kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

মাথা ব্যথায় কী করবেন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ জুলাই, ২০১৯ ০৯:৩৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মাথা ব্যথায় কী করবেন

মাথা কিংবা ঘাড়ের যেকোনো স্থানে ব্যথা হলে তাকে মাথা ব্যথা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। কোনো রোগের কারণে, শরীরের সমস্যার বাইরের প্রভাবেও মাথা ব্যথা হতে পারে।

দুশ্চিন্তা (টেনশন) থেকে সৃষ্ট মাথা ব্যথা ও মাইগ্রেন প্রাথমিক পর্যায়ের বা সাধারণ মাত্রার মাথা ব্যথা। ৯০ শতাংশ মাথা ব্যথার কারণ হিসেবে কাজ করে দুশ্চিন্তা। মানসিক চাপ, চোখের অস্বস্তি, ঘুমের অভাব, ক্ষুধা, অস্বস্তিকর ঘুমের ভঙ্গি, ঘুমের মধ্যে দাঁত কিড়মিড় করা, পেশির খিঁচুনি, শিরায় রক্তপ্রবাহ বাধাগ্রস্ত হওয়া, অতিমাত্রায় অ্যালকোহল ও ধূমপান, পানিশূন্যতা, জেনেটিক অবস্থা ইত্যাদি কারণেও এ মাথা ব্যথা হয়। মাইগ্রেন অন্য মাথা ব্যথার চেয়ে মারাত্মক ও তীব্র। ক্রনিক নিউরোলজিক্যাল ডিস-অর্ডার এবং আলোয় সংবেদনশীলতা, বমি ভাব ও অবসাদগ্রস্ততা মাইগ্রেনের ব্যথার সঙ্গে দেখা দেয়।

দ্বিতীয় পর্যায়ের মাথা ব্যথার উৎস হিসেবে গলার পেছন দিকটা, মাথা ও মানসিক অবস্থার কথা বলা হয়। এটা প্রায়ই মারাত্মক মাথা ব্যথা হিসেবে দেখা দেয়। ক্ষেত্রবিশেষে তা প্রাণনাশীও হতে পারে। এ ব্যথা হঠাৎ কয়েক মিনিটের মধ্যে তীব্রতা পায় এবং দ্রুতই কমে যেতে পারে। অনেক সময় ঘুম থেকে প্রচণ্ড মাথা ব্যথা নিয়ে জাগতে হয়। তখন দৃষ্টিশক্তি হয় অস্বাভাবিক। ঘাড় নড়ানো যায় না, ব্যথার সঙ্গে জ্বরও আসতে পারে। দ্বিতীয় পর্যায়ের মাথা ব্যথার কারণ হিসেবে বাড ক্লটস, মস্তিষ্কে টিউমার, অ্যানিউরিজমস (ধমনির দেয়ালের দুর্বলতার কারণে ধমনি স্ফীত হয়ে ওঠা), মিনিয়েচার স্ট্রোক এবং কার্বন মনোক্সাইড বা বিষাক্ত উপাদানের প্রভাবের কথা বলা হয়।

করণীয়
প্রাথমিক পর্যায়ের মাথা ব্যথার ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা প্রচুর পানি পান এবং বাদাম, শাক, শিমের বিচি, ডার্ক চকোলেটের মতো ম্যাগনেসিয়ামপূর্ণ খাবার খেতে বলেন। পর্যাপ্ত ঘুমও মাথা ব্যথা থেকে বাঁচার উপায়। পনির, গাজন প্রক্রিয়ায় বানানো খাবার, অ্যালকোহল ইত্যাদিতে হিস্টামিন নামের উপাদান থাকে, যা মাথা ব্যথা সৃষ্টি করে। কাজেই যাদের মাথা ব্যথা হয় এবং যারা এ ধরনের খাবারে অভ্যস্ত তাদের সাবধান হতে হবে। সাধারণ মাথা ব্যথায় ক্যাফেইন গ্রহণ করা যেতে পারে। আর মাথা ব্যথা কমাতে অবশ্যই একটু খোলা বাতাসে হাঁটাহাঁটি করুন। কারো এসব উপায়ে ব্যথা না গেলে প্রচলিত ওষুধগুলো খাওয়া যেতে পারে।

দ্বিতীয় পর্যায়ের মাথা ব্যথা নিরাময়ে অবশ্যই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে। কারণ এ ব্যথা জটিল কোনো কারণে ঘটে থাকে।

অর্গানিক ফ্যাক্টস অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা