kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

মশা কি একটু বেশিই কামড়ায়? কারণটা জানেন তো?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ অক্টোবর, ২০১৯ ১৫:৩১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মশা কি একটু বেশিই কামড়ায়? কারণটা জানেন তো?

ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়া ও চিকুনগুনিয়ার মতো প্রাণঘাতী অনেক রোগই ছড়ায় মশা থেকেই। সময় মতো ব্যবস্থা না নিতে পারলে এগুলোই প্রাণঘাতী হয়ে দাঁড়াতে পারে। হারাতে পারেন জীবনটা। সেই জন্য ঘরে ঘরে মাশা মাড়ার ধূপ, কয়েল, তেল-এমন আরো কতো কী না মজুত করা থাকে। সন্ধ্যা হলেই জ্বলে ওঠে বাতি। কিন্তু তারপরও কিছু মানুষকে মশারা যেন একটু বেশিই কামড়ায়! 

কখনও ভেবে দেখেছেন, এমনটা কেন হয়? এটা কি শুধুই মনের ভুল, নাকি সত্যি সত্যিই কিছু মানুষকে মশা অন্যদের তুলনায় একটু বেশিই কামড়ায়! আসুন জেনে নেওয়া যাক...

মার্কিন গবেষকদের মতে, মনের ভুল বা ভুল ধারণা নয়, কিছু মানুষকে মশা অন্যদের তুলনায় সত্যিই একটু বেশি কামড়ায়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার ইউসি ডেভিস ইউনিভার্সিটির একদল গবেষকদের মতে, কিছু কিছু মানুষের শরীরে মশার প্রিয় রাসায়নিক বেশি পরিমাণে থাকে। আর ওই রাসায়নিকের গন্ধে মশার দল ওই সব মানুষদের প্রতি অন্যদের তুলনায় বেশি আকৃষ্ট হয়।

ইউসি ডেভিস ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক লার্ক কফি জানান, মশারা আকৃষ্ট হয় মানুষের শরীরের গন্ধ এবং নিঃশ্বাসের সঙ্গে নির্গত কার্বন ডাই-অক্সাইডের মাধ্যমে। একেক জনের শরীরের গন্ধ একেক রকমের হয়। কোনো কোনো মানুষের শরীরের গন্ধ মশাকে বেশি আকৃষ্ট করে। ত্বক থেকে নিঃসৃত ল্যাকটিক অ্যাসিডের গন্ধ মশাদের বেশি আকৃষ্ট করে। 

অধ্যাপক লার্কের মতে, যাদের শরীর অন্যদের তুলনায় বেশি ঘামে, যাদের শরীর থেকে অন্যদের তুলনায় ল্যাকটিক অ্যাসিড নির্গত হয়, তাদের প্রতি মশারা বেশি আকৃষ্ট হয় এবং তাদেরকেই মশা বেশি কামড়ায়।

দীর্ঘ পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর মার্কিন গবেষকরা জানান, যাদের রক্তের গ্রুপ ‘ও’; তাদেরকেই মশা বেশি কামড়ায়। তবে ‘ও’ গ্রুপ ছাড়াও যাদের শরীর অতিরিক্ত মেদযুক্ত বা যাদের নিয়মিত মদ্যপানের অভ্যাস রয়েছে, কিংবা গর্ভবতী মহিলাদের মশারা অন্যদের তুলনায় বেশি কামড়ায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা