kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৭ রবিউস সানি ১৪৪১     

বিয়েতে কী উপহার দেবেন?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ১৫:২৪ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বিয়েতে কী উপহার দেবেন?

এসে গেছে বিয়ের মৌসুম। পুরো শীতকাল জুড়েই এই সময়টা  বিয়ে-শাদীর ধুম লেগে থাকবে। আর আপনিও এই বিয়ের নিমন্ত্রণ কম পাবেন না। বন্ধু, আত্মীয় কিংবা পরিচিত মানুষের বিয়ের নিমন্ত্রণে যাবেন। সব ঠিকঠাক। কিন্তু উপহার কি দিবেন? এ নিয়ে ভাবনায় পড়েন অনেকেই।

বিয়েতে উপহারসহ শুভেচ্ছা জানানোর একটা রীতি আছে আমাদের। কেননা এ যে কেবল উপহার নয়, আর্শীবাদও। আর তাই সাধ ও সাধ্যের মাঝে সমন্বয় করে আপনজনের বিয়েতে মনমত একটা উপহার দেবার চেষ্টা সবাই করে থাকেন। 

কয়েকজন মিলে উপহার দিলে তেমন ঝামেলা নেই। তবে একা উপহার দিতে গেলেই সাধ আর সাধ্যের চিরায়ত দ্বন্দ্ব ফিরে আসে বারবার। আর মনের মধ্যে হাজারো সংশয়- বাজেটের মধ্যে ভালো দেখে একটা উপহার পাওয়া যাবে কি না, উপহারটা খুব সাদামাটা হয়ে যাচ্ছে কি না, আরও কত কী!

আগে বিয়েতে সোনার গহনা, শাড়ি, কাঠের ফার্নিচার, কাঁসার তৈজসপত্র ইত্যাদি দেবার প্রচলন বেশি ছিল। হয়তো নগদ অর্থ দিতেন কেউ কেউ। তবে দিন বদলেছে। আর তার সাথে মিলিয়ে বদলেছে উপহারের রকমফের। 

কনের জন্য শাড়ি বা গয়না দেওয়ার প্রচলন আছে বেশ আগে থেকেই। এ ছাড়া পার্স, বড় ব্যাগ বা বিশেষ কোনো মেকআপ কিট দিতে পারেন। বরকে দেওয়া যায় পাঞ্জাবি। পোশাক দিতে চাইলে আগে থেকেই জেনে নিতে চেষ্টা করুন, যাঁর জন্য পোশাকটি কেনা হচ্ছে, তিনি কী ধরনের পোশাক বা কোন ধরনের রং পছন্দ করেন।

নুতন সংসারে তো সব কিছুই লাগবে যেমন ধরুন ওয়াটার ফিল্টার, ননস্টিক হাঁড়িপাতিলের সেট, হটপট, ব্লেন্ডার, জুসার, গ্রাইন্ডার, টোস্টার, রাইস কুকার, ভ্যাকুয়াম ক্লিনার, ইস্ত্রি কিংবা বিছানার চাদর, কুশন কভার, কম্বল, ফুল দানি, কার্পেট, ডিনার সেট, ইত্যাদি। গিফট ভাউচার, গিফট কার্ড আজকাল অনেকেই উপহার দিচ্ছেন বিয়েতে।

ঘর সাজানর টুকিটাকি, পেইন্টিং, টেবিল লাম্প, ফটো ফ্রেম, কফি মগ সেট, ছুরি-কাঁটা-চামচের সেট এইগুলিও ভীষণ দরকারি ও মানানসই উপহার নুতন দম্পতিদের জন্য। কনের জন্য পারিজাত ডিজাইনের জুয়েলারি বক্স একটি সুন্দর উপহার। আয়না, ল্যাম্পশেড, ফটোফ্রেম, মোমদানি, নানা রকম মোম, ফুলদানি আর শোপিসও মন্দ নয়।

বর-কনের জন্য কফি পানের মগ দিতে পারেন। আজকাল সিরামিকের মগে শুভেচ্ছাবাণী লিখিয়ে নেওয়ার সুযোগ রয়েছে। চাইলে পছন্দসই ছবি ছেপে দেওয়া যায় মগের গায়ে। তাপমাত্রার পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে ছবি দৃশ্যমান হবে, এমন মগও অর্ডার দিয়ে বানিয়ে নিতে পারেন। অনলাইনেও এসব মগের অর্ডার দেওয়ার সুযোগ রয়েছে। চায়ের কাপের সেট, ছুরি-কাঁটাচামচের সেট বা ডিনার সেটও বেশ।

অফিস কলিগ বা বন্ধু হলে অন্য সব বন্ধু ও অফিস কলিগরা মিলে একটু বড়সড় উপহারও দিতে পারেন। এলইডি টেলিভিশন, মাইক্রোওয়েভ ওভেন, ওয়াশিং মেশিন, এমনকি ছোটখাটো কোনো আসবাবও হতে পারে অন্য রকম একটা উপহার। হয়তো বন্ধুর ছবি তোলার শখ, বিয়েতে তাঁকে ডিএসএলআর ক্যামেরা উপহার দিতে পারেন। বিশেষ কোনো বই, এমনকি বুকশেলফও দেওয়া যেতে পারে।

ইলেক্ট্রনিক সামগ্রীর মধ্যে অনেক কিছুই আপনি পছন্দ করতে পারেন। মোবাইল সেট, ক্যামেরা, ট্যাব, আইপ্যাডসহ অন্যান্য গ্যাজেটও উপহার হিসেবে মানানসই হতে পারে। ডিজিটাল অ্যালবাম অল্প খরচের মধ্যে দারুন হয়।

নবদম্পতির মধুচন্দ্রিমার টিকিট দুখানি যদি হয় বিয়ের উপহার, তবে উপহারদাতাকে নিশ্চিতভাবেই আলাদা করে মনে রাখবেন নবদম্পতি! বর-কনের সঙ্গে কথা বলে তাঁদের সুবিধামতো সময়ে মধুচন্দ্রিমার যাবতীয় ব্যবস্থা করে দিতে পারেন। চাইলে পরিবারের কয়েকজন সদস্য মিলেও এ ধরনের বড় কোনো উপহার দিতে পারেন।

স্বজনেরা নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করে ঠিক করে নিতে পারেন, কে কী উপহার দিচ্ছেন। বর-কনের কাছে না হয় সেসবের পুরোটাই সারপ্রাইজ থাক।

সাধ আর সাধ্যের মধ্যে মানানসই বিয়ের উপহারের মধ্যে বিভিন্ন শৌখিন সামগ্রী, ঘর সাজানোর জিনিসপত্র, ক্রোকারিজ, বেডশিট ইত্যাদির কদর বেশি। এগুলো কিনতে চাইলে যেতে পারেন- দোয়েল চত্বর, নিউমার্কেট, চন্দ্রিমা মার্কেট, গুলশান ডিএনসিসি মার্কেট, আড়ং ইত্যাদিতে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা