kalerkantho

বুধবার । ১১ কার্তিক ১৪২৮। ২৭ অক্টোবর ২০২১। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

পানি পানেই কমবে ওজন: গবেষণা

অনলাইন ডেস্ক   

৩১ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৭:২৭ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



পানি পানেই কমবে ওজন: গবেষণা

হাইড্রেটেড থাকা সুস্বাস্থ্য বজায় রাখার অন্যতম কার্যকর উপায় হিসাবে বিবেচিত। আপনি যে মৌসুমে বা বিশ্বের যে অঞ্চলেই বসবাস করে না কেন পর্যাপ্ত পরিমাণে তরল, বিশেষকরে পানি পান করার কোনো বিকল্প নেই। তবে আপনি কী জানেন যে পানি পান করা ওজন কমাতেও সাহায্য করে?

অনেক গবেষণা ও সমীক্ষায় এটা প্রমাাণিত যে পানি পান করার অনেক সুবিধা রয়েছে এবং ওজন কমানো এগুলোর মধ্যে একটি। ওবিসিটি জার্নালে প্রকাশিত ২০১১ সালের এক সমীক্ষায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে, হাইপোক্যালোরিক ডায়েটের (খুব কম ক্যালোরিযুক্ত ডায়েট হিসাবে পরিচিত) সময় পানি পান করলে প্রাপ্তবয়স্কদের, সাধারণত যাদের ওজন দ্রুত কমে না তাদেরও ওজন দ্রুত কমে।

২০১৭ সালে ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব ওবেসিটিতে প্রকাশিত আরেকটি সমীক্ষায় বলা হয়, যারা তাদের ১২ মাসের ডায়েট পরিকল্পনা থেকে কোমল পানীয় বাদ দিয়ে সাধারণ খাবার পানি খেয়েছে তাদের কেবল ওজনই কমেনি, পাশাপাশি তাদের ইনসুলিনের সংবেদনশীলতা কমেছে। তাদের দেহে কোলেস্টেরলের মাত্রায়ও উন্নতি হয়েছে।

নীচের কয়েকটি উপায়ে পানি পান করলে আপনারও ওজন কমাতে সহায়তা হতে পারে-

১. পানি পান পেট ভরা অনুভূত করায়: খাবার খাওয়ার আগে পানি পান বিশেষকরে ১০-১৫ মিনিট আগে পান করলে এটি খাবারের তৃপ্তি বাড়ায় ও অনেক্ষণ পেট ভরা থাকে। এটি অতিরিক্ত ক্ষুধা কমানোর পাশাপাশি তীব্র ক্ষয়ও রোধ করে। এর ফলে আপনার ওজন আরো দ্রুত কমাতে সহায়তা করে।

২. ক্যালোরি বার্ন দ্রুত হয়: বেশিরভাগ লোকের ওজন অনেক বেশি ও ক্যালোরি দ্রুত পোড়াতে সমস্যা হয়। গবেষণায় দেখাগেছে পর্যাপ্ত পানি পান করলে বিশ্রামের সময়ও এটি ক্যালোরি পোড়াতে সহায়তা করে। গবেষণায় আরো বলা হয়েছে যে পর্যাপ্ত পানি পান কার্বোহাইড্রেট এবং চর্বি দ্রুত পোড়াতে সহায়তা করে।

৩. প্রাকৃতিকভাবে দেহকে বিষাক্ত উপাদান মুক্ত করে তোলে: আপনার শরীর যখন পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পায় না, তখন শরীরে টক্সিন জমতে থাকে। অন্যান্য ডিটক্স পানীয়র পরিবর্তে খাবার পানি পান করলে এটি বিষাক্ত পদার্থগুলি বের করে আনতে সহায়তা করে।

৪. সামগ্রিক ক্যালোরি গ্রহণ কমায়: গবেষণা বলেছে যে অনেক সময় মানুষের আসলে তৃষ্ণাবোধ হয় তবে মস্তিষ্ক ক্ষুধার জন্য তৃষ্ণাবোধকে বিভ্রান্ত করে এবং মানুষ পানি খাওয়ার পরিবর্তে খাবার খায়। সুতরাং, আপনি যদি পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করেন তবে আপনার পক্ষে এই মিশ্র সংকেতগুলি অনুভব করা অসম্ভব। এটি প্রাকৃতিকভাবে জাঙ্ক ফুড এবং উচ্চ-ক্যালোরিযুক্ত পানীয়গুলি থেকে আপনার সামগ্রিক ক্যালোরির পরিমাণ কমায়।

৫. ব্যায়ামের ক্ষমতা উন্নত করে: পানি পেশীর কার্যক্রমের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ, তাই যথেষ্ট পরিমাণে পানি পান পেশী, সংযোজক টিস্যু এবং জয়েন্টগুলিকে ভালভাবে কাজ করতে সহায়তা করে। এ ছাড়া পানি পেশী জমাট বাধা এবং ক্লান্তি কমাতেও সাহায্য করে। এর ফলে আপনি ব্যামে মন দিতে পারবেন যা টেকসই ওজন হ্রাস করার জন্য বেশ প্রয়োজনীয়।

কত জল পান করা উচিত?

শুধু পানি পান করার ফলে ওজন হ্রাস হওয়ার অর্থ এই নয় যে আপনার কেবল পানি খেয়েই বাঁচতে হবে বা প্রতিদিন ৫-১০ লিটার পানি খেতে হবে। প্রকৃতপক্ষে, গবেষণাটি দেখায় যে আপনার শরীরের কত জল প্রয়োজন তা আপনার বয়স, শরীরের আকার, কাজের ধরণ, স্বাস্থ্যের স্থিতি, বায়ুমণ্ডলের তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতা এবং সূর্যের তাপের স্তরের ওপর নির্ভর করে।
যারা গ্রীষ্মমন্ডলীয় জলবায়ুতে বাস করে, অত্যধিক ঘাম হয়, শারীরিক শ্রম বা প্রতিদিন নিবিড় অনুশীলন  করেন তাদের অন্যদের তুলনায় বেশি পানি পান করা প্রয়োজন। প্রবীণ ব্যক্তি এবং গর্ভবতী মহিলাদের উচিৎ তাদের চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করে পানি পানের পরিমাণ নির্ধারণ করা। সাধারণভাবে, প্রাপ্তবয়স্কদের প্রতিদিন প্রায় দুই লিটার পানি পান করা উচিৎ বলে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেন। 

সূত্র: হেল্থ লাইন।



সাতদিনের সেরা