kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৫ জুন ২০১৯। ১১ আষাঢ় ১৪২৬। ২২ শাওয়াল ১৪৪০

বনানীর অগ্নিকাণ্ড

রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যানসহ ৬৭ জন অনিয়মে জড়িত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যানসহ ৬৭ জন অনিয়মে জড়িত

১৫ তলা নির্মাণের জন্য ১৯৯০ সালে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) অনুমতি নেওয়া হয়েছিল ভবনটির। পরবর্তী সময়ে ভবনটি ১৮ তলায় উন্নীত করতে আবেদন করেন ভবনটির মালিকরা। ১৯৯৬ সালে ১৮ তলার অনুমোদন দেওয়া হলেও অনুসরণ করা হয় পুরনো আইন (ইমারত নির্মাণ বিধিমালা ১৯৮৬)। ১৯৯৬ সালের ইমারত নির্মাণ বিধিমালায় ভবনের দুই পাশে আড়াই মিটার করে ফাঁকা জায়গা রাখার বিধান থাকলেও পুরনোটিতে তা ছিল না। এ ছাড়া ২০০৫ সালে ভবনটির দাখিলকৃত নকশা বৈধ ছিল না। অর্থাৎ পুরো অনিয়ম করে ১৮ তলা থেকে ২৩ তলা করা হয়েছে ভবনটি। বনানীতে অগ্নিকাণ্ডের পর গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

ভবনটির অনিয়মের সঙ্গে জড়িত থাকায় রাজউকের তৎকালীন চেয়ারম্যান হুমায়ুন খাদেম, সাবেক সদস্য ডি এম ব্যাপারী, নগর পরিকল্পনাবিদ জাকির হোসেন, প্রধান প্রকৌশলী মো. সাইদুর রহমান, অথরাইজড অফিসার সৈয়দ মকবুল আহমেদ, সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ উল্লাহ, লিজ গ্রহীতা সৈয়দ মো. হোসাইন ইমাম ফারুকসহ ৬৭ ব্যক্তির জড়িত থাকার তথ্য উঠে এসেছে তদন্ত প্রতিবেদনে। তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। এ ছাড়া সরকারি যেসব কর্মকর্তা এখন অন্যান্য সংস্থায় চাররিরত, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হবে বলেও জানান তিনি।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘বনানীর অগ্নিকাণ্ডের পর একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। বাকিদের আইনের আওতায় আনতে আরেকটি মামলা দায়ের করা হবে। এ ছাড়া সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হবে।’ গত ২৮ মার্চ ঢাকার বনানীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. ইয়াকুব আলী পাটওয়ারীর নেতৃত্বে আট সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। 

অগ্নিকাণ্ডের ব্যাপারে প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্ণিত ভবনের জরুরি বহির্গমন ও অগ্নিনিরাপত্তা ব্যবস্থা নকশা অনুযায়ী হয়নি। ভবন নির্মাণবিধি মোতাবেক নিশ্চিতকরণে ‘ডিউটি অব কেয়ার অ্যান্ড স্কিল’ প্রয়োগ হয়নি। এতে অবহেলা রয়েছে। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা এ অবহেলার সাক্ষ্য প্রতিষ্ঠা করে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা