবদল করে নিতে পারেন। তবে যাই করেন প্রসেসড খাবার বাদ দিতে হবে। এছাড়া ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, কোলেস্টেরল বা কিডনির সমস্যা আছে তারা চার্ট তৈরির আগে পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিন।



সাতদিনের সেরা