kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

প্রেমের জোয়ারে ভাসছেন? এই ১১টি ভুলে ভাটা অনিবার্য

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ জুলাই, ২০১৯ ১৬:১০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



প্রেমের জোয়ারে ভাসছেন? এই ১১টি ভুলে ভাটা অনিবার্য

ভালোবাসার সম্পর্কে বা বৈবাহিক সম্পর্কের পথে অনেক ঝড়ই আসে। ভালোবাসার পথে আপোস করা থাকে, পরস্পরের পছন্দ-অপছন্দের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া থাকে, থাকে পরস্পরের পাশে থাকাও। কিন্তু অনেক সময় বহু চেষ্টা করা সত্ত্বেও সম্পর্কের ঘড়ি নিয়মমাফিক চলে না। তাই ঝড় ওঠে বারবার। এসময় কোনো একজন সঙ্গীর বেশ কিছু আচরণ ভালোবাসার সম্পর্কে ভাটা এনে দিতে পারে। তাহলে জেনে নিন যে কাজগুলো সঙ্গীর সঙ্গে করা ঠিক না।

গোপন সম্পর্কের ছবি শেয়ার না করা

ভালোবাসার মানুষটির সঙ্গে নিজের অজান্তেই গড়ে ওঠতে পারে যৌন সম্পর্ক। সেই সম্পর্কের ছবি কারো সঙ্গে শেয়ার করা উচিত নয়। সমাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বা অনলাইনেও শেয়ার করা উচিত নয়।

টাকা-পয়সায় সীমাবদ্ধতা রাখা

আপনি চাকরি করে বা অন্যকোনো উপায়ে টাকা-পয়সা উপার্জন করতে পারেন। আর আপনার সংসারটিকে ভালোভাবে চালানোর জন্য সেই টাকা খরচ করবেন। কিন্তু সেই টাকা খরচ করাতে আপনার সঙ্গীকে সীমাবদ্ধতার মধ্যে রাখা উচিত হবে না। এটি এক ধরনের পারিবারিক নির্যাতন।

সঙ্গীকে অপমানজনক কথা না বলা

কোনো কারণ ছাড়া বা যেকোনো কারণে সঙ্গীকে অপমান করা ঠিক নয়। ঝগড়া করা মানেই সঙ্গীকে অপমান করা নয়। মতের মিল নাও হতে পারে। তাই বলে এমন কিছু বলবেন না; যাতে আপনার জীবনসঙ্গী অপমানিত হন। পরে হয়তো ক্ষমা চেয়ে নিতে পারবেন; কিন্তু অপমানজনক কথা ফিরিয়ে নিতে পারবেন না। তাই সবসময় কিছু বলার আগে ভেবে বলুন। তা না হলে এ ধরনের ভুলের কারণে নষ্ট হতে পারে সুন্দর দাম্পত্য সম্পর্ক। তাই যতো সম্ভব সঙ্গীকে অপমানজনক কথা বলা এড়িয়ে চলুন।

সঙ্গীর ওপর নিয়ন্ত্রণ

আপনার সঙ্গী যদি কোনো কারণে আপনার ওপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চান তাহলে সতর্ক হন। এই কাজগুলো একটি সম্পর্ক নষ্ট করে দিতে পারে।

সঙ্গীকে আতঙ্কিত করা

আপনার সঙ্গী আপনাকে অনেক ভালোবাসে কিন্তু সব সময় আতঙ্কিত করে রাখে তাহলেও আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে। আপনার সঙ্গী যদি কোনো কারণ ছাড়াই আপনার সঙ্গে চিৎকার করে কথা বলেন, ভয়ঙ্কর শারীরিক আচরণ করেন, আপনার প্রিয় জিনিস ধ্বংস করেন, শিশুদের হত্যা বা ক্ষতি করার হুমকি দেন; তাহলে বুঝতে হবে আপনার সঙ্গী আপনাকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করছে। আর সম্পর্ক ভালো রাখতে এই কাজগুলো এড়িয়ে চলুন।

সঙ্গীর ব্যক্তিগত জিনিস প্রকাশ করার হুমকি

সঙ্গীর ব্যক্তিগত অনেক জিনিস সম্পর্কে আপনি জানবেন এটা খুব স্বাভাবিক। আর আপনার সঙ্গীর গোপন বা ব্যক্তিগত জিনিসগুলো আপনার কাছে সুরক্ষিত থাকবে এটাই মনে করবেন আপনার সঙ্গী। কিন্তু এই জিনিসগুলো অন্যের কাছে প্রকাশ করার হুমকি দেওয়া ঠিক নয়। এর ফলে নষ্ট হয়ে যেতে পারে আপনাদের সুন্দর ভালোবাসার সম্পর্ক। তাই তা এড়িয়ে চলা উচিত। 

স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ

আপনার সঙ্গী একজন স্বাধীনচেতা মানুষ। তাই তার কাছে স্বাধীনতার মূল্য অনেক বেশি। আর তার স্বাধীনতায় আপনি যদি হস্তক্ষেপ করেন তাহলে হিতে বিপরীত হতে পারে। নষ্ট হয়ে যেতে পারে ভালোবাসার সুন্দর সম্পর্ক। তাই নিজের সঙ্গীকে স্বাধীনতা দিন, তাহলে সম্পর্ক আরো মধুর হবে।

ঈর্ষান্বিত হওয়া

আপনার সঙ্গীর কোনো কাজে ঈর্ষান্বিত হওয়া যাবে না। সঙ্গী যদি সফল হয় বা কোনো কাজে ভালো করে তাহলে আরো সাহস দিন। সেই সঙ্গে উৎসাহ দিন। এতে করে তিনি আরো সাহস পাবেন ভালো কাজ করার। কিন্তু আপনি যদি ঈর্ষান্বিত হন তাহলে সম্পর্ক ভেঙে যেতে পারে।

নিয়ম মেনে চলতে বাধ্য করা 

সঙ্গী যদি আপনাকে তার নিয়ম মেনে চলতে বাধ্য করেন তাহলে ভালোবাসার সম্পর্কে ভাটা চলে আসতে পারে। তাই সবারই উচিত সঙ্গীকে নিজের মতো চলতে দেওয়া। 

পোশাক-আশাকের ওপর নিয়ন্ত্রণ

প্রতিটি মানুষেরই পোশাক-আশাকের ওপর আলাদা আলাদা পছন্দ থাকে। নিজেদের মতো করে পোশাক পরতে চান। কিন্তু পোশাক পরায় যদি আপনার সঙ্গী নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চান তাহলে সৃষ্টি হতে পারে নানা সমস্যা। তাই একটি ভালো সম্পর্কের মধ্যে এই বিষয়টি এড়িয়ে চলতে হবে।

সঙ্গীর ইচ্ছার প্রাধান্য

ভালোবাসার সম্পর্কে বা বৈবাহিক সম্পর্কের মধ্যে সঙ্গীর ইচ্ছাকে প্রাধান্য দিন। তাহলে সুখে দিনযাপন করতে পারবেন। আর যদি আপনার সঙ্গী যা করতে চান না তা করতে বাধ্য করান তাহলে ভালোবাসায় অসুখ তৈরি হতে পারে।

ভালোবাসা বা বৈবাহিক সম্পর্কের ভিত্তি হলো নিজের সঙ্গীকে বিশ্বাস রাখা, তাকে সম্মান কারা, তার ইচ্ছাগুলোকে প্রাধান্য দেওয়া। এতে করে নিজেদের সম্পর্ক ভালো থাকবে এবং সুখে বসবাস করতে পারবেন।

সূত্র: ওয়েলস অনলাইন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা