kalerkantho

সোমবার । ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৫  মে ২০২০। ১ শাওয়াল ১৪৪১

হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা আগাম বুঝবেন যেভাবে...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ মে, ২০২০ ১৫:৫৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা আগাম বুঝবেন যেভাবে...

সিনেমায় যেমন দেখায়, ক্লাইম্যাক্স দৃশ্যে হঠাৎ করে কেউ হার্ট অ্যাটাকে মারা যাচ্ছে, বাস্তবে ঠিক ততটা ড্রামা থাকে না। হার্টের কোনও সমস্যা হলে তা আগে থেকে বোঝা যায়।

শরীরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল হলো হৃদপিণ্ড।এটি সচল থাকলে আমাদের ধড়ে প্রাণ থাকবে। আর এটি বিগড়ে গিয়ে বন্ধ হয়ে গেলে মৃত্যু অবধারিত। তাই এমন একটি যন্ত্রকে ঠিক রাখা আমাদের সকলের কর্তব্য। এটি ঠিক থেকে শরীরের অন্য কোনও গোলমাল হলে প্রাণটা যাওয়ার ভয় কম থাকে। তাই এটার বিশেষ যত্ন নেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। যদি আমরা নিজেরা সেই সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকি, তাহলে খুব সহজেই হার্ট অ্যাটাক এড়িয়ে যেতে পারি আমরা। 

নিচে সেই সম্পর্কে তুলে ধরা হলো...

বুকে ব্যথা 

হৃদপিণ্ডে গোলমালের সবচেয়ে বড় ক্লু হল বুকের বামদিকে মাঝে মাঝেই ব্যথা হওয়া। বুকে ব্যথা হলে বিষয়টি কখনও এড়িয়ে যাবেন না। মাঝেমাঝেই বুকে ব্যথা হলে দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। হাতে ব্যথা হার্ট অ্যাটাকের আগে হাতে ব্যথা হয়। সাধারণভাবে বাম হাতে ব্যথা হয়। তবে ডান হাতেও ব্যথা হতে পারে। এছাড়া বুকের ব্যথা হাতে প্রসারিত হতে পারে। 

হাত-পা ফুলে যাওয়া 

হাত-পা মাঝে-মধ্যেই ফুলে যায় আপনার? এমনটা খেয়াল করলে দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। এটি হৃদপিণ্ডের সমস্যার একটি লক্ষণ। হৃদপিণ্ডে সমস্যা হলে স্বাভাবিক রক্তচলাচল বাধাপ্রাপ্ত হয়, ফলে হাত-পা ফুলে যায়। ঘুম ঘুম ভাব ভালো করে ঘুম হওয়া সত্ত্বেও কোনও কারণ ছাড়াই আপনার যদি সারাক্ষণ ঝিমুনি পায় তাহলে বুঝবেন হৃদযন্ত্রে গোলমাল রয়েছে। 

অনিয়মিত হৃদস্পন্দন 

যদি বুঝতে পারেন আপনার হৃদস্পন্দন অনিয়মিত হয়ে পড়েছে, তাহলে সতর্ক হোন। হার্ট অ্যাটাকের প্রাথমিক লক্ষণগুলির একটি এটি। গলদঘর্ম হওয়া পাখার তলায় বসে বসেও যদি দেখেন ঘেমে-নেয়ে যাচ্ছেন তাহলে বুঝবেন সমস্যা গরম থেকে নয়, হৃদযন্ত্রে হয়েছে। 

নাক ডাকা 

নাক ডাকার সঙ্গে হার্ট অ্যাটাকের কোনও সরাসরি সম্পর্ক নেই। তবে ঘুমের মধ্যে অনেক নাক ডাকলে বুঝবেন আপনার নিদ্রাহীনতার সমস্যা হচ্ছে। এর ফলে হার্টে অত্যধিক চাপ পড়ে। ফলে হৃদযন্ত্রের সমস্যা বাড়তে পারে। 

ক্রমাগত কাশি 

বহুদিন ধরে যদি কাশির সমস্যা থাকে তাহলে সাবধান হোন। দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কারণ ক্রমাগত কাশি হার্টের সমস্যা বয়ে আনতে পারে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা