kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

গর্ভবতীর ত্বকের যত সমস্যা এবং সমাধান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ২১:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গর্ভবতীর ত্বকের যত সমস্যা এবং সমাধান

একজন নারী গর্ভধারণ করার পর তার মানসিক ও শারীরিক দুই ক্ষেত্রেই বড় পরিবর্তন আসে। মা হওয়া আনন্দদায়ক তো বটেই, তবে সে সময় শারীরিক নানা জটিলতা ও যন্ত্রণাও ভয়াবহ। সন্তান গর্ভে আসার পর ৯ মাস ধরে নানা প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে যেতে হয় একজন হবু মাকে। অন্তঃসত্তা থাকা অবস্থায় নারীদের ত্বকেও বেশ কিছু সমস্যা দেখা যায়। মূলত হরমোন জনিত কারণেই এই সমস্যা দেখা যায়।

এই সময় খুব বেশি রাসায়নিক ক্রিম ব্যবহার করা যায় না। যখন-তখন ইচ্ছা মতো ওষুধসেবনও ঠিক নয়। তাহলে এই ধরনের ত্বকের সমস্যায় কি কিছুই করার উপায় নেই? ত্বক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সময় কিছু বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে হয় হবু মাকে। এমন কোনো দ্রব্য ব্যবহার করা যায় না, যা তার শরীর ও ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। কারণ, তার উপরেই নির্ভর করবে গর্ভস্থ শিশুর স্বাস্থ্য।

অন্তঃসত্ত্বা নারীদের ত্বকের সমস্যা আর সেগুলোর সমাধান:

► প্রেগনেন্সির সময়ে অ্যাকনের সমস্যা হয়। তাই এই সময়ে স্যালিসিক অ্যাসিড, বেনজয়েল পেরোক্সাইড, টপিকাল রেটিনয়েডস এবং রেটিনল যুক্ত কোনো প্রডাক্ট ব্যবহার করবেন না।

► ত্বকের অতিরিক্ত পরিমাণ তেল দূর করতে কোনো হালকা ক্লিনজার ব্যবহার করুন। টপিকাল অ্যান্টিবায়োটিক যুক্ত প্রডাক্ট ব্যবহার করতে পারেন। এইগুলি রোজ রাতে ব্যবহার করা ভাল। 

► প্রেগনেন্সির সময় পিগমেন্টেশনের সমস্যায় ভোগেন অধিকাংশ নারী। এই সময় মেলাসমা বা স্কিন ডালনেস হয়ে থাকে।

► ত্বকের উপর বাদামি ছোপ ছোপ দাগ হয়। সকালে ভিটামিন সি যুক্ত ক্রিম ব্যবহার করুন।

► ভিটামিন সি-যুক্ত সিরামও ব্যবহার করলে ফল পাবেন।

► অ্যাজেলাইক অ্যাসিড বা আলফা হাইড্রক্সি অ্যাসিড-যুক্ত প্রোডাক্ট ব্যবহার করলে পিগমেন্টেশন বা ত্বকে বাদামি ছোপ অনেকটাই  এড়ানো যাবে।

► প্রায় সকল অন্তঃসত্ত্বা নারীর ত্বকে র‍্যাশের সমস্যা দেখা যায়। এটা অস্বাভাবিক নয়। তবে সমস্যা বাড়াবাড়ি পর্যায়ে চলে গেলে ত্বক বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

► এই সময়ে ত্বকে হেয়ার গ্রোথের পরিমাণ বাড়ে। হরমোন অসামঞ্জস্যের জন্য এই সমস্যা হয়।

► গর্ভাবস্থায় চুল পড়ে যাওয়ার সমস্যাতেও অনেকে আক্রান্ত হন।

► এসব সমস্যা এড়াতে গর্ভাবস্থায় খাদ্য তালিকায় ভিটামিন ও পুষ্টির পরিমাণে যাতে ভারসাম্য থাকে সে দিকে নজর দেওয়া জরুরি। এছাড়া যথেষ্ট পরিমাণে ঘুম এবং দুশ্চিন্তামুক্ত থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ত্বকের সমস্যা হলে নিজে নিজে ডাক্তারি না করে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

মন্তব্য