kalerkantho

বুধবার । ২১ শ্রাবণ ১৪২৭। ৫ আগস্ট  ২০২০। ১৪ জিলহজ ১৪৪১

চামড়া সংরক্ষণ করবেন যেভাবে

অনলাইন ডেস্ক   

১ আগস্ট, ২০২০ ১৩:৫৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চামড়া সংরক্ষণ করবেন যেভাবে

কোরবানির পর পরই চামড়া সংগ্রহ শুরু হয়ে যায়। কিন্তু এবারের ঈদ ভিন্ন। করোনাকালে কোরবানির সংখ্যা অন্যান্য বারের চেয়ে তুলনামূলক কম। তাছাড়া এবার চামড়া সংগ্রহে তোড়জোরও চোখে পড়ছে না। প্রতি বছর ঈদুল আজহায় স্বাভাবিকভাবে কোরবানির পশু জবাইয়ের পর চামড়া সংগ্রহ করতে বিভিন্ন মাদ্রাসা ও স্থানীয় দাতব্য সংস্থার প্রতিনিধিরা বাড়ি বাড়ি হাজির হয়। কিন্তু এবার পরিস্থিতি ভিন্ন। কাজেই যারা চামড়া বিক্রির অপেক্ষায় আছেন বা যারা চামড়া সংগ্রহ করছেন তাদের জন্যে এটাকে সংরক্ষণের সঠিক পদ্ধতি জেনে নেয়া অতি জরুরি। এখানে সংক্ষেপে জেনে নেয়া যাক।   

চামড়া সংরক্ষণ পদ্ধতি:
১. এটা প্রথমেই দরকর। কোরবানি দেওয়া ও চামড়া ছাড়ানোর জন্য দক্ষ লোক বেছে নেওয়া জরুরি।

২. জবাইয়ের পর পশুকে শক্ত কোনো খুঁটির সঙ্গে বেঁধে ঝুলিয়ে দিলে চামড়া ছাড়ানো সহজ হয়। খুঁটির সঙ্গে বেঁধে জবাইয়ের দাগ থেকে ধারালো ছুরি দিয়ে ধীরে ধীরে হালকা করে নিচের দিকে টেনে আলাদা করতে হবে চামড়া।

৩. চামড়া ছাড়ানোর পর লেগে থাকা রক্ত ও চর্বি যত দ্রুত সম্ভব সরিয়ে ফেলুন। না হলে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে চামড়ার সতেজ ভাবটা নষ্ট হয়ে যাবে। এছাড়া দ্রুত পচন ধরে যাওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। পরিষ্কার পানি দিয়ে চামড়া ভালো করে ধুয়ে হালকা রোদে দিন পানি ঝরে যাওয়ার জন্য।

৪. চামড়া এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নেওয়ার সময় চামড়া টানা-হেঁচড়া করবেন না।

৫. চামড়া ছাড়ানোর তিন থেকে চার ঘণ্টার মধ্যে তা বিক্রি করা না গেলে দ্রুত সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা উচিত।

৬. লবণ দিয়ে চামড়া সংরক্ষণ করা সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি। সংরক্ষণ করার জন্য চামড়ার ধরন বুঝে লবণ লাগাতে হবে। সাধারণত চামড়ার ওজনের বিশ শতাংশ হারে লবণ ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ, চামড়ার ওজন ১৫ থেকে ২০ কেজি হলে লবণ ব্যবহার করতে হবে ৩ থেকে ৪ কেজি। চামড়া বিছিয়ে তার ওপর লবণ ছিটিয়ে দিলে চামড়ায় থাকা পানি ও ব্যাকটেরিয়া বের হয়ে আসে। তারপর চামড়া ভালো করে ভাঁজ করে রাখতে হয়। লবণের পর্যাপ্ততা না থাকলে লবণ ও পানির মিশ্রনের সাহায্যেও কিছুদিন চামড়া সংরক্ষণ করা যায়।

৭. চামড়া রোদে শুকিয়েও সংরক্ষণ করতে পারেন। খোলা স্থানে বিছিয়ে বা তারের সাথে চামড়া ঝুলিয়ে রোদে শুকিয়ে নেওয়া যায়। তবে দীর্ঘক্ষণ রোদে শুকালে অনেক সময় চামড়ার গুনাগুণ নষ্ট হয়ে যায়। তাই লবণ পদ্ধতিই সবচেয়ে নিরাপদ।

৮. চামড়া সংরক্ষণ করতে পারেন হিমাগারেও। ট্যানারিগুলোতে সাধারণত চামড়া সংরক্ষণ করার জন্য হিমাগার থাকে। ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধক রাসায়নিক দ্রব্যের সাহায্যে সেখানে সংরক্ষণ করা হয় পশুর চামড়া।  

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা