kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৩ মে ২০১৯। ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৭ রমজান ১৪৪০

নারীর প্রতি সহিংসতা

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নারীর প্রতি সহিংসতা

নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা যেন পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে। নারীরা কোথাও নিরাপদ নয়, না কর্মস্থলে, না শিক্ষাঙ্গনে। এমনকি ঘরেও নয়। সর্বত্রই তারা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে, দিনের পর দিন। সবাই চায় পৃথিবীতে সুন্দরভাবে বাঁচতে। আমাদের দেশে আড়াই বছরের শিশু থেকে বৃদ্ধা পর্যন্ত ধর্ষণের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না। একের পর এক ধর্ষণের ঘটনা ঘটেই চলেছে। ধর্ষণ নামের সামাজিক ব্যাধি নির্মূল করতে নানা ধরনের উদ্যোগ, আইন ও সামাজিক আন্দোলন করেও কাজ হচ্ছে না। দেশের কোথাও না কোথাও ধর্ষণ, গণধর্ষণসহ জোরপূর্বক বিয়ের ঘটনা ঘটছে। অনেক সময় ধর্ষিতা পরিবার, সমাজ ও লোকলজ্জার ভয়ে আত্মহত্যা করছে। সামাজিক বিচারের রায়ে ধর্ষকের পরিবর্তে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে ধর্ষিতাকে। সম্প্রতি আমরা লক্ষ করছি, দু-একটি মাদরাসার শিক্ষক ও মসজিদের ইমামও এই জঘন্য অপরাধে জড়িয়ে যাচ্ছে। একের পর এক ধরনের ঘটনা ঘটেই যাচ্ছে, আর অপরাধীরা পারও পেয়ে যাচ্ছে। পার পেয়ে যাচ্ছে বলেই তো এ ধরনের জঘন্য কাজ করতে অপরাধীদের মনে কোনো ধরনের ভীতির সঞ্চার হয় না। নারী নির্যাতন, ধর্ষণ ইত্যাদি প্রতিরোধে বিচার সম্পন্নসহ দেশে যথেষ্ট আইন রয়েছে। ধর্ষকদের ক্রসফায়ারে দেওয়ার দাবিও উঠেছে। নারী এবং শিশুদের ওপর নির্যাতনকারীদের তাত্ক্ষণিকভাবে গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় যত দিন না আনা হবে তত দিন সম্ভব নয় নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধ করা। এ বিষয়ে সরকারি ও সামাজিক উদ্যোগ জরুরি। সরকার গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি ভাববে বলে আশা করছি।

ফারহানা মাহমুদ তন্বী, বকশীবাজার, ঢাকা।

মন্তব্য